চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২৩ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১১:২৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, চবি

শর্তসাপেক্ষে ‘ক্লাসে’ ফিরছেন চবির চারুকলার শিক্ষার্থীরা

আন্দোলন শিথিল করে আজ থেকে খোলা মাঠের ক্লাসে ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা। তবে আগামী সাত দিনের মধ্যে দাবি আদায়ে দৃশ্যমান কোন পদক্ষেপ দেখা না গেলে পুনরায় আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।

 

 

গতকাল (রবিবার) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের সঙ্গে ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে আন্দোলনের ৮২ তম দিনে এই ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

 

 

চারুকলার স্নাতকোত্তর বর্ষের শিক্ষার্থী মো. শহীদ বলেন, ‘আমাদের অনেক্ষণ আলোচনা হয়েছে। তারা আমাদের জানিয়েছেন, চারুকলাকে মূল ক্যাম্পাসে স্থানান্তরের দাবির বিষয়টি যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে লিখবেন। জেলা প্রশাসক নিজ উদ্যোগে কাজ করবেন বলেও আশ্বস্ত করেছেন। আমরা তাদের আশ্বাসের ভিত্তিতে আন্দোলন স্থগিত করে শ্রেণিকক্ষে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

 

 

একাধিক শর্ত দিয়ে শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষে ফিরছেন জানিয়ে মো. শহীদ বলেন, ‘আমরা শর্ত দিয়েছি, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ক্লাস করব না। আমরা চারুকলা প্রাঙ্গণে খোলা মাঠে ক্লাস করব। শ্রেণি কার্যক্রমে ফেরার জন্য আমাদের আবাসিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। শিক্ষক ক্লাব অপসারণ করে সেখানে মেয়েদের আবাসন ব্যবস্থা করা হবে বলে আশ্বাস দেয়া হয়েছে। ক্যানটিন ও শৌচাগারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার কথাও বলেছি আমরা। সর্বোপরি চারুকলাকে মূল ক্যাম্পাসে স্থানান্তর প্রক্রিয়া চলমান থাকতে হবে।’

 

 

এদিকে ক্লাসে ফিরলেও চলমান আন্দোলন থেমে থাকবে না বলে জানান এই শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘এক সপ্তাহের মধ্যে যদি আমাদের দাবির বিষয়ে কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া না হয়, মন্ত্রণালয়ের প্রকৌশলী না আসে এবং ভবনকে নিরাপদ ঘোষণা না করে, তবে আমরা পুনরায় আন্দোলনে ফিরে যাবো।’

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মুহাম্মদ ইয়াকুব বলেন, ‘তারা (চারুকলার শিক্ষার্থীরা) সাতদিনের সময় দিয়েছে। আজ (গতকাল রবিবার) থেকেই কাজ শুরু। আমাদের প্রকৌশল দপ্তর থেকে লোক সেখানে গেছে। স্থানান্তরের বিষয়ে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জেলা প্রশাসক চিঠি দিবেন বলেছেন। পাশাপাশি তাদের আর যে দাবি-দাওয়া ছিল, সেগুলো নিয়েও আজ (গতকাল রবিবার) থেকে কাজ শুরু।’

 

 

গত বছরের ২ নভেম্বর থেকে ২২ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবস্থান কর্মসূচি ও ক্লাসবর্জন কর্মসূচি শুরু করে চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের এক পর্যায়ে প্রশাসন দাবি মানতে ইতিবাচক সাড়া দিলেও পরে ২২ দফা দাবি হঠাৎই মূল ক্যাম্পাসে ফেরার এক দফা দাবিতে রূপ নেয়। সর্বশেষ গত শনিবার আন্দোলনের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী। কিন্তু তাতেও কোনো ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসেনি।

পূর্বকোণ/আরএ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট