চট্টগ্রাম বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ | ৩:৩৪ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা, সাতকানিয়া

একই ঘটনায় ছাত্র-নারীসহ আরো আহত ৬

সাতকানিয়ায় যুবককে ডোবায় পুঁতে জীবিত হত্যার চেষ্টা

সাতকানিয়ায় দুইটি গ্রুপের চলমান বিরোধের জের ধরে এক যুবককে ডোবায় পুঁতে জীবিত হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ যুবক হলেন- মো. আকতার হোসেন (৩৪)। তিনি ধর্মপুর ইউনিয়নের পাঁজর পাড়ার মৃত কালা মিয়ার ছেলে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের পাঁজর পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রতিপক্ষে পুনরায় হামলায় আহত হয়েছে ছাত্র, নারীসহ আরো ৬ জন। গুরুতর আহত অবস্থায় আকতারকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করায় এলাকায় টহল পুলিশ জোরদার করা হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নে দুইটি গ্রুপের চলামন বিরোধকে কেন্দ্র ঘরে সম্প্রতি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় উভয় গ্রুপ বসত ঘর ও দোকানপাটে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ধর্মপুর পাঁজর পাড়ায় আকতার হোসেনকে একা পেয়ে প্রতিপক্ষের সাজ্জাদ, নজরুল, রমিজ, আরিফ, আবছার, জাহাঙ্গীর, জিয়াবুল, লিটন, এমরান ও রোকনসহ ১৫-২০ জনের দল তাকে পাঁজাকোল করে তুলে নিয়ে গিয়ে প্রথমে মারধর করে। পরে পার্শ্ববর্তী ডোবায় তাকে জীবিত অবস্থায় পুঁতে হত্যার চেষ্টা চালায়। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হত্যার চেষ্টাকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এরপর এলাকাবাসী তাকে ডোবা থেকে শরীরের অংশ বিশেষ পুঁতে থাকা অবস্থা থেকে উদ্ধার করে প্রথমে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

অন্যদিকে, ঘটনার কিছুক্ষণ পর হামলাকারীরা আরো সংঘটিত হয়ে ৩০-৩৫ জন লোক জড়ো হয়ে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে ফের ঘটনাস্থলের দিকে ছুটে যায়। এসময় বিক্ষুব্ধ জনতার ধাওয়া খেয়ে হামলাকারীরা পিছু হটে। তবে তারা চলে যাওয়ার সময় পাঁজর পাড়ার আবদুল জব্বার তালুকদারের বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় হামলাকারীদের ধারালো অস্ত্র ও লাঠির আঘাতে আরো ৬ জন আহত হয়। আহতরা হলেন- মৃত আবু তৈয়ব তালুকদারের পুত্র বান্দরবান সরকারি কলেজের ছাত্র আবদুল্লাহ তালুকদার মুন্না (২০), মৃত এমদাদ মিয়া তালুকদারের পুত্র মো. আইয়ুব তালুকদার (৪৫), তার ছোট ভাই আবু ছিদ্দিক তালুকদার (৩৬), বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসা পুরানগড় মনেয়াবাদের মুজিবুর রহমান সিকদারের স্ত্রী কহিনুর আকতার (৪৫), তার ছেলে রিয়াদুল ইসলাম রিমন (২৫) ও মেয়ে উম্মে সালমা সোনিয়া (১৯)। আহতদের মধ্যে আবদুল্লাহ তালুকদার মুন্নাকে প্রথমে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত অন্যান্যদেরকে স্থানীয় বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত রমিজ উদ্দিন জানান, আকতার আর আমি ভাই। এটা আমাদের পারিবারিক ব্যাপার। আকতার দলবল নিয়ে আমাদেরকে মারতে আসলে আমরা প্রতিহত করি। কাউকে আঘাত করিনি।

সাতকানিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, ধর্মপুর ইউনিয়নে সম্প্রতি বিরোধীয় দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত সোমবার অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে যাওয়া না যাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে ফের উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। গতকাল সকালে আকতার হোসেন নামের একজনের উপর বিরোধীয় গ্রুপের লোকজন হামলা চালায়। হামলাকারীরা পরে আরো কয়েকজনকে মারধর করে আহত করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

The Post Viewed By: 636 People

সম্পর্কিত পোস্ট