চট্টগ্রাম শনিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

৫ অক্টোবর, ২০২২ | ১০:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নাজিম মুহাম্মদ

৯ সেবা মিলছে ঘরে বসেই

ঘরে বসেই মিলছে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) নয় ধরনের সেবা। এতে যুক্ত হচ্ছে আরো একটি সেবা। এতদিন যে সার্কেল থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি করা হতো সেই সার্কেলেই নবায়ন করা বাধ্যতামূলক ছিল। তবে এখন থেকে যে কোনো সার্কেল থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার সুযোগ পাচ্ছেন গ্রাহকরা। তবে অনলাইনে আবেদন করলেই মিলছে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স। গত জুলাই মাসে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের মাসিক বৈঠকে বিআরটিএ’র সেবা নিয়ে নানা অভিযোগ উঠে।

বৈঠকে বলা হয়, ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান বিষয়টির জটিলতা নিরসন করতে হবে। বিআরটিএ’র প্রতি বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। সেখানে সেবা গ্রহীতাদের এখনও ভোগান্তি আছে। বিআরটিএ’তে ‘সর্ষের মধ্যে ভূত’ আছে। অনলাইনে কিছু সেবা পাচ্ছে জনগণ, অন্যান্য সেবাগুলোও অনলাইন বা প্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে।

 

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক বেগম রায়হানা আক্তার উর্থি জানান, যে কোন সার্কেল থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের কাজ এখনো শুরু হয়নি। তবে শীঘ্রই শুরু হবে। বিআরটিএ চেয়ারম্যান বৈঠকে জানান, বিআরটিএ অফিসে না গিয়ে সরাসরি অনলাইন সিস্টেম থেকে তাৎক্ষণিকভাবে অবেদনকারি সিস্টেম জেনারেটেড লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে পারে। ড্রাইভিং কম্পিটেন্সি টেস্ট বোর্ড (ডিসিটিবি) এর সংখ্যা বৃদ্ধি এবং ক্ষেত্র বিশেষে সিলিং (পরীক্ষার্থীর নির্ধারিত সংখ্যা) বৃদ্ধিসহ নিয়মিত ডিসিটিবি বোর্ড পরিচালনা করা হচ্ছে। ডিসিটিবি বোর্ড গৃহীত পরীক্ষার ফলাফল পরীক্ষার দিন শেষে অনলাইনে প্রকাশ করা হয়। যে কারণে পরের দিনই আবেদনকারী ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন করতে পারে। ড্রাইভিং লাইসেন্স সিস্টেমে অ্যাপ্রুভ হওয়ার সাথে সাথেই গ্রাহকের মোবাইলে মেসেজ পাঠানো হয়। ড্রাইভিং লাইসেন্স সার্কেলে রিসিভ হওয়ার সাথেই আবেদনকারির মোবাইলে মেসেজ পৌঁছে যায়। এতে ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহ করতে সমস্যা হয় না।

বিআরটিএ চেয়ারম্যান জানান, দক্ষ ড্রাইভার তৈরি করতে নিয়মিত ড্রাইভিং স্কুল নিবন্ধন করা হচ্ছে। বর্তমানে দেশে বিআরটিএ অনুমোদিত ১৪৭টি ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুল নিবন্ধন করা হয়েছে। ড্রাইভিং ইন্সট্রাক্টর বোর্ডের মাধ্যমে ৭২৪টি ইন্সট্রাক্টর লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। স্কিল ফর এমপ্লইমেন্ট এন্ড ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইআইপি) প্রকল্পের আওতায় এক লাখ অভিজ্ঞ পেশাদার চালক তৈরি করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

 

অনলাইনে মিলে ৯ সেবা : বিআরটিএ পোর্টাল ‘বিএসপি’ ব্যবহার করে অনলাইনে নয় ধরনের সেবা পাওয়া যায়। তা হলো, শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স,রাইড শেয়ারিং সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের এনলিস্টমেন্ট সনদ ইস্যু ও নবায়ন, মোটারযানের নিবন্ধনের আবেদন দাখিল, ফিটনেস সনদ বা নবায়নের পর সময় গ্রহণ, ড্রাইভিং কম্পিটেন্সি পরীক্ষার ফলাফল জানা, নিবন্ধিত মোটরযানের জরিমানাসহ বিভিন্ন ফি জানা, ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড ও মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ, রকেট ব্যবহার করে মোটরযান নিবন্ধন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি অনলাইনে জমা দেয়া এবং মোটারযান ড্রাইভিং লাইসেন্স সংক্রান্ত ফি জমার ব্যাংকের শাখা ও বুথের তথ্য জানা।

 

চট্টগ্রাম বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক তৌহিদুল হোসাইন জানান, ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে গ্রাহককে তিন ধাপে কাজ করতে হয়। প্রথম ধাপ হলো আবেদন করে শিক্ষানবিশ (লার্নার) লাইসেন্স নেয়া। এরপর পরীক্ষা দিয়ে পাশ করলে বায়োমেট্রিক নিতে হয়। এসব কাজের জন্য আগে প্রতিবারই গ্রাহককে সংশ্লিষ্ট বিআরটিএ অফিসে যেতে হতো। এখন শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে গ্রাহককে বিআরটিএতে যেতে হয় না। অনলাইনে আবেদন করে নিতে পারে। তবে পরীক্ষা আর বায়োমেট্টিক দিতে বিআরটিএ’তে আসতে হবে।
বিআরটিএ’র এ কর্মকর্তা বলেন, শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে আগে প্রতিদিন ২/৩’শ গ্রাহক ভিড় করতো বিআরটিএ’তে। এতে মানুষের ভোগান্তিও হত- এখন তা নেই।

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট