চট্টগ্রাম বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৭ আগস্ট, ২০১৯ | ২:০১ এএম

নিজস্ব সংবাদদাতা , রামগড়

ফের ডাকাতি, টাকা ও স্বর্ণালংকার উদ্ধার

রামগড়ে স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাসহ আটক ৪

খাগড়াছড়ির রামগড় পৌর এলাকার কমপাড়ায় শুক্রবার (১৬ আগস্ট) ভোররাতে মো. ইউছুফ নামে চাউল এক ব্যবসায়ীর বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা ঐ বাসা থেকে নগদ সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা ও প্রায় ৭ ভরি জনের বিভিন্ন স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। এদিকে পুলিশ তাৎক্ষণিক সাড়াশি অভিযান চালিয়ে ডাকাতির নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকারসহ চারজনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হল, স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতা ও পৌরসভার তৈচালাপাড়ার নুরুল আমিনের ছেলে নজরুল ইসলাম(৩৯), নোয়াখালীর সুধারাম থানার পশ্চিম শুলকিয়া চৌধুরীবাড়ির মৃত চৌধুরী মিয়ার ছেলে শাহ আলম প্রকাশ টুকু(৩৫), চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের মালিয়াইশ গ্রামে ধন গাজি মাঝিবাড়ির আহসান উল্লাহ প্রকাশ নুরুজ্জামনের ছেলে নুরুন্নবী প্রকাশ নাজিম উদ্দিন(৩২) ও রামগড়ের তৈচালাপাড়ার মৃত আব্দুস সালামের ছেলে নুরুল

ইসলাম প্রকাশ নুর ইসলাম (৩৫)। এদিকে, ডাকাতির ঘটনায় আটক নজরুল ইসলাম দলীয় অনুমোদিত কোন কমিটির পদে নেই বলে জানিয়েছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি রাসেল ফরায়েজী।
পুলিশ ও ডাকাতির শিকার গৃহকর্তা জানায়, শুক্রবার ভোর ৩টার দিকে ডাকাতরা কম পাড়ায় চাউল ব্যবসায়ী মো. ইউছুপের বাসায় হানা দেয়। ডাকাতরা বাসার পিছনের একটি দরজার লকার ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে। গৃহকর্তার ভাগিনা নুরুল আলমের কক্ষে ডুকে প্রথমেই তার হাতমুখ বেঁধে ফেলে তারা। পরে ধারালো অস্ত্রের মুখে তার মাধ্যমে গৃহকর্তাসহ বাসার সকল সদস্যকে ঘুম থেকে ডেকে তোলে একটি কক্ষে হাত মুখ বেঁধে আটকে রাখে। ডাকাতরা গৃহকর্তা ইউছুফকে হত্যার ভয় দেখিয়ে আলমিরার চাবি নিয়ে নগদ প্রায় তিন লক্ষ টাকা, প্রায় ৭ ভরি ওজনের বিভিন্ন স্বর্ণালংকার ও চারটি মোবাইল ফোন সেট লুটে নেয়। ডাকাতরা মামলা না করার হুমকী দিয়ে বাসার সবাইকে একটি কক্ষে আটকিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। এদিকে, ডাকাতি করে পালানোর সময় এলাকার পাহারাদারদের নজরে এলে তারা ডাকাতদের ধাওয়া করে। খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে সাড়াশি অভিযানে নামে ডাকাতদের ধরতে। রামগড় সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈয়দ মো. ফরহাদের নেতৃত্বে থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) তারেক মো. আব্দুল হান্নান অটো রিকশাযোগে পালিয়ে যাওয়ার সময় সোনাইপুল বাজার এলাকায় তিন ডাকাত শাহ আলম, নাজিম ও নুর ইসলামকে আটক করে। এসময় তাদের কাছ থেকে ডাকাতির নগদ দু’লক্ষ ৫৭ হাজার টাকা ও ১৩ আইটেমের স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়। পরে আটককৃতদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তৈচালাপাড়ার বাসা থেকে নজরুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ। আটককৃত ডাকাত সদস্য নুর ইসলাম জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে যৌথখামার এলাকার বনবিধি বাগানের একটি পরিত্যক্ত ঘরে বসে তারা ডাকাতির পরিকল্পনা করে। ঐসময় আটককৃত চারজন ছাড়াও আরও চারজন উপস্থিত ছিল। কমপাড়ার বাসায় তারা মোট ৮জন ডাকাতিতে অংশ নেয়। সে আরও জানায়, অতি সম্প্রতি কালাডেবা ও চৌধুরীপাড়ার দুটি বাড়িতে তারা ডাকাতি করেছিল। তবে ঐ ডাকাতির সময় নজরুল তাদের সঙ্গে ছিল না।
এদিকে, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তারেক মো. আব্দুল হান্নান বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে নাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৫টি ডাকাতি মামলা, শাহ আলমের নামে একটি ডাকাতি মামলা, নজরুল ইসলামের নামে সেনাবাহিনীর সদস্য অপহরণসহ বিভিন্ন অপরাধের চারটি মামলা ও নুর ইসলামের নামে দুটি মামলা রয়েছে। সে একটি মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। তিনি বলেন, ডাকাতির ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। তিনি জানান, কমপাড়ায় ডাকাতির ঘটনায় বাসার গৃহকর্তা মো. ইউছুফ বাদি হয়ে রামগড় থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

The Post Viewed By: 83 People

সম্পর্কিত পোস্ট