চট্টগ্রাম শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ | ৩:১৩ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা , বান্দরবান

প্রধানমন্ত্রীর শোক

মন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপির মা পরলোকে

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপির এর মাতা ড মা চ য়ই পরলোক গমন করেছেন।

মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। গত শনিবার রাত পৌনে বারোটার দিকে শহরের ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন মন্ত্রী বীর বাহাদুরের নিজ বাসভবনে তিনি পরলোকগমন করেন। তিনি দীর্ঘদিন থেকে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। এদিকে মন্ত্রীর মা তাঁর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা তার বাসভবনে ভিড় জমায়। এছাড়া বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ জন সকালে ফুল দিয়ে মরদেহের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। পুরো বান্দরবানের সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে আসে। বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মরদেহ দেখতে যান। এদিকে মন্ত্রীর মাতা ড মা চ য়ই মৃত্যুতে সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এছাড়া সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে ড মা চ য়ই এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং-এর মাতা মা চ য়ই -এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী এমপি।

এছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ পৃথক পৃথক বিবৃতিতে প্রকাশ করেছেন। এদিকে সকালে বান্দরবানের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খন্দকার শাহিদুল এমরান, জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধিরা ফুল দিয়ে মরদেহের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে আগামী ১৫ অক্টোবর মঙ্গলবার বান্দরবানের কেন্দ্রীয় শ্মশানে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

পাহাড়ের রত্নগর্ভা ড মা চ য়ই : বান্দরবানের ব্যবসায়ী লালমোহন বাহাদুরের সহধর্মিনী ছিলেন ড মা চ য়ই। ১৯৩৪ সালে তার জন্ম। এই দম্পতির কোল জুড়ে আসে বীর বাহাদুর উশৈসিং। পরে জন্ম হয় বুদ্ধি বাহাদুরের। জন্মের পরেই দু সন্তান খেলাধুলায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠে বান্দরবানে। বিশেষ করে ফুটবলের দক্ষতা ছিল দুই ভাইয়ের। ফুটবল খেলোয়াড় থেকে রেফারি বীর বাহাদুর।

তার হাত ধরে ছোট ভাই বুদ্ধি বাহাদুরও ফুটবল খেলায় দক্ষতা অর্জন করে। ফুটবল খেলোয়ার থেকে ১৯৯১ সালে বান্দরবানের ৩০০নং আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে আর বীর বাহাদুরকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বীর বাহাদুর। এছাড়া আওয়ামী লীগের দু দুবার কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। এছাড়া বেসরকারি বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের চেয়ারম্যান ছিলেন। বর্তমানে বাংলাদেশে রেফারি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি তিনি। ষষ্ঠ বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান। পাহাড়ের জনপ্রিয় ও ক্লিন ইমেজের মানুষ হিসেবে পরিচিত বীর বাহাদুর উশৈসিং। এমন সন্তানের জন্ম দিয়ে পাহাড়ের রত্নগর্ভা হিসেবে পরিচিত ড মা চ য়ই।

The Post Viewed By: 230 People

সম্পর্কিত পোস্ট