চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ২:২২ পূর্বাহ্ণ

শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের ৬ষ্ঠ দিনে বক্তারা

কঠিন বিপদেও ধৈর্যধারণ করাই শাহাদাতে কারবালার দর্শন, শিক্ষা

আহলে বায়তে রাসূল (দ.) বিদ্বেষী ইয়াজিদি প্রেতাত্মাদের ঘৃণা ও প্রত্যাখ্যান করা, কঠিন বিপদে দুঃসময়ে ধৈর্যের পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন এবং চরম বৈরি পরিস্থিতিতেও প্রাত্যহিক ফরজ ইবাদত নামাজকে পরিত্যাগ করা যাবে না এটাই শাহাদাতে কারবালার অন্তর্নিহিত দর্শন ও হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) শিক্ষা। কঠিন বিপদে চরম প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও কারবালা ময়দানে জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায় করেছিলেন হযরত ইমাম হোসাইন ও আহলে বায়তে রাসূল (দ.)। এতেই নামাজের ফজিলত ও অপরিহার্যতা অনুধাবন করা যায়। জমিয়তুল ফালাহ মসজিদে দশদিনব্যাপী ৩৪ তম আন্তর্জাতিক শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের ৬ষ্ঠ দিনে গতকাল (শুক্রবার) ইসলামী চিন্তাবিদ ও আলোচকরা একথা বলেন। গতকালের মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি আলহাজ মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম। মুখ্য আলোচক ছিলেন কলকাতা টিপু সুলতান শাহী জামে মসজিদের খতিব আন্তর্জাতিক বক্তা আল্লামা মুহাম্মদ সাখাওয়াত হোসাইন বরকাতি। তিনি বলেন, ৬১ হিজরিতে কারবালা ময়দানে আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) নিষ্পাপ পূত পবিত্র সদস্যদের ওপর ইয়াজিদি বর্বর গোষ্ঠী যে জঘন্য বর্বরতা ও নির্মমতা চালিয়েছে তা জেনে আমরা হাহাকার ও আর্তনাদ করি। যুগে যুগে ইসলাম বিকৃতকারী ইয়াজিদি গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে। আর শান্তি ও ইনসাফের পতাকা হাতে হোসাইনি আদর্শে উজ্জীবিত মুসলমানরা এই বাতিল অপশক্তিকে সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিহত করবে-এটাই শাহাদাতে কারবালার শিক্ষা।

মাহফিলে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন শাহাদাতে কারবালা মাহফিল পরিচালনা পর্ষদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও চেয়ারম্যান, পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান আলহাজ সূফী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, কারবালা ময়দানে হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) ও আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) তাঁবুতে নামাজ কালাম ছিল। অন্যদিকে ইয়াজিদি নামধারী মুসলমানদের তাঁবুতেও নামাজ কালাম ছিল। কিন্তু নামাজ আদায় সত্ত্বেও এই ইয়াজিদিরা ঈমানহারা ও পথভ্রষ্ট। ওহাবিবাদ ও সালাফিদের স্বরূপ উন্মোচন বিষয়ে আলোচনা করেন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আল্লামা মুহাম্মদ ওসমান গণি সালেহী। বক্তব্য রাখেন আন্দরকিল্লাহ শাহী জামে মসজিদের পেশ ইমাম আল্লামা নূর মুহাম্মদ সিদ্দিকী, মাওলানা আবুল কাশেম তাহেরী।
এতে আল্লামা ওসমান গণি সালেহী বলেন, সারা বিশ্বে আজ খারেজি, লা মাযহাবি ওহাবি ও সালাফিরা ইসলামের নামে জঘন্য বর্বরতা চালাচ্ছে। ওরা জঙ্গিবাদ ও সহিংসতায় জড়িয়ে সারা বিশ্বে অশান্তির রাজত্ব কায়েম করেছে। ইসলাম বিকৃতকারী এই নামধারী পথভ্রষ্টদের বিরুদ্ধে সত্যিকার মুসলমানদেরকে প্রতিরোধের বলয় গড়ে তুলতে হবে।
আল্লামা নূর মোহাম্মদ সিদ্দিকি বলেন, মহররম ও রবিউল আউয়াল মাস এলে সুন্নিরা ঈমানি চেতনায় জেগে ওঠে। আর কারা সুন্নি ও আর কারা অসুন্নি এই মাসে পরখ করা যায়। জমিয়তুল ফালহর এই শাহাদাতে কারবালা মাহফিল খতিবে বাঙাল অধ্যক্ষ আল্লামা জালাল উদ্দিন আলকাদেরীর (রহ.) অসীম ত্যাগের ফল।

আলহাজ মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক ও ড. মুহাম্মদ জাফর উল্লাহর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে অতিথি ছিলেন আঞ্জুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ মোহাম্মদ মহসিন ও সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, পিএইচপি ফ্যামিলির ডাইরেক্টর আলহাজ মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, গাউসিয়া কমিটির চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মোহাম্মদ, ছোবহানিয়া আলিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ আল্লামা হারুনুর রশিদ, শাহাসূফি সৈয়দ সাজ্জাদ হোসাইন সোহেল মাইজভা-ারী, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের পরিচালক ইউসুফ চৌধুরী, ইয়াকুব আলী ট্রাস্টের মুহাম্মদ জহিরুল আলম, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার প্রভাষক আল্লামা সৈয়দ ইউনুছ রজভি, চারপীর আউলিয়া সিনিয়র মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল হান্নান।
নারায়ে তাকবির, নারায়ে রেসালাত ও গাউসিয়াতের স্লোগানে স্লোগানে হাজারো জনতার অংশগ্রণে মুখরিত হয়ে ওঠে জমিয়তুল ফালাহর বিশাল চত্বর।

শেষে বিশ্বের নিপীড়িত মানবতার পরিত্রাণ, দেশ ও বিশ্ববাসীর শান্তি সমৃদ্ধি কামনায় মুনাজাত করা হয়।
আজকের মাহফিল : শনিবার ৭ম দিবসে সভাপতিত্ব করবেন মাওলানা শাহ আব্দুল করিম কুতুবি। বিদেশি আলোচক থাকবেন লেবানন থেকে আগত প্রফেসর আল্লামা জামাল মুহাম্মদ শাক্কার আল হোসাইনী আল হাশেমী ও মালয়েশিয়ার ওয়ার্ল্ড সূফি অর্গানাইজেশনের সেক্রেটারি জেনারেল আল্লামা শায়খ আবদ করিম বিন সাইদ হেদায়েত।
জমিয়তুল ফালাহ মসজিদের নিচতলায় প্রতিদিনের মাহফিলে মহিলাদের জন্য পর্দা সহকারে বক্তব্য শোনার ব্যবস্থা রয়েছে। মাহফিল সরাসরি সম্প্রচার হচ্ছেঃ ংঁভরঃাড়হষরহব, িি.িংযধযধফধঃ-ব-শধৎনধষধ.পড়স –বিজ্ঞপ্তি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 235 People

সম্পর্কিত পোস্ট