চট্টগ্রাম সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩

১৩ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ

সারোয়ার আহমদ

বন্দরের জেটিতে ২শ মিটার লম্বা জাহাজ ভিড়বে সোমবার

চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে প্রথমবারের মতো ভিড়বে ২শ মিটার লম্বা জাহাজ। আগামী সোমবার (১৬ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম বন্দরের সিসিটি-১ নম্বর জেটিতে ২শ মিটার লম্বা ‘কমন এটলাস’ নামের কার্গো জাহাজটিকে বার্থিং দেওয়া হবে। এতদিন বন্দরের জেটিতে ১৯০ মিটার দৈর্ঘের জাহাজ ভেড়ানো যেত।

 

বৃহৎ আকারের জাহাজ ভেড়ানো উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বন্দর চেয়ারম্যান ও বন্দরের সদস্যসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং শিপিং বাণিজ্যে সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন।

 

এ প্রসঙ্গে জাহাজটির ওনার্স প্রটেক্টিং এজেন্ট বেঙ্গল শিপিং লাইন লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক এস এম এনামুল হক পূর্বকোণকে জানান, মার্সাল আইল্যান্ড পতাকাবাহী ২শ মিটার লম্বা ‘কমন এটলাস’ নামের কার্গো জাহাজটি মেঘনা গ্রুপের চিনি নিয়ে ব্রাজিলের সান্টোস বন্দর থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। গত ১০ জানুয়ারি (মঙ্গলবার) জাহাজটি সাড়ে ৬০ হাজার টন ‘র’ সুগার নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে পৌঁছে। জাহাজটি আগামী ১৬ জানুয়ারি চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে বার্থিং করার কথা রয়েছে।

 

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে বর্তমানে সাড়ে নয় মিটার গভীরতার (পানির নিচে থাকা জাহাজের অংশ) এবং ১৯০ মিটার লম্বা জাহাজ ভিড়তে পারে। এরকম জাহাজগুলো সাধারণত ২৫শ থেকে ২৬শ টিইইউস কনটেইনার বহন করতে পারে। তবে এবার দশ মিটার গভীরতার ও ২শ মিটার লম্বা জাহাজ ভিড়লে বন্দরে ৩৮শ থেকে ৪ হাজার কনটেইনার পরিবহন করতে পারবে। এতে সুফল পাবে ব্যবসায়ীরা। কারণ বেশি পরিমাণ কনটেইনার নিয়ে জাহাজ ভিড়তে খরচ কমে যায়। ফলে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে ইতিবাচক প্রভাব পড়ার পাশাপাশি পণ্য পরিবহন খাতে সাশ্রয় হবে কোটি কোটি ডলার।

 

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক পূর্বকোণকে বলেন, ১০ মিটার গভীরতার জাহাজ প্রবেশের বিষয়ে বিশ্বের বিভিন্ন শিপিং কোম্পানিদের কাছে খুব শিগগিরিই সার্কুলার জারি করে জানিয়ে দিবে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। তার আগে আগামী সোমবার একটি ২০০ মিটার লম্বা জাহাজ সিসিটি-১ এর জেটিতে ভেড়ানো হবে। সেদিন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন।

 

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে ১০ মিটার গভীরতার জাহাজ ভিড়লে বর্তমানের চেয়ে বেশি পরিমাণে কার্গো পরিবহন করা যাবে। এতে বন্দরে টার্ন এরাউন্ড টাইম কমে আসবে। কারণ একটি কম পরিমাণ কনটেইনার বহনকারী জাহাজকে বাথিং দিলে সেই জাহাজ জেটিতে ভিড়ানো, পণ্য উঠা-নামা করানো, এরপর আবার জোয়ারের ওপর নির্ভর করে জাহাজ ছেড়ে যাওয়া ইত্যাদির কারণে সময় লেগে যায়। ফলে বড় জাহাজ ভিড়লে একসাথে অনেক কনটেইনার আসবে, এতে খরচও কম হবে, প্রডাক্টিভিটিও বাড়বে।

 

বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি খায়রুল আলম সুজন পূর্বকোণকে বলেন, বর্তমানে চলাচলকারী জাহাজের চেয়ে বেশি গভীরতা এবং বেশি দৈর্ঘ্যরে জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে ভিড়তে পারলে একই সময়ে বিপুল পরিমাণ কনটেইনার পরিবহন করা সম্ভব হবে। এতে পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে খরচ কমে আসবে। লাভবান হবে দেশি ব্যবসায়ীরা।

 

চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে ২০২০ সালে কর্ণফুলী নদী এবং বন্দর চ্যানেলে নিয়ে হাইড্রোগ্রাফিক ও হাইড্রোলজিক্যাল স্টাডি চালায় বন্দর কর্তৃপক্ষ। সমীক্ষা পরিচালনায় দায়িত্ব দেওয়া হয় যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান এইচআর ওয়েলিংফোর্ড নামের একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানকে।

 

তারা তিনটি বিষয় নিয়ে গবেষণা চালায়। বর্তমানে চ্যানেলের যে অবস্থা এবং জেটি যেভাবে রয়েছে তাতে বন্দরে ঠিক কত গভীরতা এবং দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ভেড়ানো যায়, বন্দরের দুই তীরের কী পরিমাণ জায়গায় জেটি বা ইয়ার্ড সম্প্রসারণ কাজে ব্যবহার করা যায় এবং কোন বিশেষ পদক্ষেপ নিলে বন্দরে সর্বোচ্চ কত গভীরতা এবং দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ভেড়ানো সম্ভব এসব বিষয়ের ওপর প্রতিষ্ঠানটি গবেষণা চালায়। এক বছরের বেশি সময় ধরে গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি চট্টগ্রাম বন্দরে সমীক্ষা পরিচালনা করে গত এপ্রিলে প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দেয় এবং সম্প্রতি চূড়ান্ত রিপোর্ট জমা দেয়।

 

রিপোর্টে সংস্থাটি উল্লেখ করে- বিদ্যমান অবকাঠামো ব্যবহার করে চট্টগ্রাম বন্দরে এখনই ১০ মিটার গভীরতা এবং ২০০ মিটার দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ভেড়ানো যাবে। তবে বহির্নোঙ্গর ও গুপ্তখালের সন্নিকটের বাঁকে কিছুটা কাজ করে নদীর দু-একটি পয়েন্টে ড্রেজিং করলে বন্দর চ্যানেলে ১১ মিটার গভীরতা ও ২২৫ মিটার লম্বা জাহাজও ভেড়ানো যাবে।

 

তারই ধারাবাহিকতায় বন্দরের হাইড্রোগ্রাফিক বিভাগ বন্দর চ্যানেল পর্যবেক্ষণ করে ২০০ মিটার গভীরতার জাহাজ ভেড়ানোর পরিকল্পনা করে। বন্দরের হারবার ও মেরিন বিভাগের তত্ত্বাবধানে আগামী সোমবার প্রথম ২০০ মিটার জাহাজটি জেটিতে ভেড়ানো হবে।

 

পূর্বকোণ/আরএ

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট