চট্টগ্রাম বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

১৮ অক্টোবর, ২০২২ | ১২:৪৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

এসাইকুডা সফটওয়্যারের আপডেটে ভোগান্তি, আইজিএম পাচ্ছে না বন্দর

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিয়ন্ত্রিত আমদানি-রপ্তানি’র শুল্কায়ন সফটওয়্যার এসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমটি আপগ্রেড করা হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ৮টা থেকে সফটওয়্যারটির পূর্বের ভার্সন ৪.৩.১ থেকে আপগ্রেড করে ৪.৩.৩ এ কনভার্ট করা হয়।

এজন্য ১২ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয় সফটওয়্যারটির কার্যক্রম। কিন্তু আপগ্রেড হওয়ার পর থেকে ভোগান্তিতে পড়ছে স্বয়ং বন্দর কর্তৃপক্ষ। কারণ শিপিং এজেন্টরা বিদেশ থেকে আসা জাহাজের তথ্য অর্থাৎ আইজিএম (ইমপোর্ট জেনারেল মেনিফেস্ট) সাবমিট করলেও কাস্টমস থেকে রোটেশন নম্বর দিয়ে বন্দরকে সেই আইজিএম পাঠাতে বিলম্ব হচ্ছে। ফলে জাহাজ এসে ঘাটে ভিড়লেও আইজিএম না পাওয়ায় জাহাজের পণ্য খালাস শুরু করতে বিলম্ব হচ্ছে।

গত রবিবার চট্টগ্রাম বন্দরের সিসিটি’র দুই নম্বর জেটিতে ভিড়ে ইএফ এমা নামের একটি জাহাজ। জাহাজটি জেটিতে আসার পরও রোটেশন নম্বর তথা আইজিএম বন্দর বরাবর দাখিল না হওয়ায় জাহাজ থেকে পণ্য খালাস শুরু করা যায়নি।

এমন পরিস্থিতিতে গতকাল চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস কমিশনারকে চিঠি দিয়েছে বন্দর। চিঠিতে জাহাজ জেটিতে বার্থ নেওয়ার ২৪ ঘণ্টা পূর্বে আইজিএম আপলোড করার ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক পূর্বকোণকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই নিয়ম অনুযায়ী জাহাজ জেটিতে বার্থিং পাওয়ার ২৪ ঘণ্টা পূর্বেই কাস্টমস জাহাজের রোটেশন নম্বর সম্বলিত আইজিএম আপলোড করে দিত। ওই নম্বর ধরেই বন্দরের পরিবহন বিভাগ জাহাজ থেকে পণ্য ওঠানামা কার্যক্রম চালায়। কিন্তু সম্প্রতি আইজিএম পেতে বিলম্ব হচ্ছে। ফলে জাহাজ এসেও পণ্য খালাসে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে। এই সমস্যার কথা জানিয়ে আমরা কাস্টমস কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জাহাজ জেটিতে আসার ২৪ঘণ্টার আগে আইজিএম আপলোড করার ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছি।

জাহাজ অপেক্ষায় থাকা প্রসঙ্গে বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি সৈয়দ মোহাম্মদ আরিফ পূর্বকোণকে বলেন, শিপিং এজেন্টগুলোকে জাহাজ বহির্নোঙ্গরে আসার পূর্বেই জাহাজে কতগুলো এবং কি পরিমাণ কি কি পণ্য এসেছে ওইসব তথ্য সম্বলিত আইজিএম কাস্টমসকে দিতে হয়।

আমাদের আইজিএম পাওয়ার পর কাস্টমস একটি রেজিস্ট্রেশন নম্বর /রোটেশন নম্বরসহ আইজিএম বন্দরের কাছে আপলোড করে পাঠায়। কিন্তু ইদানিং সফটওয়্যার আপগ্রেডেশনের পর থেকে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ সেটি আপলোড করতে দেরি করছে। ফলে জাহাজকে অপেক্ষায় থাকতে হয়। এই সমস্যা চলমান থাকলে জাহাজের লিড টাইম বেড়ে যাবে এবং ডেমারেজ গুণতে হবে।

এর আগেও মাঝেমধ্যে সার্ভার মাইগ্রেশন/আপগ্রেডেশন ও সফটওয়ারের নতুন ফিচার যুক্ত করতে এসাইকুডা বন্ধ রাখা হয়। মূলত সফটওয়্যারে পিন কোড জালিয়াতি করে প্রায় সময় মিথ্যা ঘোষণায় বিপুল পরিমাণ রাজস্ব ফাঁকি দিতে উচ্চ শুল্কের পণ্য আমদানি করে প্রতারক চক্র। পরে সেই লগইন সিস্টেমে মোবাইল নম্বরে ওটিপি পাঠানোর মাধ্যমে লগইন করার সিস্টেম চালু করা হয়।

তারপর প্রতারক চক্র আইপি জালিয়াতি শুরু করে। একাজে তারা ইপিজেডগুলোর আইপি ব্যবহার করে এসাইকুডার অপব্যবহার করে। ফলে এনবিআর ওইসব জালিয়াতি বন্ধে এবং আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত নতুন ফিচার যোগ করতে এসাইকুডার আপগ্রেডেশন করে। এবারও সফটওয়্যারের ভার্সন আপগ্রেড করা হয়েছিল। তবে এতে কিছু ত্রুটি পাচ্ছে সংশ্লিষ্টরা।

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট