চট্টগ্রাম শনিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২২

সর্বশেষ:

৪ আগস্ট, ২০২২ | ৪:৫১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

কাঁচামরিচের ডাবল সেঞ্চুরি পার

এবার বাজারে ঝাল ছড়াচ্ছে কাঁচামরিচ। এক লাফে ডাবল সেঞ্চুরি পার করেছে রান্নায় নিত্য প্রয়োজনীয় এ উপকরণটি। তিনদিনের ব্যবধানে বাজারে কাঁচামরিচের দাম কেজিতে বেড়েছে ৯০ টাকা। মরিচ নিয়ে বাজারে ক্রেতা বিক্রেতাদের বাগবিতণ্ডা যেন লেগেই আছে। দর কষাকষি করেও খুব একটা লাভ হচ্ছে না।

 

নগরীর রিয়াজউদ্দিন কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ীরা বলেন, চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কমে যাওয়ায় কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে। বৃষ্টির কারণে উৎপাদন কম হওয়ায় চকরিয়া থেকে কাঁচামরিচ আসছে না। বর্তমানে এখানকার বাজারে যেসব মরিচ পাওয়া যাচ্ছে তা উত্তরবঙ্গসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা। এ কারণে বেড়েছে পরিবহন খরচও। তাই বেড়েছে মরিচের দাম। রিয়াজউদ্দিন বাজারের কাঁচামরিচ ও গাজরের আড়তদার নুর ইসলাম বলেন, ‘আড়তে গতকাল বুধবার কাঁচামরিচ বিক্রি হয়েছে কেজি ১৮৫ টাকা দরে। এরআগের দিন মঙ্গলবার ১৬০ টাকা ছিল।’

 

গতকাল বুধবার সকালে নগরীর বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে কাঁচামরিচ ২৩০-২৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অথচ গত তিনদিন আগেও মরিচের মূল্য ছিল ১৪০-১৫০ টাকা। এক লাফে কাঁচামরিচের দাম কেজিতে বেড়েছে ৯০ টাকা। গতকাল বাজারে ১/২ দিনের বাসি কাঁচামরিচ বিক্রি হয়েছে ২২০-২৩০ টাকায় এবং তাজা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকায়।

চকবাজারের ব্যবসায়ী রিপন বলেন, ‘অনেক আড়তে মরিচ পাওয়া যাচ্ছে না। যেখানে পাওয়া যাচ্ছে সেখানে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। তাই খুচরা পর্যায়েও মরিচের দাম বেড়েছে।’ এদিকে, বাজারে শুধু কাঁচামরিচই নয়, চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে শুকনো মরিচ। বাজারে দেশি শুকনা মরিচ ৩০০-৪০০ টাকায় এবং ভারতীয় মরিচ ৪২০-৪৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আহমেদ নেওয়াজ নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমরা পড়াশোনার জন্য শহরে চার বন্ধু মিলে ব্যাচেলর থাকি। নিজেরাই রান্না করে খাই। টিউশনির টাকায় পড়াশোনা ও থাকা-খাওয়া চালাই। এমনিতেই খুব কষ্ট হয় চলতে। তার উপর প্রতিদিনই বাড়ছে ভোগ্যপণ্যের দাম। কষ্টের কথা কাকে বলবো? এই যে গোড়াপঁচা বাসি মরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়।’

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট