চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ | ৩:১৯ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা, টেকনাফ

টেকনাফে বিজিবি-বিজিপি বৈঠক বাংলাদেশে ইয়াবা পাচার ঠেকাতে সমঝোতা চুক্তি

সীমান্ত শহর টেকনাফে বাংলাদেশ সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিজিবি) এবং মিয়ানমার সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) মধ্যে রিজিয়ন পর্যায়ের সৌজন্য বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল (সোমবার) সকাল সাড়ে ১১টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত টেকনাফ সমুদ্র সৈকত সংলগ্ন সেন্ট্রাল রিসোর্টের সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর বিজিপি প্রতিনিধি দল রাতে টেকনাফ ত্যাগ করেন। বৈঠক শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে বিজিবির কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজেদুর রহমান বলেন, ‘উভয় দেশের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সু-স¤পর্ক বজায় রাখা, ইয়াবাসহ সব ধরনের মাদক প্রতিরোধ, নাফ নদীতে যৌথ টহল, স্থল মাইন, চোরাচালান ও অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধ ছাড়াও দু’দেশের সীমান্ত সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এসব বিষয়গুলো নিয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ইয়াবা পাচার ঠেকাতে তাদের সহযোগিতা চাওয়া হলে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। সেদেশে তারা ইয়াবা বিরোধী অভিযান অব্যাহত, সেদেশে বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইয়াবা পাচারে জড়িত, তাই মিয়ানমারের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে বৈঠকে জানানো হয়। তাছাড়া বৈঠকে সীমান্তে গুলি বর্ষণের বিষয়ে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতাসহ সন্ত্রাসী গ্রুপের কার্যক্রম বন্ধে এক সঙ্গে কাজ করবেন বলে সম্মত হয়েছেন। মিয়ানমার সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া থাকার পরও কিভাবে ইয়াবার চালান বাংলাদেশে পাচার হয়ে আসছে এমন প্রশ্নের জবাবে তাঁরা বলেছেন, ‘সেদেশে বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইয়াবা পাচারে জড়িত, ইয়াবার টাকা তারা অবৈধ অস্ত্রসহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করছে। তাছাড়া সীমান্তে গুলি বর্ষণ ও মাইন বিস্ফোরণ বিষয়ে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতাসহ সন্ত্রাসী গ্রুপের কার্যক্রম বন্ধে একসঙ্গে কাজ করবেন বলে সম্মত হয়েছেন। তবে তাদের সীমান্তে কোনো ধরনের মাইন স্থাপনের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন’।

বৈঠকে অংশ নিতে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী ১ নম্বর বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) এর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কেই কেন পিইন’র নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের প্রতিনিধিদল সকাল সাড়ে ৯টায় টেকনাফ-মিয়ানমার ট্রানজিট ঘাটে এসে পৌঁছান। সেখানে থেকে গাড়ি যোগে সেন্ট্রাল রির্সোট সম্মেলন কক্ষের বৈঠকে যোগ দেন।

বৈঠকে বাংলাদেশ বিজিবির পক্ষে কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজেদুর রহমানের নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের মধ্যে ছিলেন ডেপুটি রিজিয়ন কমান্ডার কর্নেল মুরাদ জামান, সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মনজুরুল হাসান খান, কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল মো. আসাদুজ্জামান, লে. কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমেদ, লে. কর্নেল সরকার মো. মুস্তাফিজুর রহমান, লে. কর্নেল মো. তাজুল ইসলাম, লে.কর্নেল জাহিদুর রহমান, টেকনাফ-২ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান ও অতিরিক্ত পরিচালক মেজর রুবায়াৎ কবীর।

The Post Viewed By: 70 People

সম্পর্কিত পোস্ট