চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২১ অক্টোবর, ২০১৯ | ১:৪৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

শিল্পকলায় স্মরণ সভায় বক্তারা

শুদ্ধ আবৃত্তি চর্চায় কামরুল হাসান ছিলেন অনন্য অতুলনীয়

সৃজনশীল চিন্তাধারার আবৃত্তিশিল্পী কামরুল হাসান মঞ্জু শুদ্ধ আবৃত্তি চর্চায় ছিলেন অনন্য ও অতুলনীয়। আবৃত্তিকে লালন করেছেন আমৃত্যু মনেপ্রাণে। ব্যক্তি হিসেবেও তিনি ছিলেন অসাধারণ। তিনি বলতেন, আবৃত্তি হচ্ছে বিশ্বাস থেকে বলার শিল্প, শিল্পীর সত্যস্বর। আবৃত্তি শিল্পী কামরুল হাসান মঞ্জু স্মরণ সন্ধ্যায় অতিথিরা এ কথা বলেন।

গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় শিল্পকলার আর্ট গ্যালারিতে বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী কামরুল হাসান মঞ্জুর স্মরণ সভার আয়োজন করেন সম্মিলিত আবৃত্তি জোট। জেলা শিল্পকলা একাডেমির যুগ্ম সম্পাদক ও সম্মিলিত আবৃত্তি জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান জাহাঙ্গীরের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষাবিদ ও কথা সাহিত্যিক ড. হরিশংকর জলদাস। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা (উপ-সচিব) সুমন বড়–য়া, কবি ও গল্পকার জিন্নাহ চৌধুরী ও বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক রাশেদ হাসান। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত আবৃত্তি জোটের সাধারণ সম্পাদক মশরুর হোসেন। সভায় অতিথিরা বলেন, চট্টগ্রামে যখন সংগঠনভিত্তিক আবৃত্তি চর্চার শুরু হয়, তখন সংগঠনগুলোর মোর্চাগত আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের যাত্রালগ্ন থেকে সংগঠনের বিভিন্ন ভূমিকা পালন করেন তিনি। একসময় তিনি তরুণদের নিয়ে ‘পাঠশালা’ নামে একটি আবৃত্তি স্কুল গড়ে তোলেন। তাঁর অগ্রজ আবৃত্তিশিল্পী তারিক সালাউদ্দিন মাহমুদের বস্তবাদী আবৃত্তির চিন্তা মঞ্জুর অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে। শুরুর দিকে তাঁর সহপাঠী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. আহাদুজ্জামান মো. আলী থেকে আবৃত্তির অনুপ্রেরণা পেয়েছেন। তিনি অনেক গল্প, উপন্যাস ও ছোট গল্প রচনা করেছেন। তাঁর রচিত উল্লেখ্যযোগ বই হলো ‘দলছুট কবিতার কঙ্কাল, পাঠশালা, বৃত্তের ওপারে ঝুমকো ফুল ও স্বরচিত। এরাই আমাদের আগামী প্রজন্মের পথের দিশারী হয়ে থাকবেন।

The Post Viewed By: 42 People

সম্পর্কিত পোস্ট