চট্টগ্রাম বুধবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১:০৬ এএম

মো. দেলোয়ার হোসেন, চন্দনাইশ

কয়েক গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ কমছে না

বাঁশের সাঁকোই ভরসা সড়ক পারাপারে

চন্দনাইশ

উপজেলার চামুদরিয়া-বড়–য়াপাড়া সড়কে চলাচলকারী সাধারণ মানুষ এখনো সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করে। দুর্ভোগের যেন শেষ নেই এ এলাকার সাধারণ মানুষ ও শিক্ষার্থীদের।

চন্দনাইশের অনেক এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও বরকল চামুদরিয়া এলাকার মানুষ চলাচল করছে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকো দিয়ে। সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার বরকল চামুদরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কানাইমাদারী বড়–য়াপাড়া পর্যন্ত ৩ কি.মি. সড়কের মধ্যে প্রায় ১ কি.মি. সড়কে ব্রিক সলিন উঠে গিয়ে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে চামুদরিয়া স্কুল থেকে বড়ুয়াপাড়ার শুরুতে চামুদরিয়া খাল সংলগ্ন এলাকায় সড়কটি ভেঙে পড়েছে। স্থানীয়দের মতে, বিগত ১ বছর পূর্বে সড়কের একটি অংশ ভেঙে খালের সাথে বিলীন হয়ে যায়। এলাকার মানুষ ভেঙে যাওয়া অংশে ১ বছর ধরে বাঁশের সাঁকো দিয়ে চলাচল করলেও দেখার যেন কেউ নেই। অথচ এ সড়ক দিয়ে কানাইমাদারী বড়ুয়াপাড়া, ইউছুফ মোল্লার বাড়ি, দপেরবাড়ির সহস্রাধিক মানুষ, চামুদরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কয়েকশ শিক্ষার্থী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে চলাচল করে চলেছে। বিশেষ করে মহিলা, শিশু ও রোগীদের সাঁকো দিয়ে যাতায়াতে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। স্থানীয়দের মতে, অনেক সময় সাঁকো থেকে বয়স্ক এবং স্কুলপড়–য়া ছেলে-মেয়েরা পড়ে গিয়ে আহত হয়েছে। এ ব্যাপারে তারা যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে সড়কটিতে ব্রিজসহ পিচঢালা পথ তৈরির দাবি জানান।

এ ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বিগত ৮ বছরে দেড় লক্ষ টাকা করে ৪ বার বরাদ্দ দিয়ে সড়কটি সংস্কার করেছেন। কিন্তু পার্শ্বে খাল থাকায় মাটি সরে গিয়ে বার বার সড়কটি ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। খালের পাড়ে রিটেইনিং ওয়াল দিয়ে সড়কটি নির্মাণ না করলে এ সমস্যা থেকেই যাবে। এ ব্যাপারে তিনি সড়ক বিভাগের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

The Post Viewed By: 71 People

সম্পর্কিত পোস্ট