চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১২:৫৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রামে অপহৃত কিশোরী দুই মাস পর উদ্ধার, নারীসহ গ্রেপ্তার ৩

চট্টগ্রাম নগরীর ডবলমুরিংয়ে অপহৃত কিশোরীকে কুমিল্লা থেকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৭। এ সময় অপহরণের অভিযোগে মো. মনির হোসেন ও তার দুই সহযোগীকে ৩ হাজার ৭৫২ ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তাররা হলো- কুমিল্লার বাঙ্গরাবাজার এলাকার হায়দারাবাদ গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে মনির হোসেন (৩৫), সকিনা আক্তার ওরফে ফারজানা (৩০) ও শিমুল আক্তার (৪০)।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) রাত ৩টায় কুমিল্লার কোতোয়ালীর দৌলতপুর এলাকার একটি ফ্ল্যাট বাসা থেকে ভিকটমকে উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, অপহৃত কিশোরী পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে। বাবা মারা যাওয়ার পর তার আর পড়ালেখা করার সুযোগ হয়নি। মনির হোসেন তার মায়ের ভাগিনা হয়। সে সুবাধে প্রায়ই ভিকটিমদের বাড়িতে তার যাওয়া-আসা ছিল। গত কয়েক মাস আগে মনির হোসেন তার আগের তিনটি স্ত্রী থাকা সত্ত্বেও ভিকটিমকে বিয়ের প্রস্তাব দেয় মায়ের কাছে। ভিকটিমের মা সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয় এবং তার মেয়ের সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ কিংবা উত্যক্ত না করার জন্য নিষেধ করে। এতে মনির ক্ষিপ্ত হয়ে যেকোন সময় তার মেয়েকে তুলে নিয়ে যাবে বলে হুমকি দেয়।

র‌্যাব আরও জানায়, গত ২২ জুলাই দুপুরে ভিকটিম বাসা থেকে বের হলে মনি পূর্বপরিকল্পিভাবে ভিকটিমকে ফুসলিয়ে অপহরণ করে। সন্ধ্যা পর্যন্ত বাসায় না ফিরলে মেয়েকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজা শুরু করে। পরে ওইদিন রাতে ডবলমুরিং থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করে। পরে ভিকটিমের মা তার বোনের কাছ থেকে জানতে পারে মনির হোসেন তার সহযোগী রাকিবের সহায়তায় তার মেয়েকে অপহরণ করেছে। এ ঘটনায় তিনি ২৮ জুলাই ডবলমুরিং থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার বলেন, অপহরণের বিষয়টি আমাদের জানালে আমরা গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল সোমবার কুমিল্লার দৌলতপুরে একটি ফ্ল্যাট বাসা থেকে অপহৃত কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। এছাড়া অপহরণের সাথে জড়িত মনির হোসেনকে তার দুই নারী সহযোগীসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৩ হাজার ৭৫২ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়- মনির তার সহযোগী রাকিবের সহায়তায় দুই মাস আগে ওই কিশোরীকে অপহরণ করে কুমিল্লায় নিয়ে আসে। সেখানে একটি ফ্ল্যাটে আটকে রেখে মাদকাসক্ত করে মাদক পাচারের কাজে ব্যবহার করার চেষ্টা করে তাকে। গ্রেপ্তার মনির ও তার দুই নারী সহযোগীকে কুমিল্লার কোতোয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। উদ্ধার কিশোরীকে ডবলমুরিং থানায় হস্তান্তর করা হয়।

পূবকোণ/পিআর/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট