চট্টগ্রাম রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২

৮ অক্টোবর, ২০২২ | ৬:২০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন’র বৈজ্ঞানিক সেমিনারে বক্তারা

বক্ষব্যাধি রোধে চাই উন্নত চিকিৎসা ও বৈজ্ঞানিক গবেষণার বিশ্বব্যাপী সমন্বয়

২০২০ সাল পর্যন্ত বিশ্বের দেড় মিলিয়ন মানুষ যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এছাড়া বাংলাদেশে গড়ে প্রতিদিন ৯৮৬ জন মানুষ যক্ষ্মাজনিত রোগে আক্রান্ত হয় এবং গড়ে ১২১ জন রোগী মারা যায়। তাই ফুসফুসজনিত (বক্ষব্যাধি) রোগের প্রকোপ থেকে মুক্তির জন্য প্রয়োজন উন্নততর রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা, চিকিৎসাসেবা, জনসচেতনতা এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার বিশ্বব্যাপী সমন্বয়।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় নগরীর অভিজাত হোটেল পেনিনসুলায় বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন (বিএলএফ) আয়োজিত ‘পালমনোলোজি আপডেটস : স্টেপ টুওয়ার্ডস হেলদি লাং’ বিষয়ক সাইন্টিফিক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের (চমেক) বক্ষব্যাধি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ডা. সরোজ কান্তি চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএলএফ’র সভাপতি প্রথিতযশা বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ এবং জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের প্রাক্তন পরিচালক অধ্যাপক মো. আলী হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের (চমেক) বক্ষব্যাধি মেডিসিন বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান ডা. সাইফুদ্দিন চৌধুরী, বিএলএফ’র সহাসচিব ডা. আসিফ মুজতাবা মাহমুদ, বক্ষব্যাধি বিষয়ক সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. কিউ এম ওহিদুল আলম ও ডা. মো. শাহাদাত হোসাইন।

সাইন্টিফিক আলোচনায় শ্বাসজনিত রোগে লিবা-লামা-আইসিএস এর ট্রিপল কম্বিনেশনের ওষুধের ব্যবহার, বিভিন্ন টুলস যেমন এক্সরে ও টিউবারকুলোসিস (যক্ষ্মা) এর নানা চ্যালেঞ্জ বিষয়ে আলোচনা ও বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা তুলে ধরা হয়। বিএলএফ’র প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডা. আশরাফুল আলম খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের সাইন্টিফিক সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএলএফ’র যুগ্ম সম্পাদক ডা. কাজী সাইফউদ্দীন বেন্নুর। এসময় বিষয়ভিত্তিক আলোচনায় স্লাইড প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বক্ষব্যধি বিষয়ক আলোচনা করেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের বক্ষব্যাধি মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বিএলএফ’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ডা. হেনা খাতুন, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. ফেরদৌস ওয়াহিদ ও বিএলএফ’র কোষাধ্যক্ষ ডা. আবদুস শাকুর খান। এছাড়া প্যানেল আলোচনায় বক্তব্য রাখেন চমেকে’র বক্ষব্যাধি মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. ইলিয়াস ও ডা. কৃষ্ণা স্বরূপ দত্ত। এছাড়া অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের চিকিৎসক এবং বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞগণ। সেমিনারটির সার্বিক সহায়তা করেন খ্যাতিমান ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এরিস্টোফার্মা লিমিটেড।

অনুষ্ঠান শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এরিস্টোফার্মা লিমিটেডের এসিস্টেন্ট জেনারেল ম্যানেজার (সেলস) বিশ্বজিৎ কুমার সৌম। অনুষ্ঠান শেষে আমন্ত্রিত সকল অতিথিদের নিয়ে র‌্যাফেল ড্র’তে বিজয়ীকে পুরস্কৃত করা হয়। উল্লেখ্য, সমন্বিতভাবে বক্ষব্যাধি নিরাময়ের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশের বক্ষব্যাধি সংগঠনগুলোর আন্তঃমহাদেশীয় উদ্যোগে গঠিত সংগঠন ‘ফোরাম অব ইন্টারন্যাশনাল রেসপিরাটরি সোসাইটিস’ (এফআইআরএস) এর সূচনা লগ্নে ঘোষিত ‘চার্টার ফর লাং হেলথ’-এ স্বাক্ষর প্রদানকারী বাংলাদেশ থেকে একমাত্র সংগঠন হিসেবে যুক্ত হয় বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন। যা বিশ্বের অন্যান্য দেশেও সুপরিচিত একটি সংগঠন। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন (বিএলএফ) বাংলাদেশের বক্ষব্যাধি চিকিৎসকদের সর্ববৃহৎ এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান। যা বিগত ১৫ বছর ধরে শ্বাসতন্ত্রের সুস্থতা নিশ্চিতকরণের জন্য কাজ করে আসছে। বিএলএফ ‘এশিয়া-প্যাসিফিক সোসাইটি অব রেসপাইরোলজি’ (এপিএসআর)-এর সম্মানজনক এন-ব্লক মেম্বার।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট