চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৯ অক্টোবর, ২০১৯ | ১২:৫২ পূর্বাহ্ন

টেকনাফ

টেকনাফ স্থলবন্দর

শত শত টন পেঁয়াজ আমদানি তেমন প্রভাব নেই বাজারে

টেকনাফ-মংডু সীমান্ত বাণিজ্যের আওতায় টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে পার্শ্ববর্তীদেশ মিয়ানমারের আকিয়াব (সিটিওয়ে) থেকে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি হলেও টেকনাফ সীমাবর্তী পৌর শহরসহ হাটবাজারসমূহে পেঁয়াজের দাম কমেনি। প্রতিদিন শত শত মেট্রিক টন পেঁয়াজ টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার থেকে শুল্কমুক্তভাবে আমদানি করা হলেও বাজারে তেমন কোন প্রভাব পড়েনি। এমনকি জেলা প্রশাসকের নির্দেশনাও মানা হচ্ছে না।
গত ৭ অক্টোবর সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ স্থলবন্দরে পৌঁছার পর যাবতীয় খরচ বাদ দিয়ে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম পড়ে ৪৩ টাকা। টেকনাফের কেরুনতলী স্থলবন্দর থেকে টেকনাফ পৌর শহর বাজারের দূরত্ব মাত্র ৬ কিলোমিটার হলেও স্থানীয় এ পেঁয়াজ টেকনাফের বাজারসমূহের প্রায় দোকানে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৭০ টাকা। টেকনাফ পৌর শহরের বাজার ও বিভিন্ন দোকান পরিদর্শন এ তথ্য জানা যায়। স্থানীয় বাজারের অসাধু ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট এবং বাজার মনিটরিং ও ভ্রাম্যমাণ আদালত না থাকার সুযোগে ভোক্তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। ভোক্তাদের অভিযোগ, টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে প্রচুর পরিমাণ আমদানি হলেও স্থানীয় বাজারসমূহে কোন প্রভাব না পড়ায় ব্যবসায়ীরা হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।
টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা আবছার উদ্দীন বলেন, যে হারে পেঁয়াজ আসছে, তাতে সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির কোন কারণ নেই।
টেকনাফ স্থলবন্দরের শীর্ষ আমদানীকারক মো. হাশেম বলেন, ‘ভোক্তাদের চাহিদা মেটাতে মিয়ানমার থেকে প্রচুর পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। মিয়ানমারেও পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। পেঁয়াজ বুকিং দিতে ওপারে যোগাযোগ করা হলে পূর্বের ক্রয় মূল্যের চেয়ে প্রতি টন পেঁয়াজে ৩০০ ডলার করে বেশি মূল্য দাবি করছে’।
টেকনাফ ইউনাইটেড ল্যান্ড পোর্টের জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) জসিম উদ্দিন বলেন, ‘প্রতিদিন গড়ে পেঁয়াজ বোঝায় ৬০টি ট্রাক ডেলিভারি করা হচ্ছে। পেঁয়াজের কোন ট্যাক্স নেই’।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, ‘বাজার দাম সহনশীল রাখতে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি নির্বিঘœ রাখতে হবে। পাশাপাশি স্থানীয়দেরও সুলভ মূল্যে পেঁয়াজ সরবারহ করতে হবে। ইতিমধ্যে স্থানীয় প্রশাসন কক্সবাজারে ৬৫-৭০ টাকায় কেজি পেঁয়াজের খুচরা বিক্রয় মূল্যে নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে মিয়ানমারের আমদানিকৃত পেয়াজ স্থানীয় বাজারে ৫০ টাকার ঊর্ধ্বে বিক্রি করা যাবে না’।

The Post Viewed By: 86 People

সম্পর্কিত পোস্ট