চট্টগ্রাম সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

ফাইল ছবি

৪ নভেম্বর, ২০২২ | ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই মাস ধরে আমদানি-রপ্তানি দুটোই নিম্নমুখী চট্টগ্রাম বন্দরে

গত দুই মাস ধরে চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি-রপ্তানি পণ্য হ্যান্ডলিং দুটোই কমেছে। এর কারণ হিসেবে অবশ্য ডলারের দাম বৃদ্ধি ও বৈশ্বিক মন্দাকে দুষছে ব্যবসায়ী মহল ও বন্দর কর্তৃপক্ষ। দেশের প্রধান এই সমুদ্র বন্দরে গেল অক্টোবরে আমদানি পণ্যের কনটেইনার হ্যান্ডলিং হয়েছে ৯৭ হাজার ৫৩৮ টিইইউস, সেপ্টেম্বরে ১ লাখ ১ হাজার ৪৯৩ টিইইউস এবং আগস্টে ১ লাখ ১৪ হাজার ৯২০ টিইইউস। অর্থাৎ চলতি বছরের আগস্টের তুলনায় গেল দুই মাসে ১৭ হাজার ৩৮২ টিইইউস আমদানি কনটেইনার কম হ্যান্ডলিং হয়েছে।

 

অন্যদিকে, গেল অক্টোবরে চট্টগ্রাম বন্দর রপ্তানি পণ্যের কনটেইনার হ্যান্ডলিং করেছে ৫৯ হাজার ৩৩১ টিইইউস। এর আগের মাস সেপ্টেম্বরে ৬৩ হাজার ৮০৩ টিইইউস এবং আগস্টে ৭৫ হাজার ৬৯৭ টিইইউস রপ্তানি পণ্যের কনটেইনার হ্যান্ডলিং করে। অর্থাৎ চলতি বছরের আগস্টের তুলনায় চট্টগ্রাম বন্দর গেল দুই মাসে রপ্তানি কনটেইনার কম হ্যান্ডলিং করেছে ১৬ হাজার ৩৬৬ টিইইউস।

 

এছাড়া গত বছরের একই সময়ের সাথে তুলনা করলেও চলতি বছরের অক্টোবর মাসের আমদানি-রপ্তানির চিত্র নিম্নমুখী। ২০২১ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রাম বন্দর আমদানি পণ্যের কনটেইনার হ্যান্ডলিং করেছিল ১ লাখ ২৪ হাজার ৬৫৯ টিইইউস। যা এবছরের অক্টোবরে ছিল ৯৭ হাজার ৫৩৮ টিইইউস। অর্থাৎ গতবছরের অক্টোবরের তুলনায় এবছরে একই সময়ে ২৭ হাজার ১২১ টিইইউস কনটেইনার পণ্য কম আমদানি হয়েছে।

 

অন্যদিকে ২০২১ সালের অক্টোবরে রপ্তানি হয়েছিল ৭০ হাজার ২৭০ টিইইউস কনটেইনার পণ্য। যা এবছরের অক্টোবরে ছিল ৫৯ হাজার ৩৩১ টিইইউস। গতবছরের অক্টোবরের তুলনায় এবছরে একই সময়ে ১০ হাজার ৯৩৯ টিইইউস কনটেইনার পণ্য কম রপ্তানি হয়েছে।

 

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম চেম্বারের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম পূর্বকোণকে বলেন, করোনার পর গতবছর কল-কারখানা খোলার পর পণ্য আমদানি-রপ্তানি বেড়ে যায়। আর এবছর গত কয়েক মাস ধরে ডলারের দাম উল্লেখযোগ্য হারে বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা পণ্য আমদানি কমিয়ে দিয়েছে। ব্যবসায়ীরা অনেক হিসেব কষে কাঁচামাল আমদানি করছে। এছাড়া বৈশ্বিক মন্দার কারণে বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানি কমিয়েছে। ফলে সম্প্রতি আমদানি-রপ্তানি দুটোই কমেছে।

 

একই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক পূর্বকোণকে বলেন, ব্যবসায়ীরা কম পণ্য আনা নেয়া করায় চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য হ্যান্ডলিং চিত্রে এই তারতম্য উঠে এসেছে। তবে চট্টগ্রাম বন্দর ৩ মিলিয়নের বেশি কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বন্দর। অর্থাৎ সাময়িক মন্দা কেটে গিয়ে বেশি পরিমান আমদানি-রপ্তানি কনটেইনার বেড়ে গেলেও তা চট্টগ্রাম বন্দর হ্যান্ডলিয়ে প্রস্তুত আছে। আর ব্যবসায় ওঠানামা একটি সাধারণ বিষয়। গত দুইমাস কমলেও আমার সামনে হয়তো বেড়ে গিয়ে এই ঘাটতিটা পূরণ করে দিবে।

 

পূর্বকোণ/আর

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট