চট্টগ্রাম বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

২৫ জানুয়ারি, ২০২৩ | ৭:৪৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

অভিযানে অবৈধ ক্লিনিক মালিকের কারাদণ্ড, আটক ধাত্রী

চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়ার বউবাজারের সুবর্ণ আবাসিক এলাকায় ‘নিরাপদ প্রসব সেন্টার’ নামক একটি অবৈধ ক্লিনিকে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসন। এসময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইসেন্স না থাকায় ক্লিনিকটির পরিচালক শাহাদাত হোসেনকে ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া সেখানে ধাত্রী ফাহিমা শাহাদাতকে হাতেনাতে আটক করা হয়েছে। তিনি বিভিন্ন সময়ে ডাক্তারের উপস্থিতি ব্যাতীত নিজে অপারেশন বা নরমাল ডেলিভারি করার জন্য নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কারাদণ্ড প্রাপ্ত শাহাদাত হোসেন (৩৫)  মিরসরাইয়ের পূর্ব মায়ানী এলাকার ওয়াছক মুহুরী বাড়ির মো. শহীদুল্লাহয়ের ছেলে

 

জেলা প্রশাসন এর পক্ষে এ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্ত। এসময় অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন চট্টগ্রামের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. ওয়াজেদ চৌধুরী এবং বাকলিয়া থানা পুলিশ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম এর জেলা প্রশাসক  আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, “আমরা যখন শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যু শূন্য কোঠায় নামিয়ে আনতে কাজ করছি। তখন চট্টগ্রামের মত জায়গায় অবৈধ  ক্লিনিক গড়ে মানুষের সাথে প্রতারণা করছিল ‘নিরাপদ প্রসব সেন্টার’ নামক প্রতিষ্ঠানটি। এসব অবৈধ প্রতিষ্ঠানের যেখানেই তথ্য পাওয়া যাবে সেখানেই অভিযান চালান হবে।

 

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে নিরাপদ প্রসব সেন্টারের ফেসবুক পেইজে নিজেদের নিরাপদ প্রসব সেন্টারের নামে কিছু কুচক্র মহল অপপ্রচার এবং ভুল তথ্য দিয়ে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এবং পত্র পত্রিকায় বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগ তোলা হয়। বলা হয় কোন এভিডেন্স ছাড়া শুধু মাত্র টাকার জোড়ে, ক্ষমতার জোড়ে, নিজেদের অসৎ উদ্দেশ্য হাছিলের জন্য এই বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, গত ১৩ জানুয়ারি এখানে নরমাল ডেলিভারি করানোর পর জান্নাতুল ফেরদৌস নিহা (২২) নামের একজন প্রসূতি মায়ের মৃত্যু ঘটে। চট্টগ্রামের দু একটি স্থানীয় পত্রিকায় এ সংবাদ প্রকাশের পর সেখানে অভিযান চালায় জেলা প্রশাসন।

পূর্বকোণ/রাজীব/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট