চট্টগ্রাম রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২৬ আগস্ট, ২০১৯ | ১:৫৬ এএম

ইমাম হোসাইন রাজু

ডেঙ্গু প্রতিরোধের নামে বৃক্ষ নিধন

আগ্রাবাদ জাম্বুরি মাঠ কলোনি

ষ নেয়া হয়নি সংশ্লিষ্ট
কোন দপ্তরের অনুমতি
ষ আমি সরকারের লোক,
সরকারের নির্দেশনা পালন
করেছি : এসো’র সভাপতি

নিয়ম না মেনে অবৈধভাবে আগ্রাবাদ জাম্বুরি মাঠ সরকারি কলোনির (বহুতল কলোনি) বহু গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বন বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট কোন দপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই এসব গাছ কাটা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, কলোনির এসোসিয়েশনের সভাপতি মোশারফ হোসেনের নেতৃত্বে সরকারি এসব গাছ কেটে বিক্রিও করা হয়। যদিও এ বিষয়ে এসোসিয়েশনের সভাপতির দাবি, ডেঙ্গু প্রতিরোধে গাছের ডালপালা কেটে পরিষ্কার করা হয়েছে। তবে কোন গাছ কাটা হয়নি। অভিযোগ রয়েছে গণপূর্ত বিভাগের

কয়েকজন কর্মকর্তার যোগসাজসে এসব গাছ কেটে বিক্রি করা হয়েছে। তবে কলোনির বৈদ্যুতিক লাইনের উপর থাকা কয়েকটি গাছের ডাল কাটা হয়েছে এরকম জানা থাকলেও গাছ কাটার বিষয়টি নজরে নেই বলে জানিয়েছেন গণপূর্ত বিভাগের-৪ এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আহসান হাবিব। অন্যদিকে বহু পুরনো এসব গাছ কাটায় বন বিভাগ, বিভাগীয় কমিশনারসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগে অভিযোগ করেছে কলোনির বাসিন্দারা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীদের প্রায় সাড়ে চারশ’ পরিবার বহুতল কলোনিতে বসবাস করে থাকেন। এ বিশাল কলোনিতে ১৫/২০ বছর আগের পুরানো একাধিক গাছ থাকলেও তা নীরবেই কেটে বিক্রি করা হয়। কাটা গাছগুলো দিনের আলোতেই ট্রাক যোগে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন কলোনির একাধিক বাসিন্দা।
সরেজমিনে দেখা যায়, কলোনির প্রবেশ মুখের দুই পাশে থাকা দেবদারু গাছের ডালকাটা হলেও মাঠের পশ্চিম উত্তর পাশের্^ থাকা চারটি মেহেগনি গাছ কাটা হয়েছে। এছাড়া ১৭ নম্বর বিল্ডিংয়ের পেছনে তিনটি, ১৪ নম্বর বিল্ডিংয়ের পেছনে দুটি, ১৩ নম্বর বিল্ডিংয়ের পেছনে থাকা ৩টি, ১২ নম্বর বিল্ডিংয়ের পেছনে ২টি, ৪ নম্বর বিল্ডিংয়ের পেছনে থাকা একটি কাঁঠালগাছসহ বিভিন্ন গাছ কাটা হয়েছে। সম্প্রতি যে এসব গাছ কাটা হয়েছে, তা গাছের শেকড়ের অংশ দেখেই বুঝা যায়। যেসব গাছ কাটা হয়েছে তার বেশি অংশই খোলা জায়গাজুড়ে ছিল দেখা যায়। যদিও হাতেগুনা কয়েকটি স্থানে গাছ হেলে পড়েছে এমন দৃশ্যও দেখা মিলেছে।
বাসিন্দারা জানায়, বৈদ্যুতিক লাইনে গাছের ডাল পড়েছে এমন কথা বলে এসোসিয়েশনের সভাপতির নেতৃত্বে এসব গাছ কাটা হয়েছে। আর গাছ বিক্রি করা হয়েছে সংগঠনের সদস্য নুরুল আলম স্বপনের নেতৃত্বে। এব্যাপারে কলোনির একাধিক বাসিন্দা বাধা দিলেও জোরপূর্বক এসব গাছ কাটা হয় বলেও জানায় বাসিন্দারা।

জানতে চাইলে এসোসিয়েশনের সভাপতি মোশারফ হোসেন পূর্বকোণকে বলেন, ‘বৈদ্যুতিক লাইনের উপর থাকা কয়েকটি গাছের ডাল কাটা হয়েছে, কোন গাছ কাটা হয়নি’। প্রতিবেদকের কাছে ছবি আছে বলেতেই তিনি বলেন, ‘বৈদ্যুতিক লাইনের উপরে মরে যাওয়া বাদি গাছ, মান্দার গাছ ঝুঁকিতে ছিল তা কাটা হয়েছে। অন্য কোন গাছ কাটা হয়নি। গাছগুলো বৈদ্যুতিক লাইনের উপরে পড়েছে, বিভিন্ন বাসা থেকে আমাদের বলার পর তা কাটা হয়। তবে ফল-ফলাদির কোন গাছ কাটা হয়নি’।
পরক্ষণেই নিজেকে আওয়ামী লীগের সক্রিয় সদস্য পরিচয় দিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছিলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে নিজ আঙ্গিনা পরিষ্কার করতে, তাই কলোনির ঝোপঝাড় পরিষ্কার করা হয়েছে। আমি কুমিল্লা কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি, অর্থমন্ত্রী আমার আত্মীয় হয়। আমি সরকারের লোক, সরকারের নির্দেশনা পালন করেছি’।

সংগঠনের সদস্য নুরুল আলম স্বপনের কাছে গাছ বিক্রির বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি পূর্বকোণকে বলেন, ‘কয়েকটি গাছ বিল্ডিংয়ের মাঝখানে পড়ে থাকায় চলাচলসহ নানা ঝুঁকিতে ছিল। গণপূর্ত বিভাগের লোকজনকে বলার পরও তারা তা সরিয়ে নেয়নি। তাই এসোসিয়েশনের উদ্যেগে এসব গাছ কাটা হয়েছে। তবে বিক্রি করা হয়নি’। পরক্ষণেই তিনি মিজানুর রহমান নামে আরেকজনকে মোবাইল ফোন ধরিয়ে দেন। তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু প্রতিরোধ কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমাদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান ছিল। সে অভিযানে এসব গাছ কাটা হয়েছে’।

এসব বিষয়ে গণপূর্ত বিভাগ-৪ এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আহসান হাবিব পূর্বকোণকে বলেন, ‘আমরাতো জানি, সেখানে কয়েকটি গাছের ডাল কাটা হয়েছে। তবে গাছ কাটা হয়েছে এমন কিছুই জানি না। বিষয়টি আপনার কাছ থেকেই জানলাম। আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি, গাছ কাটা হয়েছে কিনা। গাছ কাটতে অবশ্যই বন বিভাগের অনুমতি নিতে হবে’।
জানতে চাইলে উত্তর বন বিভাগের বন-কর্মকর্তা বখতেয়ার নূর সিদ্দিকি পূর্বকোণকে বলেন, ‘কলোনির কোন গাছ কাটার বিষয়ে আমাদের কাছ থেকে অনুমতি নেয়া হয়নি। এ বিষয়ে গণপূর্ত বিভাগতো আমাদের জানানো উচিত ছিল। তারা জানালে আমরা ব্যবস্থা নিতাম। তবুও খোঁজ খবর নিয়ে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

The Post Viewed By: 161 People

সম্পর্কিত পোস্ট