চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

সর্বশেষ:

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

মোহাম্মদ আলী

আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে বাণিজ্য!

 

দক্ষিণ জেলা বিএনপি
হ সিনিয়র এক নেতাকে
দূষছেন নেতাকর্মীরা
হ আহ্বায়ক-সদস্য সচিব নিয়ে
কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের ব্যাপারে
ভিন্নমত ত্যাগী নেতাদের

দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠনে ব্যাপক বাণিজ্য চলছে। বিএনপির সিনিয়র এক নেতা এ বাণিজ্যের সাথে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ত্যাগী নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে দলের কয়েকজন নেতা অভিযোগ করে বলেন, বিভিন্ন পদে স্থান দিতে মোটা অংকের টাকা আদায় করেছেন দলের ওই সিনিয়র নেতা। তাই আহ্বায়ক কমিটিতে তাদের স্থান দিতে ২১ কিংবা ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির কলেবর বাড়ানোর চেষ্টা করছেন বলে জানা গেছে।

দলের এক নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বিএনপির আন্দোলন-সংগ্রামে সক্রিয় থাকার কারণে অসংখ্য মামলার আসামি হয়েছি। জেল খেটেছি। পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়েছি। এখন দলের কমিটিতে স্থান পেতে ‘উপরি’ দিতে হবে তা কোনভাবে মেনে নিতে পারছি না।
এ প্রসঙ্গে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, আমরা সবাই চাই ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের দিয়ে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হোক। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ব্যত্যয় ঘটলে ধরে নিব কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে ‘বাণিজ্য’ হয়েছে।’

শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, ‘দুঃসময়ের ত্যাগী নেতাদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হলে তারা দলের পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করবেন। ফেসবুক ভিত্তিক নেতাদের দিয়ে কমিটি হলে দলের সমস্যা হবে’।
এদিকে দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠনে কেন্দ্র থেকে একটি সিদ্ধান্তের কারণে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মধ্যে এ ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। দলীয় কর্মকা-ে অপেক্ষাকৃত কম সক্রিয় নেতাকে সদস্য সচিব করে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এ কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।
নতুন আহ্বায়ক কমিটি প্রসঙ্গে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘কমিটিতে যারা আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব হবেন তারা পরবর্তী কমিটিতে সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদক হতে পারবেন না। আহ্বায়ক কমিটি পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে সম্মেলন করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা ও পৌরসভা বিএনপির কমিটি গঠন করবে। এরপর সম্মেলনে কমিটি প্রত্যক্ষ ভোটে জেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠন করবে’।

এদিকে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীমের এ ধরনের বক্তব্যে একমত হতে পারছেন না বিএনপির কয়েকজন ত্যাগী নেতা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘দক্ষিণ জেলা বিএনপির নতুন কমিটিতে আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব যারা হবেন তারা পরবর্তী কমিটিতে সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদক হতে পারবেন না- দলের এ ধরনের সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী হবে। এ কারণে সক্রিয় নেতাদের বাদ দিয়ে দলীয় কর্মকা-ে অপেক্ষাকৃত কম সক্রিয় নেতাদের সভাপতি ও সদস্য সচিব করা হচ্ছে। এ আহ্বায়ক কমিটি তিন মাসের মধ্যে কোন ভাবেই দক্ষিণ জেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠন করতে পারবে না। তাদের আরো বেশি সময় কমিটিতে থাকতে হতে পারে। এ ক্ষেত্রে দলের সকল কার্যক্রম তাদের পরিচালনা করতে হবে। এতে দলের ত্যাগী নেতাদের সাথে তাদের নতুন করে বিরোধ দেখা দেওয়ার শঙ্কাও তৈরি হতে পারে’।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নাটকীয় কিছু না হলে দলের বর্তমান সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী দক্ষিণ জেলা বিএনপির কমিটিতে আহ্বায়ক হতে পারেন তা অনেকটা নিশ্চিত। সদস্য সচিবের দৌড়ে আছেন বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি এবং নগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত মোস্তাক আহমেদ খান ও জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলী আব্বাস। কিন্তু এ দুইজনকে নিয়ে ত্যাগী নেতাদের মধ্যে ইতোমধ্যে ভিন্ন মত দেখা দিয়েছে। তাদের অভিমত, মোস্তাক আহমেদ খান বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি হলেও দলের জেলা সদস্য সচিব হওয়ার মতো সক্রিয় হয়ে ওঠেননি। অতীতে সরকারবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রামে তাঁর তেমন কোন সক্রিয় ভূমিকা দেখা যায়নি। তার চেয়ে আরো বেশি সক্রিয় নেতাকে সদস্য সচিব করা হলে দলের মধ্যে ভিন্নমত সৃষ্টি হতো না।
এ প্রসঙ্গে ২০১৮ সালে এগারতম সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও আসনে বিএনপির প্রার্থী নগর বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘মোস্তাক আহমেদ খান বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি। এর আগে তিনি উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং নগর যুবদলের সাথে সক্রিয় ছিলেন। সুতরাং তাকে দলে যেকোন দায়িত্ব দিলে তিনি ভালভাবে পালন করতে পারবেন’।

বিএনপির সূত্র জানায়, জাফরুল ইসলাম চৌধুরী আগামীতেও দলের দক্ষিণ জেলার সভাপতি হতে আগ্রহী। কমিটিতে তাঁকে আহ্বায়ক করা হলে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী কমিটিতে তিনি কিভাবে সভাপতি হবেন। দলের মধ্যে সক্রিয় থাকার কারণে তাঁকে আহ্বায়ক করা হলে একই যুক্তিতে অন্য ত্যাগী নেতাকেও সদস্য সচিব করা যেতে পারে।
এদিকে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা হতে পারে বলে জানা গেছে। দক্ষিণ জেলার নেতাকর্মীদের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের এ নিয়ে দফায় দফায় বৈঠকও হয়েছে।
দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা প্রসঙ্গে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম বলেন, ‘আগামী কয়েক দিনের মধ্যে দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির ঘোষণা হতে পারে। এ নিয়ে প্রস্তুতিও অনেকটা চূড়ান্ত’।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 715 People

সম্পর্কিত পোস্ট