চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২৬ নভেম্বর, ২০২২ | ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ

ইফতেখারুল ইসলাম

সাধারণ সম্পাদক হতে চান চট্টগ্রামের রাজিয়া মোস্তফা

আজ শনিবার কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের ৬ষ্ঠ সম্মেলন। চট্টগ্রাম থেকে হাজারো মহিলা নেত্রী ঢাকায় গেছেন। এবার মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে চট্টগ্রাম উত্তর-দক্ষিণ ও মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের কারো তেমন আগ্রহ না থাকলেও চট্টগ্রামের একজন নারী নেত্রী সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তার নাম সৈয়দা রাজিয়া মোস্তফা। তিনি কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক।

 

জানতে চাইলে রাজিয়া মোস্তফা পূর্বকোণকে বলেন, তিনি এর আগে ধানমন্ডি থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। অন্তত ১৫ বার কারাবরণ করেছেন। ফটিকছড়ি একটি সম্ভ্রান্ত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান। তার মা-বাবা এবং দুই ভাই মুক্তিযোদ্ধা উল্লেখ করে বলেন, তিনি সাধারণ সম্পাদক পদের বিষয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়েছেন। নেত্রী তাকে অনেক স্নেহ করেন। দুর্দিনের লড়াকু সৈনিক হিসেবে তিনি কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের পদ প্রত্যাশা করেন।

 

চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন পূর্বকোণকে বলেন, মহানগর থেকে দুই শতাধিক মহিলা নেত্রী নিয়ে তিনি গতকাল শুক্রবার ঢাকায় গেছেন। যার মধ্যে ৫০ জন কাউন্সিলর। বাকিরা ডেলিগেট। তার জানা মতে মহানগর মহিলা লীগের কমিটি থেকে কেউ কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না বলে উল্লেখ করেন।

 

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. বাসন্তী প্রভা পালিত পূর্বকোণকে বলেন, কাউন্সিলর ১২১ জন এবং ডেলিগেট ২৬৫ জন ঢাকায় গেছেন। এর মধ্যে সোনার বাংলা ট্রেনের একটি বগি করে কিছু নেত্রী ঢাকায় গেছেন। বাকিরা যে যার মত করে গেছেন। কাউন্সিলর-ডেলিগেটসহ চার শতাধিক নেত্রী ঢাকায় গেছেন। তিনি কিংবা উত্তর চট্টগ্রামের কেউ কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না। নেত্রী যাদেরকে দেবেন তাদেরকেই সমর্থন করবেন।

 

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুন লুবনা পূর্বকোণকে বলেন, দক্ষিণ জেলা থেকে দুই বগি ট্রেনে করে গতকাল গেছেন। ২৫০ জন কাউন্সিলর এবং ডেলিগেটসহ তিন শতাধিক নেত্রী এবং কর্মী ঢাকায় গেছেন উল্লেখ করে বলেন, উত্তর-দক্ষিণ ও মহানগরের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে কেউ কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট