চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২২ আগস্ট, ২০১৯ | ২:১০ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

জন্মাষ্টমী পরিষদের সংবাদ সম্মেলন

সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয়সহ ১১ দফা দাবি পেশ

সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মৌলিক অধিকার সুরক্ষার স্বার্থে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয় গঠনসহ ১১ দফা দাবি জানিয়েছেন জন্মাষ্টমী পরিষদ। জাতীয় জন্মাষ্টমী মহোৎসবকে সামনে রেখে গতকাল বুধবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পরিষদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিমল কান্তি দে। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন পরিষদের কেন্দ্রীয় প্রাক্তন সভাপতি ও রাউজান পৌরসভার মেয়র দেবাশীষ পালিত, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন তালুকদার। সংবাদ সম্মেলনে উত্থাপিত অন্য দাবিগুলো হলো, মঠ-মন্দির-ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলাকে ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ হিসেবে চিহ্নিত করে বিশেষ ট্রাইবুনালে শাস্তির ব্যবস্থা করা, সারাদেশে বেদখল হওয়া মঠ-মন্দির ও দেবোত্তর সম্পত্তি উদ্ধার এবং তা সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়ন করা, হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজায় চারদিনের সরকারি ছুটি ঘোষণা, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টকে হিন্দু ফাউন্ডেশনে পরিণত, হামলায় বিধ্বস্ত মঠ-মন্দির-ঘরবাড়ি সরকারি উদ্যোগে রামুর বৌদ্ধবিহারের ন্যায় দ্রুত পুনঃনির্মাণ করা, অর্পিত সম্পত্তি সংশোধনী আইন সঠিকভাবে বাস্তবায়ন,

জনগণকে হয়রানি থেকে মুক্তি দেয়া, এরশাদ সরকারের আমলে সৃষ্ট বাংলা নববর্ষের তারিখ বিভ্রাটের অবসান, প্রতিটি জেলায় শ্রীকৃষ্ণ মন্দির প্রতিষ্ঠায় সরকারি জায়গা বরাদ্দ দেয়া ও জন্মাষ্টমী উৎসবে সরকারি ভোগ্যপণ্য বরাদ্দের ব্যবস্থা করা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আগামী ২৩ আগস্ট শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথির স্মারক শ্রী জন্মাষ্টমী সারাদেশব্যাপী যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় পালন করা হবে। এ উপলক্ষে বিভিন্ন জেলায় শোভাযাত্রা, মহানামসংকীর্তন, ধর্মীয় আলোচনা সভা, বস্ত্র বিতরণ, রক্তদান, লীলা প্রদর্শনী, মহাপ্রসাদ বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।
চট্টগ্রামেও ব্যাপক অনুষ্ঠানমালার মাধ্যমে চারদিনের কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। কর্মসূচিসমূহের মধ্যে রয়েছে ২৩ আগস্ট সকাল ১০টায় জেএম সেন হল প্রাঙ্গণ থেকে ভক্ত জনতার উপস্থিতিতে ঐতিহাসিক মহাশোভাযাত্রার উদ্বোধন। ঐতিহাসিক মহাশোভাযাত্রার উদ্বোধন করবেন চট্টগ্রামস্থ সহকারী ভারতীয় হাই কমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জী। প্রধান অতিথি থাকবেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন ও সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, রাজনীতিবিদ মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, মফিজুর রহমান। দুপুর ১২টায় মাতৃসম্মেলনের উদ্বোধন করবেন রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ স্বামী শক্তিনাথানন্দজী মহারাজ, বিকাল ৩টায় ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ৫টায় সনাতন ধর্ম মহাসম্মেলন। মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্জ্বলন করবেন ঋষিধাম ও তুলসীধামের মোহন্ত মহারাজ শ্রীমৎ স্বামী সুদর্শনানন্দ পুরী মহারাজ। উদ্বোধক থাকবেন কৈবল্যধামের মোহন্ত মহারাজ শ্রীমৎ অশোক কুমার চট্টোপাধ্যায়। প্রধান অতিথি ও মহান অতিথি থাকবেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ এমপি ও শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম।

The Post Viewed By: 130 People

সম্পর্কিত পোস্ট