চট্টগ্রাম বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

২০ অক্টোবর, ২০২২ | ১১:৩৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাহিদা সত্ত্বেও শেফ সংকট

রেস্টুরেন্ট ব্যবসার মূল সাফল্য নির্ভর করে রান্নার স্বাদ এবং খাবারের পুষ্টিমানের উপর। যা নিশ্চিত করেন একজন দক্ষ শেফ। দিনদিন যে পরিমাণ হোটেল-রেস্টুরেন্ট বাড়ছে, সে পরিমাণ চাহিদাও রয়েছে রন্ধনশিল্পীদের। কিন্তু দক্ষ রন্ধনশিল্পীর (শেফ) এখনও সংকট রয়ে গেছে। এমন কথাই জানিয়েছেন রন্ধনশিল্পীর সঙ্গে তিনযুগের বেশি সময় ধরে জড়িত থাকা শেফরা। তাদের মধ্যে একজন মো. নিজাম খান। যিনি তিন যুগের বেশি সময় ধরে কর্মরত আছেন রন্ধনশিল্পের সঙ্গে।

 

বর্তমানে এক্সিকিউটিভ শেফ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন নগরীর কপার চিমনি রেস্টুরেন্টে। তার সময়কালের মতোও দীর্ঘ সময় ধরে একই পেশায় নিজেকে জিয়ে রেখেছেন ফারুক আহমেদ। তিনি কর্মরত আছেন বনজৌর রেস্টুরেন্টের এক্সিকিউটিভ শেফ হিসেবে।

 

কথা প্রসঙ্গে নিজাম খান বলেন, একসময়ে বাবুর্চি দিয়ে হোটেল রেস্তোরাঁগুলো চালালেও বর্তমান সময়ে পাঁচতারকা হোটেল থেকে শুরু করে ছোটখাটো রেস্টুরেন্টেও তা পরিবর্তন হচ্ছে। বর্তমানে বাবুর্চির বদলে সবাই নিয়োগ দিচ্ছেন শেফ। কিন্তু দক্ষ প্রশিক্ষিত শেফের প্রচুর সংকট রয়েছে।

 

চট্টগ্রামে মাত্র ১০ থেকে ২০ শতাংশ অভিজ্ঞ ও দক্ষ শেফ আছেন উল্লেখ করে ফারুক আহমেদ বলেন, এক সময়ে এ পেশাকে অবহেলা করা হলেও এখন রন্ধনশিল্পের মর্যাদা অনেক। অনেক ধনাঢ্য পরিবারের সন্তানরাও এ পেশায় নিজেকে যুক্ত করছেন। অসংখ্য তরুণ-তরুণীও পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন শেফকে। বর্তমানে চট্টগ্রামের রেস্টুরেন্টগুলোতেও শিক্ষিত শেফের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। যদিও দক্ষ শেফের সংকটও আছে।

 

তবে ভবিষ্যতে এর কদর অনেক বাড়বে বলে আশা করা যায়। এমন বাস্তবতার মধ্যেই পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক শেফ দিবস। প্রত্যেকেরই সুস্থ, স্বাস্থ্যবান এবং সুস্বাদু খাবারের গুরুত্ব সম্পর্কে জানাতে বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালন করা হয়। বাংলাদেশে এখানেও সেইভাবে দিবসটি পালন করা না হলেও বিশ্বের অন্যান্য দেশে ঝাকজমকভাবে দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে। এ বছর সারাদেশের মতো চট্টগ্রামের বিভিন্ন রেস্টুরেন্টেও ঘরোয়াভাবে পালন করা হচ্ছে দিবসটি।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট