চট্টগ্রাম সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২০ অক্টোবর, ২০১৯ | ১:১৫ am

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজনীতির মাঠে ঐক্যফ্রন্ট এখন বিগত যৌবনা : ড. হাছান মাহমুদ

তথ্য মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন রাজনীতির মাঠে ঐক্যফ্রন্ট এখন বিগত যৌবনা। তাদের ডাকে কেউ সাড়া দিচ্ছেনা। রাজনীতিতে যেই যশ প্রতিপত্তি ছিল সেটা হারিয়ে গেছে। তাদের কথা মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হচ্ছে না। গতকাল শনিবার নগরীর জেএম সেন হল মাঠে বাংলাদেশ তাঁতী লীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী একথা বলেন।

নগর তাঁতী লীগের আহবায়ক নুরুল আমিন মানিকের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ফেনী সদর আসনের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী, নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তাঁতী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মো. শওকত আলী। প্রধান বক্তা ছিলেন তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক খগেন্দ্র চন্দ্র দেবনাথ, কার্যকরী সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্ত। বক্তব্য রাখেন মহানগর তাঁতী লীগের সদস্য সচিব রত্নাঙ্কুর দাশ টুনু, এহছানুল কবির লিটন প্রমূখ। মাঠে নামায় ঐক্যফ্রন্টকে স্বাগত জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ করা হচ্ছে, তারা মাঠে নেমেছে। গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার জন্য আমাদের শক্তিশালী বিরোধীদল প্রয়োজন। কিন্তু সভা-সমাবেশে গিয়ে তারা ইস্যু খুঁজে পাচ্ছেন না। সেজন্য খড়খুঁটো ধরে ইস্যু তৈরির চেষ্টা করছেন। তারা কতক্ষণ কোটা আন্দোলন, কখনো নিরাপদ সড়কের আন্দোলন, আবার কখনো আবরার হত্যাকা-কে ইসু করার চেষ্টা করেন। কিন্তু এসব চেষ্টার কোনটাই হালে পানি পাচ্ছে না। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আগামী সম্মেলনকে সামনে রেখে আমরা দলকে পরিষ্কার করার কাজে হাত দিয়েছি। ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো থেকেও আগাছা-পরগাছাদের দুর করতে হবে। কিছু কিছু আছে শুধু ফেইসবুকে রাজনীতি করেন, ছবি একটা তুলবে সেটা পোস্ট দিবে। এদের জন্যও আমরা অতীষ্ট। এদের ব্যাপারেও সতর্ক থাকতে হবে। দলে অনেক আগাছা-পরগাছা ঢুকেছে। অনেকে নানাভাবে পদ পেয়েছে। তাদের সমস্ত পর্যায় থেকে দুর করতে হবে।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আমি মঞ্চে দাঁড়িয়ে জোরে ভাষণ দিলাম। আমাকে খুশি করতে আপনারা আরও জোরে ভাই ভাই স্লোগান দিলেন। এ ধরনের রাজনীতি দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়া সম্ভব নয়। বঙ্গবন্ধুর কর্মী হতে হলে তার আদর্শ ও দর্শনকে ধারণ করতে হবে। তিনি বলেন, আজকে আমার পদ আছে। আমি দলে একটি পদ পেয়েছি। কালকে আমার পদ নাও থাকতে পারে। আমার পদ থাকবে না বলে, আমি কি আওয়ামী লীগের একজন কর্মী থাকবো না? এমন প্রশ্ন করেন উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে। সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, মাদক, ক্যাসিনো, দুর্নীতি, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন।

তাই ক্যাসিনো ব্যবসায়ী, মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী, মাদকাসক্ত কেউ যাতে আওয়ামী লীগ বা অঙ্গ সহযোগী সংগঠনে স্থান না পায় সেজন্য আমাদেরকে সদা সতর্ক অবস্থানে থাকতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতি, মাদক, সন্ত্রাসমুক্ত একটি বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই আন্দোলনকে জোরদার করার জন্য আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর নেত্রীর যে আস্থা বিশ্বাস রয়েছে তা নিয়ে ছিনিমিনি খেলা যাবেনা।

The Post Viewed By: 78 People

সম্পর্কিত পোস্ট