চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১৬ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ফেব্রুয়ারিতে

আগামী ফেব্রুয়ারিতে মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন। গতকাল সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সম্মেলনের প্রস্তুতি হিসেবে ১৮ জানুয়ারি সভাপতিমণ্ডলীর সভা, ২১ জানুয়ারি কার্যনির্বাহী কমিটির সভা এবং ২৩ জানুয়ারি বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল নগরীর একটি কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত নগর আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

 

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, সংগঠনকে গতিশীল করার কোন বিকল্প নেই। তৃণমূল শক্তি সংগঠনের ঐক্যের ভিত্তি। এই ভিত্তি সুদৃঢ় হলে আগামী জাতীয় দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকার বিজয় অবশ্যই অনিবার্য।

 

তিনি জানান, আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের আগেই মহানগরের সম্মেলন হওয়া উচিত ছিল। করতে না পারাটা পীড়াদায়ক। তাই ফেব্রুয়ারিতে সম্মেলন করার লক্ষ্য নিয়ে তারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতোমধ্যে সাংগঠনিক বৈঠকের সাথে সাথে চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথেও তারা আলাপ করে ২৩ জানুয়ারি বর্ধিত সভার পর ওয়ার্ড এবং থানা সম্মেলন করার পরিকল্পনা করছেন তারা।

 

সভায় সভাপতির বক্তব্যে আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় নৌকার বিজয় ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই। এই বিজয় নিশ্চিত করার জন্য এখন থেকে তৃণমূল স্তরের নেতা-কর্মীদের ঘরে ঘরে গিয়ে সরকারের উন্নয়ন ও জাতীয় অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার অর্জনগুলো পৌঁছে দিতে হবে।

 

সাংবিধানিকভাবে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনই সরকার পরিবর্তনে একমাত্র উপায়। এজন্য যারা বিদেশিদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছে। তাদের একথাও জানা উচিৎ তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেনাবাহিনী সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে করা অর্থ আত্মসাৎ ও দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত হয়েও সরকারের বদান্নতায় নিজ গৃহে বসবাস করছেন। তারেক রহমান সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে আর রাজনীতি না করার মুচলেখা দিয়ে লন্ডনে বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন।

 

সভায় জনগণের জানমালের নিরাপত্তা রক্ষায় বিএনপি-জামায়াতের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি চলাকালে নগরীর দারুল ফজল মার্কেটস্থ কার্যালয় চত্বর, অলংকার চত্বর, অক্সিজেন মোড়, বহদ্দারহাট মোড়, ইপিজেড মোড় এই পাঁচটি স্থানে আজ সোমবার দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

 

সভায় উপস্থিত ছিলেন বদিউল আলম, আবদুচ ছালাম, নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, শফিকুল ইসলাম ফারুক, হাসান মাহমুদ শমসের, এডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আহমেদুর রহমান সিদ্দিকী, হাজি মো. হোসেন, জহুর আহমেদ, মাহবুবুল হক মিয়া, জালাল উদ্দীন ইকবাল, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিক, জোবাইরা নার্গিস খান, দিদারুল আলম চৌধুরী, আব্দুল আহাদ, আবু তাহের, হাজী শহিদুল আলম, জহর লাল হাজারী প্রমুখ।

পূর্বকোণ/আরএ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট