চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১:৩৬ এএম

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁশখালী

‘শঙ্খ নদীর উত্তোলিত বালু বেড়িবাঁধে ব্যবহার হবে’

শঙ্খ নদী কিনার ভাঙন রক্ষায় চট্টগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের এক আদেশে শঙ্খ নদী থেকে বালু উত্তোলন কার্যক্রম শুরু করেছে নিয়োজিত ঠিকাদার। গত বৃহস্পতিবার রায়ছটা গ্রামে বেড়িবাঁধের ভাঙন এলাকা চৌধুরীঘাটে গিয়ে এ দৃশ্য দেখা গেছে।
অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বালু বিক্রি নিয়ে পূর্বকোণসহ বিভিন্ন সংবাদপত্রে একাধিকবার সংবাদ প্রকাশিত হলেও কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নজরে না আনাতে বালু ব্যবসায়ীরা নদীতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নির্বিঘেœ কয়েক বছর ধরে বালু ব্যবসা চালিয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল-বশিরুল ইসলাম চৌধুরীঘাটস্থ উত্তোলন করা বালুর মহাল স্থান পরিদর্শন করেছেন। দীর্ঘদিন থেকে বরফ মিলের কাছে রাখা বালু ব্যবসায়ীরা ট্রাক যোগে বিক্রি করেছে। বর্তমানেও একই স্থানে উত্তোলন করা বালু রাখায় মানুষের মনে সন্দেহের দানা বেঁধেছে। এ বালু নদী ভাঙনের কাজে ব্যবহার না হয়ে রাস্তাঘাট ভবনের মালিকদেরকে প্রতি ট্রাক দুই হাজার টাকা মূল্যে বিক্রি হবে কিনা, এমন প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে এলাকাবাসীর কাছে।

জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডে খানখানাবাদ পোল্ডার নং ৬৪/১-এ ও সাধনপুর পোল্ডার নং ৬৪/১-বি এলাকায় প্রতিদিন শঙ্খ নদীর ভাঙন চলছে।

জিও ব্যাগ ভর্তি বালু ফেলে ভাঙন রক্ষার জন্য সরকারিভাবে জরুরি ভিত্তিতে কাজে নিয়োজিত টিকাদারও নিয়োগ করা হয়েছে। তারা নির্দিষ্ট স্থান হতে বালু উত্তোলন করছে কিনা তদন্তের প্রয়োজন রয়েছে।
বাঁশখালী সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল-বশিরুল ইসলাম বলেন, শঙ্খ নদীর কিনারে রায়ছটায় বালু উত্তোলন করা স্থান পরিদর্শন করা হয়েছে। উত্তোলন কৃত বালু ভাঙনরোধের জিও ব্যাগ ভরার কাজে ব্যবহার করা হবে বলেও জানিয়েছেন নিয়োজিত ঠিকাদার। এ উত্তোলন করা বালু অন্য কোন কাজে ব্যবহার করা যাবে না।

The Post Viewed By: 80 People

সম্পর্কিত পোস্ট