চট্টগ্রাম শনিবার, ১০ জুন, ২০২৩

সর্বশেষ:

ডিটি রোড যেন ‘মৃত্যুফাঁদ’

নাজিম মুহাম্মদ

২৯ মে, ২০২২ | ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে নগরীর ঢাকা ট্রাঙ্ক (দেওয়ানহাট-অলংকার অংশ) রোড। লং ভেহিক্যাল আর স্ক্র্যাপবাহী ভারী যানবাহনের ধাক্কায় ২০ দিনে এ সড়কে এক কলেজ শিক্ষার্থীসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ গত ২০ মে দিবাগত রাত তিনটায় ডিটি রোড আবুল বিড়ি ফ্যাক্টরির সামনে একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে থাকা বিদ্যুতের খুঁটিতে ধাক্কা লাগলে খুঁটি ভেঙে যায়। এসময় পুরো এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। প্রায় তিন ঘণ্টা পর ভোর তিনটায় বিদ্যুৎ আসে।

স্থানীয় লোকজন জানান, ডিটি রোড কাঁচা রাস্তা থেকে বারো কোয়ার্টার পর্যন্ত সড়কটিতে ঘটছে দুর্ঘটনা। ওই এলাকায় সড়কের একপাশ দখল করে ভারী যানবাহন পার্কিং করে রাখা হয়। এতে বেড়েছে দুর্ঘটনার ঝুঁকি। এর আগে একইস্থানে গত ১৬ লং ভ্যাহিকেলের ধাক্কায় সিএনজি ট্যাক্সি চালক মো. হানিফ মুন্সি (২৪) নিহত হন। এর আগে গত ১০ মে মনসুরাবাদ পাসপোর্ট অফিসের সামনে স্ক্র্যাপ বহনকারি ট্রাকের ধাক্কায় বন্দরের কর্মচারী আবু বক্কর সিদ্দিক ও গত ২৬ এপ্রিল ডবলমুরিং থানার সামনে হাবিবুর রহমান নামে এক কলেজ ছাত্র নিহত হয়। সড়কটিতে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার দাবি জানিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে স্থানীয় লোকজন।

এতে বলা হয়েছে, নগরীর দেওয়ানহাট থেকে অলংকারমুখী সড়কটিতে লং ভ্যাহিকেল ও স্ক্র্যাপবহনকারি ভারী যানবাহন চলাচল করায় ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে পথচারীরা। বিশেষ করে স্ক্র্যাপবহনকারি যানবাহন ঝুঁকির মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, লং ভ্যাহিকেলগুলো আগে পোর্ট কানেক্টিং রোড (পিসিরোড) দিয়ে চলাচল করত। প্রায় পাঁচ বছর আগে পিসি রোডের সংস্কার কাজ শুরু হলে ভারী যানবাহনগুলো দেওয়ানহাট- পাহাড়তলি হয়ে চলাচল করছে। সম্প্রতি পিসি রোডের সংস্কার কাজ সম্পন্ন হলে যানবাহন চলাচলের জন্য সড়কটি খুলে দেয়া হয়েছে। অথচ দেওয়ানহাট হয়ে ভারী যানবাহনগুলোর চলাচল বন্ধ হয়নি।

মনসুরাবাদ এলাকার বাসিন্দা জিয়াউদ্দিন রানা বলেন, লং ভ্যাহিকেল ও স্ক্র্যাপবহনকারি ভারী যানবাহনগুলো পিসি রোড ব্যবহার করতে পারে। দেওয়ানহাট হয়ে অলংকার পর্যন্ত সড়কটি ভারী যানবাহন চলচলের উপযোগী নয়।

নগর ট্রাফিকের পশ্চিম জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) তারেক আহমেদ জানান, পিসি রোডের সংস্কার কাজ চলার কারণে দেওয়ানহাট-অলংকার সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল করছে তা কিন্তু নয়। দীর্ঘদিন ধরে এ সড়ক দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল করছে।

সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত নগরীতে ভারী যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ থাকা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ডিসি তারেক আহমেদ জানান, নগরীর জাকির হোসেন রোড কিংবা অন্য সড়কগুলোতে দিনের বেলায় ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে বন্দর কিংবা মাঝিরঘাট থেকে দিনের বেলায় যেসব ভারী যানবহন চলাচল করে তাদেরকে নগরী থেকে বের হতে দেওয়ানহাট থেকে অলংকারমুখী সড়কটি ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট