চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:০৪ পূর্বাহ্ন

মফস্বল ডেস্ক

প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপন উপজেলায়

তিন মাসের বর্ষাবাস শেষে ১৩ অক্টোবর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পালিত হয়েছে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রবারণা পূর্ণিমা। এ উপলক্ষে ফানুস বাতি ওড়ানো ছাড়াও আলোচনা সভা আয়োজিত হয়।

রাঙামাটি: পূর্বকোণ প্রতিনিধি জানান, রাঙামাটি রাজবন বিহারসহ জেলার প্রায় প্রত্যেকটি বৌদ্ধ মন্দিরে রবিবার উদযাপিত হয়েছে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা। এ উপলক্ষে রবিবার জেলার বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে সকাল থেকে সন্ধ্যা পালিত হয়েছে ব্যাপক কর্মসূচি। শুভ প্রবারণা বৌদ্ধদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব। তথাগত ভগবান গৌতম বুদ্ধের অহিংসা পরম নীতির অনুসরণে শুভ আষাঢ়ী পূর্ণিমা তিথিতে বর্ষাবাস শুরু করে দীর্ঘ তিনমাস ত্যাগের মহিমায় অধিষ্ঠান শেষে আশ্বিনী পূর্ণিমা তিথিতে অনুষ্ঠিত হয় শুভ প্রবারণা উৎসব। শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান বৌদ্ধধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রাঙামাটি রাজবন বিহারে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত কর্মসূচির মধ্যে ছিল- ভোরে বুদ্ধ পতাকা উত্তোলন, ভিক্ষুসংঘের প্রাত:রাশ, সকালে বুদ্ধপূজা, পঞ্চশীল গ্রহণ, সংঘদান, অষ্টপরিষ্কার দান, বুদ্ধমূর্তি দান, হাজার বাতি দান, ধর্মীয় দেশনা। সন্ধ্যায় উড়ানো হয়েছে আকাশ প্রদীপ ফানুস। ধর্মীয় সঙ্গীত পরিবেশন দিয়েই উদ্বোধন করা হয়েছে, দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার। এতে ঢল নামে অগণিত পুণ্যার্থীর। অনুষ্ঠানে পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন, বালুখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিজয়গিরি চাকমা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মধু চন্দ্র চাকমা। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, রাজবন বিহার উপাসক-উপাসিকা পরিষদের সভাপতি গৌতম দেওয়ান, রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমাসহ অন্যরা। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, সাবেক পার্বত্য উপমন্ত্রী মণিস্বপন দেওয়ান, সাবেক যুগ্ম জেলা জজ দীপেন দেওয়ান, রাজবন বিহার উপাসক-উপাসিকা পরিষদের সহ-সভাপতি ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য নিরুপা দেওয়ান, রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা, সুবির কুমার চাকমাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। এ ছাড়া বিশেষ প্রার্থনা পাঠ করেন, রাজবন বিহার উপাসক-উপাসিকা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অমীয় খীসা। অনুষ্ঠানে ধর্ম দেশনা দেন, রাজবন বিহারের আবাসিক ভিক্ষুপ্রধান শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির ও রাজবন বিহারের আবাসিক ভিক্ষু শ্রীমৎ জ্ঞানপ্রিয় মহাস্থবির। পরে অডিও রেকর্ডে ধারণ করা পরিনির্বাণপ্রাপ্ত মহাসাধক শ্রাবক বুদ্ধ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের ধর্মীয় বাণী প্রচার করা হয়। এদিকে শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপনের পরপরই জেলার বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে শুরু হচ্ছে মাসজুড়ে কঠিন চীবর দানোৎসব।

বান্দরবান: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, মন্দিরে মন্দিরে বিশেষ প্রার্থনা আর রঙ্গিন ফানুস বাতি উড়ানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে মারমা সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে। বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে মারমারা এই উৎসব পালন করে থাকে। উৎসবের অন্যতম আকর্ষণই হলো মারমা তরুণ তরুণীদের গান গেয়ে দল বেধে রথ টানা। রঙ্গিন কাগজ, বাঁশ, বেত আর কাঠ দিয়ে তৈরি ময়ুরপঙ্খী রথ এক মন্দির থেকে অন্য মন্দিরে টেনে নিয়ে যায় মারমা তরুণ-তরুণীরা। রথের মধ্যে থাকা বৌদ্ধ মূর্তিকে এ সময় মোববাতি আগর বাতি দিয়ে পূজা দেয়। মারমাদের এই উৎসব দেখতে হাজারো পর্যটক ভিড় জমিয়েছে বান্দরবান শহরে। শহরের পুরাতন রাজ বাড়ি মাঠে রথে মোমবাতি প্রজ্জলন করে ও প্রার্থনার মাধ্যমে রথ টানা উৎসবের শুরু হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় রথটি উজানী পাড়া বৌদ্ধ মন্দির থেকে রাজগুরু মন্দিরে নিয়ে যাওয়া হয়।
খাগড়াছড়ি: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপনে ভোর থেকে বুদ্ধপুজা, পঞ্চশীল গ্রহণ, সংঘ দান, অষ্ট পরিষ্কার দান, হাজার বাতি দান ও ধর্মদেশনার আয়োজন করা হয়। সকালে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা প্রদীপ প্রজ্জ্বলন, বৌদ্ধমূর্তি ¯œান, ফুল-ফল দিয়ে প্রার্থনা করেন। এ সময় জগতের সকল প্রাণীর সুখ-সমৃদ্ধি কামনা করা হয়। অনুষ্ঠানে সাধ্যমত ভান্তেকে ছোয়াইং (খাদ্য) প্রদান করে ভক্তবৃন্দ।

রামু: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, রামুতে বিভিন্ন ধর্মীয় কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা চলছে। দু’দিনের কর্মসূচিতে রবিবার বৌদ্ধ বিহারগুলোতে ভোরে বুদ্ধপূজা, সকালে সংঘদান ও অষ্টপরিষ্কার দান, শীল গ্রহণ, বিকালে ধর্মসভা, সন্ধ্যায় হাজার প্রদীপ প্রজ্জলন, আকাশে ফানুস বাতি উত্তোলন, বৌদ্ধদের প্রয়াত উপ-সংঘরাজ, একুশে পদকে ভূষিত প-িত সত্যপ্রিয় মহাথের’র ঊর্ধ্বগতি কামনা এবং দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় সমবেত প্রার্থনার আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় রামু লাল চিং-মৈত্রী বিহারের সামনের মাঠ থেকে ওড়ানো হয় ফানুস। ফানুসের আলোয় আলোকিত হয়ে ওঠে সন্ধ্যার আকাশ। এছাড়া ওই বিহার প্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয় হাজারো প্রদীপ প্রজ্বলনের। জানা গেছে, শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে রামু কেন্দ্রীয় সীমা মহাবিহার, রাংকূট বনাশ্রম বৌদ্ধ বিহার, রামু মৈত্রী বিহার, লাল চিং, সাদা চিং, অপর্ণা চরণ বৌদ্ধ বিহার, চেরাংঘাটা উসাইসেন বৌদ্ধ বিহার (বড় ক্যাং), উত্তর মিঠাছড়ি প্রজ্ঞামিত্র বন বিহার,বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র, উত্তর ফতেখাঁরকুল বিবেকারাম বৌদ্ধ বিহার, উখিয়ারঘোনা জেতবন বৌদ্ধ বিহার, জাদিপাড়া আর্য্যবংশ বৌদ্ধ বিহার, পূর্ব রাজারকুল স্বদ্ধম্মোদয় বৌদ্ধ বিহার, চাকমারকুল অজান্তা বৌদ্ধ বিহার, দক্ষিণ মিঠাছড়ি বৌদ্ধ বিহারসহ সকল বৌদ্ধ বিহারে শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে দিনব্যাপী ধর্মীয় কর্মসূচি পালন করা হয়।

রাউজান বিনাজুরী শ্মশান বিহার: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বিহারের উপাসক-উপাসিকা পরিষদের উদ্যোগে প্রবীণ উপাসক-উপাসিকাদের সম্মাননা প্রদান, ফানুস উত্তোলন ও আলোচনা সভা রবিবার সন্ধ্যায় বিহারে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান কাজী আবদুল ওহাব। বিহারের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বুদ্ধরত্ন থের’র সভাপতিত্বে সৌম্য চৌধুরীর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কফিল উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ, বিনাজুরী ইউপি চেয়ারম্যান সুকুমার বড়–য়া। বক্তব্য দেন অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট রনজিত বড়–য়া, শিক্ষক দিলীপ বড়ুয়া, অশোক কুমার চৌধুরী, সেলিম উদ্দিন, ছাত্রনেতা শাখাওয়াত হোসেন চৌধুরী পিবলু, মো. আসিফ, নাছির উদ্দিন। পরে অতিথিবৃন্দ মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও ফানুস উত্তোলন করে উৎসবের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বিহারের জন্য দু’লাখ টাকা অনুদান ঘোষণা করেন।

রাউজান ডাবুয়া সুরংগা কুঞ্জবন বৌদ্ধ বিহার: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বিহার পরিচালনা পরিষদ, সুরংগা কুঞ্জবন বৌদ্ধ একতা সংঘ ও সুরংগা বৌদ্ধ গ্রামবাসীর উদ্যোগে আলোচনা সভা, ফানুস উত্তোলনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান রবিবার রাতে বিহারের মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ। উদ্বোধক ছিলেন ডাবুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন চৌধুরী সাবু। দীপংকর থের’র সভাপতিত্বে ও যুবলীগ নেতা আসাদ হোসেনের সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন নাজিম উদ্দিন মেম্বার, আজাদ হোসেন মেম্বার, সেলিম উদ্দিন, ডা. অমর বড়–য়া, শাখাওয়াত হোসেন চৌধুরী পিবলু, মো. আসিফ, মো. এরশাদ, সাজ্জাদ মাহামুদ, নাছির উদ্দিন, আরমান সিকদার, লোকমান, জাহেদ মুন্না, মনছুর আলম, লিটন দেবনাথ, রাজু বড়–য়া, ডালিম বড়–য়া, দিলীপ বড়–য়া, টিপন বড়–য়া, তারেক, জাহেদ, মুন্না প্রমুখ।

The Post Viewed By: 71 People

সম্পর্কিত পোস্ট