চট্টগ্রাম সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৯ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:৫৪ পূর্বাহ্ন

টেকনাফ

পাহাড়ি আস্তানায় সেকেন্ড-ইন-কমান্ডের হাতে জবাইয়ের গুঞ্জন

টেকনাফে রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার কালা সেলিম খুন!

টেকনাফে রোহিঙ্গা ডাকাত দলের পাহাড়ি আস্তানায় কুখ্যাত ডাকাত সর্দার কালা সেলিমকে তার সেকেন্ড-ইন-কমান্ড ডাকাত জাকির গুলি ও জবাই করে খুন করেছে বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প কেন্দ্রীক পাহাড়ে ইয়াবা চোরাচালান, রোহিঙ্গা উগ্রপন্থী সংগঠনের নিয়ন্ত্রণ ও বিদেশি টাকার ভাগ নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে পুলিশের সুস্পষ্ট বক্তব্য পাওয়া যায়নি। হত্যাকা-ের এ ঘটনায় শরণার্থী ক্যাম্পসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার জনসাধারণের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।
জানা যায়, ৭ অক্টোবর রাতে রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার কালা সেলিম টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া শালবাগান রোহিঙ্গা শিবির সংলগ্ন পাহাড়ি আস্তানায় সশস্ত্র পাহারায় ঘুমিয়ে পড়ে। এসময় পূর্বে থেকে প্রস্ততি নিয়ে থাকা তার ডাকাত দলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড (রোহিঙ্গা ডাকাত) জাকির তাকে জবাই করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। গভীর রাতে খুন হওয়া ডাকাত কালা সেলিমকে পাহাড়ে পুঁতে ফেলার খবর ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ রোহিঙ্গা এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে অজানা আতংক ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অবগত হলে টেকনাফ মডেল থানা পুলিশ ও গ্রামবাসী পাহাড়ে নিহত ডাকাত সর্দার কালা সেলিমের মৃতদেহ উদ্ধারে অভিযান চালায়। এদিকে রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার কালা সেলিমকে হত্যা পরবর্তী মাটিতে পুঁতে দেয়া বা জঙ্গলে ফেলে দেয়া হয়েছে বলে লোকমুখে ছড়িয়ে পড়লেও মৃতদেহ উদ্ধার না হওয়ায় হত্যাকা-ের বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিশ্চিত করে কিছুই বলতে পারছে না।
হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশের দফাদার নুরুল আমিন জানান, ‘খবর পেয়ে আমরা পুলিশের সাথে গিয়েছিলাম। কোন ধরনের মৃত দেহের সন্ধান পাওয়া যায়নি’।
স্থানীয় এবং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ইয়াবা গডফাদার নুর মোহাম্মদ ওরফে নুর পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার পর বড় বড় ইয়াবার চালান ও উগ্রপন্থী সংগঠন নিয়ন্ত্রণ এবং রোহিঙ্গা শিবির কেন্দ্রীক বিদেশি টাকার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে সৃষ্ট মতবিরোধের জের ধরে এই নৃশংস ঘটনা ঘটেছে। তাছাড়া নিহত ডাকাত সর্দার কালা সেলিম এবং খুনি ডাকাত জাকির সম্প্রতি খুন হওয়া হ্নীলা ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক হত্যা মামলার পলাতক আসামি।
এ ব্যাপারে গতকাল (৮ অক্টোবর) রাতে যোগাযোগ করা হলে টেকনাফ মডেল থানার ওসি অপারেশন বলেন, ‘আমরাও এ ধরনের একটি ঘটনার খবর পেয়েছি। তবে এখনও লাশের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি’।

The Post Viewed By: 60 People

সম্পর্কিত পোস্ট