চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২২

২৬ অক্টোবর, ২০২২ | ৮:০১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘২১ খাল সংস্কার-পুনরুদ্ধারে ডিপিপি প্রস্তুতে কাজ করছে চসিক’

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, মেগা প্রকল্পের ৩৬টি খালের বাইরে চট্টগ্রাম নগরীতে আরও ২১টি খাল রয়েছে। এই খালগুলো পূনরুদ্ধার জরুরি মনে করে চসিক ইতোমধ্যে খাল উদ্ধার ও সংস্কারে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) প্রস্তুতের কার্যক্রম শুরু করেছে। জলজট নিরসনে চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন না হওয়া এবং প্রকল্পের কাজের স্বার্থে খাল ও নালায় অস্থায়ী বাঁধের মাটি উত্তোলন না করার কারণে জলজটের ভোগান্তি থেকে এখনও নগরবাসি মুক্তি পাচ্ছে না। আজ বুধবার সকালে গোসাইলডাঙ্গা ওয়ার্ডস্থ হাজী মোখলেসুর রহমান রোড সংলগ্ন মহেশ খালের ওপর নির্মিতব্য ব্রিজের উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

সিটি মেয়র বলেন,  নগরীর সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে জলাবদ্ধতা। আগ্রাবাদ, গোসাইলডাঙ্গা ও হালিশহর এলাকা এমনিতেই নীচু এলাকা, জোয়ারে সময় এই এলাকাগুলো পানিতে ডুবে যায়। তদুপরি বর্ষা মৌসুমে অতিমাত্রায় বৃষ্টি হলে জোয়ারের পানি ও বৃষ্টির পানি একাকার হয়ে তীব্র জলজটের সৃষ্টি হয়। এই জলজটের কারণে এলাকার জনসাধারণের ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করে। এবারের ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসে আগ্রাবাদ ও দেশের বৃহত্তম ভোগ্যপণ্যের বাজার খাতুনগঞ্জে ব্যবসায়ীগণ ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন। জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রায় পাঁচ শতাধিক গুদাম। এই ভোগান্তি থেকে পরিত্রাণেরর জন্য চউক কর্তৃক বাস্তবায়িত মেগা প্রকল্পের কাজ দ্রুত শেষ করার আহব্বান জানান তিনি। 

 

এসময় উপস্থিত ছিলেন, গোসাইল ডাঙ্গা ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মোরশেদ আলী, প্যানেল মেয়র আফরোজা কালাম, কাউন্সিলর জাফরুল হায়দার সবুজ, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফেরদৌসী আকবর, প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম, তত্তাবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, মনিরুল হুদা, নির্বাহী প্রকৌশলী বিপ্লব দাশ ও আনোয়ার জাহান প্রমুখ। 

 

পূর্বকোণ/রাজীব/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট