চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২৯ নভেম্বর, ২০২২ | ১১:০১ পূর্বাহ্ণ

ইফতেখারুল ইসলাম

প্রধানমন্ত্রী যদি এই পথে যান

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের কারণে লালখান বাজার মোড়ের পর থেকে আগ্রাবাদ শেখ মুজিব সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে ভাঙা ছিল। জরুরি কোন কাজ না থাকলে কেউ এই সড়ক দিয়ে সহজেই যেতে চায় না। তবে জীবিকা কিংবা অন্যকোন কারণে এতদিন যাদের এই এবড়োথেবড়ো সড়ক দিয়ে চলাচল করতে হয়েছে তাদের দুর্ভোগের সীমা ছিল না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামে আসছেন। অবশেষে সেই দুর্ভোগের অবসান হতে চলেছে। ঠিকাদার সড়কটি এখন চলাচল উপযোগী করে দিচ্ছে।

 

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের পরিচালক সিডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান পূর্বকোণকে বলেন, নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবেই ঠিকাদার সড়কের কাজ করছে।

 

এই সড়ক দিয়ে নিয়মিত চলাচলকারী পোশাক শিল্পের কর্মকর্তা নুরুল আমিন সড়কের সংস্কার কাজকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নির্মাণ কাজ চলার কারণে সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে চলাচল অযোগ্য ছিল। প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম আসছেন। বিমানবন্দর থেকে পলোগ্রাউন্ড পর্যন্ত সড়ক চলাচলযোগ্য করা হচ্ছে। কারণ প্রধানমন্ত্রী কোন কারণে যদি এই সড়ক ব্যবহার করেন। সম্ভবত এই ভয় থেকেই তারা রাতদিন সমানতালে কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী যদি বছরে অন্তত একবার চট্টগ্রামে আসেন তাহলে জনদুর্ভোগ অনেকখানি লাঘব হত। প্রধানমন্ত্রীর আসা যাওয়ার সম্ভাব্য সব সড়কের সংস্কার এবং রাঙানোর উদ্যোগ নিয়েছে সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহ। এক্ষেত্রে কেউ কারো জন্য অপেক্ষা করছে না। নিজ তাগিদেই কাজ করছে।

 

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে, পলোগ্রেউন্ডের মাঠ ফেলে বাংলাদেশ রেলওয়ের পে এন্ড ক্যাশ অফিসের সামনে সড়কের আইল্যান্ড একসময় আবর্জনার ভাগার ছিল। এখন সেখানে বাইরে থেকে ফুলের চারা নিয়ে বাগান করা হয়েছে। সিআরবি ৭ রাস্তার মোড় থেকে যে সড়কটি টাইগারপাসের দিকে গেছে সেটি কার্পেটিং করা হচ্ছে। ষোলশহর দুই নম্বর গেট হতে বায়েজিদ সড়কের গর্তসমূহ ভরাট করা হয়েছে। নানা রঙে রাঙানো হয়েছে আকতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভার।

 

অপরদিকে, বিভিন্ন সড়কের গুরুত্বপূর্ণ মোড়সমূহও পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এবং চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ। ফুটপাত থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অতীতে তাদের তেমন তৎপরতা চোখে পড়েনি।

 

জানতে চাইলে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান পূর্বকোণকে বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জনসভার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন পথে জনসভায় আসবেন এবং শেষে কোন সড়ক দিয়ে বেরিয়ে যাবেন তা তাদের জানা নেই। প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করে নেয়ার জন্য চট্টগ্রামবাসী প্রস্তুত। তাই বিভিন্ন সড়ক সংস্কার এবং রাঙানো হচ্ছে।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট