চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

৭ আগস্ট, ২০২২ | ৮:৩৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রামে পাহাড় কেটে নির্মিত স্থাপনা ভেঙে ফেলার নির্দেশ হাইকোর্টের

চট্টগ্রাম মহানগরীর বায়েজিদ বোস্তামী, আকবরশাহ, খুলশীসহ বিভিন্ন এলাকায় নির্বিচারে পাহাড় কেটে তৈরি করা ঘর ও অন্যান্য স্থাপনা ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, পরিবেশ অধিদপ্তর, চট্টগ্রামের পরিচালক ও জেলা প্রশাসককে (ডিসি) সার্বক্ষণিক তদারকি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রবিবার (৭ আগস্ট) মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের করা (এইচআরপিবি) এ সংক্রান্ত রিটের শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচাপতি মজিবুর রহমান মিয়া ও কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দ এ নির্দেশ দেন। এতে তিন মাস পরপর এ বিষয়ে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্যও বলা হয়েছে।

অন্যদিকে, পাহাড় কেটে ঘর-স্থাপনা তৈরির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনের ১৫ ধারায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, পরিবেশ অধিদপ্তর, চট্টগ্রামের পরিচালক ও ডিসিকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিয়ে আগামী একমাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, এ বিষয়ে রুলও জারি করেছেন আদালত। রুলে পাহাড় কেটে ঘর ও অন্যান্য স্থাপনা তৈরি বন্ধে প্রশাসনের ব্যর্থতা ও নিষ্কৃয়তা কেন বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। এছাড়া, রুলে পাহাড় কাটা বন্ধে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, আর কর্তনকৃত পাহাড় আগের রূপে ফিরিয়ে আনার নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে শুনানি করেন এইচআরপিবির চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দ রায়।

এর আগে, বায়েজিদ বোস্তামীতে পাহাড় কেটে বানানো প্লটে দালান নির্মাণ করে পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ নেওয়া হয়েছে। এমনকি, প্লটের নিরাপত্তায় সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে অভিযোগ তুলে গত ১ আগস্ট হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট করা হয়। ওই রিটের শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন আজ।

চট্টগ্রামের জেলা প্রসাশক মো. মমিনুর রহমান বলেন, পাহাড়ে শত শত ঘরে হাজারও মানুষের বসবাস। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে প্রশাসনের পক্ষ থেকে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়, কিন্তু অভিযান শেষ হলেই বাসিন্দারা আবার ফিরে আসেন। তাই এখন বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে পাহাড় রক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

পূর্বকোণ/রাজীব/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট