চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ২:২১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

৯ দফা দাবি পরিবহন মালিকদের

বিভাগীয় গণ ও পণ্য
পরিবহন মালিক ঐক্য
পরিষদের সংবাদ সম্মেলন

হয়রানি বন্ধসহ ৯ দফা দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগীয় গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদ। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এসব দাবি মানা না হলে বৃহত্তর চট্টগ্রামে অনির্দিষ্টকালের জন্য গণ ও পণ্য পরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়া হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে। গতকাল বুধবার দুপুরে নগরীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে এ

আল্টিমেটাম প্রদান করেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক গোলাম রসূল বাবুল। এছাড়া সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন ঐক্য পরিষদের আহবায়ক ও চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে গোলাম রসুল বাবুল বলেন, ৯ দফা দাবিগুলো হচ্ছে, গণ ও পণ্য পরিবহনের কাগজপত্র হালনাগাদ করার জন্য জরিমানা মওকুফ করা এবং এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত কাগজপত্র বাছাইয়ের নামে হয়রানি বন্ধ করা। বিআরটিএ ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ভোক্তা অধিকার আইন প্রয়োগ করে গণ ও পণ্য পরিবহনে কোন জরিমানা আদায় করা যাবে না এবং হাইওয়ে ও থানা পুলিশ কর্তৃক গাড়ি জব্দ ও রিকুইজিশন বন্ধ করতে হবে। মেট্রো এলাকায় গাড়ির ইকোনোমিক লাইফের অজুহাতে ফিটনেস ও পারমিট নবায়ন বন্ধ রাখা যাবে না। ট্রাফিক পুলিশ কর্তৃক যান্ত্রিক ত্রুটিযুক্ত গাড়ি ছাড়া অন্যকোন অজুহাত দেখিয়ে গণ ও পণ্য পরিবহন টু বা ড্রাম্পিং করা যাবে না। ড্রাইভার কর্তৃক চালিত গাড়ির রেকার ভাড়া আদায় করা যাবে না। সহজ শর্তে চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করতে হবে। কাগজপত্র হালনাগাদের ক্ষেত্রে বিআরটিএ’র কার্যক্রমে ভোগান্তি বন্ধ করতে হবে। সড়ক-মহাসড়কে অননুমোদিত যান চলাচল বন্ধ করা। সড়ক থেকে অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করা। চট্টগ্রাম-ঢাকা মহাসড়কে স্থাপিত ওজন স্কেল সেনাবাহিনী দ্বারা পরিচালনা করা এবং যত্রতত্র চেকিংয়ের নামে হয়রানির বন্ধ করা।

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু বলেন, নানামুখী হয়রানিতে পরিবহন মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত। চারিদিকে কোন আইনের তোয়াক্কা নেই। বিআরটিএতে কাগজপত্র হালনাগাদ করতে গেলে হয়রানি, সড়কে বিআরটিএ’র ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের হয়রানিতে পরিবহন মালিকরা অতিষ্ঠ। এখন কোন উপায় না পেয়ে আমাদের রাজপথে নামতে হচ্ছে। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আমাদের এসব দাবি মানা না হলে বৃহত্তর চট্টগ্রামের পরিবহন মালিকরা তাদের স্ব স্ব গাড়ি বন্ধ রাখতে বাধ্য হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আন্তঃজিলা বাস মালিক সমিটির সাধারণ সম্পাদক কফিল উদ্দিন আহমেদ, বন্দর ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জহুর আহমদ, সিটি বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক মিয়া, উত্তর চট্টগ্রাম ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এস্তাফিজোর রহমান, কুমিল্লা জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুছ সালাম, ফেনী জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম নবী, ফেনী জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমদ, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার-টেকনাফ বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজি মোহাম্মদ ইউনুছ, মাঝিরঘাট ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ ইছহাক, সৈয়দ হোসেন, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, চৌধুরী মোহাম্মদ জাফর, নুরুল ইসলাম চৌধুরী, তরুণ দাশ গুপ্ত ভানু, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, খোরশেদ আলম, মোবারক হোসেন, অহিদুর নুর কাদেরী, আবদুল মাবুদ তালুকদার প্রমুখ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 266 People

সম্পর্কিত পোস্ট