চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

সর্বশেষ:

১১ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ

ইফতেখারুল ইসলাম 

যুবলীগ সরব যে কারণে

কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে রেলওয়ে পলোগ্রাউন্ডে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনসমূহের ব্যানার-পোস্টারের মধ্যে যুবলীগের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। এছাড়া গতকাল ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশকে ঘিরে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য হারে রাজপথে ছিলেন যুবলীগের পদ প্রত্যাশীরা।

 

দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ও মহানগর যুবলীগের কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ প্রত্যাশী রয়েছেন বেশকিছু সাবেক ছাত্রলীগ নেতা। আবার যারা আওয়ামী লীগের ছোট-খাটো পদে আছেন তারাও জেলা এবং মহানগর যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হতে চান। অতি শীঘ্রই যুবলীগের কমিটি ঘোষণা হতে পারে। তাই এই মুহূর্তে নিজের অবস্থান জানান দেয়ার পাশাপাশি সংগঠনের নীতি-নির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা তাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ হয়ে ওঠেছে। একইসাথে যে যেই নেতার অনুসারী তাকেও খুশি করার চেষ্টা তারা করেছেন। এসব কারণে অন্যান্য অঙ্গসংগঠনের নেতাদের তুলনায় যুবলীগ নেতাদের বেশি করে ব্যানার পোস্টার লাগাতে হয়েছে। যা সবার নজরে পড়েছে। এমনকি কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে নির্বাচনী জনসভা করেছেন সেখানেও চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতাদের পাশাপাশি যুবলীগের পদ প্রত্যাশী নেতারাও সমাবেশে যোগ দেয়ার জন্য সেখানে ছুটে গেছেন। কারণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশসহ কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ কারণে তাদের বড় বড় ছবি দিয়েও ব্যানার পোস্টার করেছেন যুবলীগ নেতারা। তবে যুবলীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতার সাথে আলাপকালে পূর্বকোণকে তারা জানান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সম্মেলনের আগেই চট্টগ্রাম মহানগর ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের কমিটি ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি। কাকে কোন পদ দেয়া হবে তা যাচাই-বাছাই করছেন যুবলীগ চেয়ারম্যান নিজেই।

 

উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি পদ প্রত্যাশীরা হলেন এস এম রাশেদুল আলম, মুজিবুর রহমান স্বপন, রাজিবুল আহসান সুমন, নুরুল মোস্তফা মানিক, আবুল বশর, নাছির হায়দার বাবুল, গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ। আর সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন জয়নাল আবেদীন, মিজানুর রহমান মিজান, মোহাম্মদ আবু তৈয়ব, রাশেদ খান মেনন, শেখ ফরিদ, শামসুদ দোহা সিকদার আরজু প্রমুখ।

 

মহানগর যুবলীগের কমিটিতে যারা সভাপতি পদে আসতে চান তারা হলেন দিদারুল আলম, মাহবুবুল হক সুমন, দেবাশীষ পাল দেবু, দিদারুল আলম দিদার, এম আর আজিম, আরশেদুল আলম বাচ্চু, হাসান মুরাদ বিপ্লব, ওয়াসিম উদ্দীন চৌধুরী, সাজ্জাদ হোসেন, সুরঞ্জিৎ বড়ুয়া লাভু প্রমুখ। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন কে এম শহীদুল কায়সার, হাবিবুর রহমান তারেক, জাবেদুল আলম সুমন, জাহেদ রাসেল, নুরুল আজিম রনি, আবু মোহাম্মদ মহিউদ্দিনসহ বেশ কয়েকজন।

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট