চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

১৯ অক্টোবর, ২০২২ | ৭:১১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আদালত অবমাননা রুল : নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন কক্সবাজারের ডিসি

সমুদ্রসৈকতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে হাইকোর্টের নির্দেশনা পালন না করায় কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মামুনুর রশীদ আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন। এ বিষয়ে আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে সৈকতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং ৯ নভেম্বরের মধ্যে এ বিষয়ে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১৯ অক্টোবর) হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এ সময় ডিসি মামুনুরকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এদিন আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। অন্যদিকে ডিসির পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি ও সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. মমতাজ উদ্দিন ফকির। ব্যাখ্যা দিতে সশরীরে হাইকোর্টে হাজির হন ডিসি মামুনুর রশীদ।

 

এর আগে ২৫ আগস্ট সমুদ্রসৈকত এলাকার অবৈধ দখল ও স্থাপনা উচ্ছেদ সংক্রান্ত উচ্চ আদালতের নির্দেশনা না মানার অভিযোগে কক্সবাজার জেলা প্রশাসককে তলব করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ডিসিসহ পাঁচজনের বিষয়ে আদালত অবমাননার রুল জারি করা হয়। একইসঙ্গে ডিসি মামুনুর রশীদকে সশরীরে আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে ১৯ অক্টোবর তারিখ ধার্য করে দেন।

যে ৫ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি করা হয় তারা হলেন- কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমেদ, উপ-পরিচালক, টাউন প্লানার তানভির হাসান, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মামুনর রশিদ, পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান ও কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মজিবর রহমান।

 

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি সমুদ্রসৈকতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়ে লিগ্যাল (আইনি) নোটিশ দেওয়া হয়েছিলো। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) সভাপতি জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনজিল মোরসেদ এ নোটিশ পাঠান। নোটিশে কক্সবাজারের ডিসিসহ পাঁচজনকে বিবাদী করা হয়।

নোটিশে বলা হয়েছিল, কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য অক্ষুণ্ন রাখতে সেখান থেকে সব অবৈধ দখল ও স্থাপনা উচ্ছেদ করার আবেদন জানিয়ে জনস্বার্থে এইচআরপিবি আদালতে রিট মামলা দায়ের করলে আদালত রায় দেন। রায়ে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকার অবৈধ দখল ও স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য নির্দেশনা দেন। জনস্বার্থ বিবেচনা করে হাইকোর্ট ২০১১ সালের ৭ জুন বিবাদীদের কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকার অবৈধ দখল ও স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ দিলেও তা সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন করা হয়নি।

 

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, কয়েকদিন আগে এইচআরপিবির প্রতিনিধি সমুদ্রসৈকত এলাকায় পর্যবেক্ষণে গেলে সৈকত এলাকায় অনেক অবৈধ দখল ও স্থাপনা দেখতে পান। যদিও এর আগে রায় হওয়ার পরে আদালতের নির্দেশে সব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছিল। বর্তমানে ওই দখল ও স্থাপনা ভাড়া দিয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। কিন্তু প্রশাসন এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না, যা আদালত অবমাননার সামিল।

 

পূর্বকোণ/এএস/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট