চট্টগ্রাম শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:০২ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইউএসটিসি আয়োজিত সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা

আত্মহত্যার ৯০% মানসিক রোগের কারণ

বিশে^ আত্মহত্যার কারণে প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে। বর্তমানে বাংলাদেশেও আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়েছে। যাদের অধিকাশের বয়স হচ্ছে ১৫ থেকে ২৯ বছরের তরুণ-তরুণী। এর মধ্যে নারীদের সংখ্যা খুবই বেশি। বিশেষজ্ঞদের মতে, যারা আত্মহত্যা করছেন তাদের বেশিরভাগই মানসিক সমস্যায় ভুগে থাকেন। যার কারণেই তারা আত্মহত্যার পথ বেঁচে নেন। আত্মহত্যার প্রধান কারণ হিসেবে চিকিৎসকরা মানসিক সমস্যাকেই দেখছেন। তাদের মতে, যারা আত্মহত্যা করেন তাদের ৯০ ভাগই কোনো না-কোনো মানসিক রোগে ভোগেন।

গতকাল সোমবার সকালে ইউএসটিসি হাসপাতাল মানসিক বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত এক সেমিনারের এসব কথা জানানো হয়। ইনসেপ্টা ফার্মাসিটিক্যাল লিমিটেডের সহযোগিতায় এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. এ এম এম এহতেশামুল হকের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউএসটিসি’র উপাচার্য অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইউএসটিসি’র মানসিক রোগ বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. শফিউল হাসান।

প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে ডা. শফিউল হাসান বলেন, আত্মহত্যা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে যুব সমাজের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি দেখা দিয়েছে। গবেষণায় দেখা যায় ৯০ ভাগ আত্মহত্যাই মানসিক রোগের কারণে হয়ে থাকে। প্রতিদিন আমাদের চারপাশেই ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তি, কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীসহ নানা বয়সীরা আত্মহত্যার ইচ্ছে ও পরিকল্পনা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে সময় মত তাদের উপযুক্ত ব্যবস্থা নিলে অনেকাংশে আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব।

পরিকল্পিতভাবে এবং আবেগ তাড়িত হয়ে আত্মহত্যা করে থাকেন উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে অধিকাংশ আত্মহত্যার ঘটনা আবেগ তাড়িত হয়ে ঘটে। এ কারণে তরুণ-তরুণীরাই বেশি আত্মহত্যা করেন। তাছাড়া নারীদের মধ্যে আত্মহত্যার হার বেশি হওয়ার কারণ আমাদের আর্থ সামাজিক অবস্থা বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মানসিক রোগের সঠিক চিকিৎসা করা গেলে আত্মহত্যা কমবে। মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নের জন্য মনকে পরিচর্যা করতে হবে। মন কি-তা সাধারণ মানুষকে চিনিয়ে দিতে হবে। শিশুকাল থেকেই মানসিক ও সামাজিক বিকাশের জন্য মা বাবাদের আরও সতর্ক থাকতে হবে। মানসিক স্বাস্থ্যসেবা শুধু মানসিক রোগীদের জন্য নয়, বরং এই সেবা সবার জন্য বলে উল্লেখ করেন তিনি।
ডা. সুলতানা রুমা আলমের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন আইডিএ’র সভাপতি ডা. সাদমান ও মনোবিজ্ঞানী তাসরিন ফেরদৌস।

The Post Viewed By: 86 People

সম্পর্কিত পোস্ট