চট্টগ্রাম শনিবার, ০৬ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

২৭ জুলাই, ২০১৯ | ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, বান্দরবান

আ.লীগ নেতা হত্যা মামলায়

আটক যুবকদ্বয়ের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী

বান্দরবানের লামায় আ.লীগ নেতা মো. আলমগীরের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে আটককৃতরা হত্যার কথা স্বীকার করেছে। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার গৌরস্থান এলাকা থেকে সাইমন ত্রিপুরা (২৩) ও বান্দরবানের চিম্বুক এলাকা থেকে বীর বাহাদুর ত্রিপুরা (২৫) নামের দুই যুবককে আটক করে পুলিশ। আটককৃত সাইমন ত্রিপুরা আলমগীর হত্যার সাথে সম্পৃক্ততার কথা জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

পুলিশ জানায়, ৮ জনের একটি গ্রুপ রাতে হাসনা ভিটা এলাকায় দুটি ভাগে ভাগ হয়ে আলমগীরের উপর আক্রমণ করে। পরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। বৃহস্পতিবার রাতে লামা উপজেলার সরই ইউনিয়ন আ.লীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলমগীরকে সন্ত্রাসীরা তার খামার বাড়ির কাছে কুপিয়ে হত্যা করে।

লামা থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, আলমগীর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে দুই যুবককে আটক করার পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে সাইমন ত্রিপুরা হত্যাকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে। তবে তাদের ভাড়াটিয়া খুনি হিসেবে হত্যার পরিকল্পনাকারীরা ব্যবহার করেছে বলে তারা জানিয়েছে।

এদিকে, হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড লোহাগাড়া উপজেলার দৈনিক যুগান্তরের প্রতিনিধি সাংবাদিকের মো. সেলিমের নাম ‍উঠে এসেছে। তদন্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, নিহত আ.লীগ নেতা মোহাম্মদ আলমগীর সাথে জায়গাজমি নিয়ে সাংবাদিক সেলিমের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। সাংবাদিক সেলিম ছাড়াও আরো বেশ কয়েকজনের নাম তদন্তে উঠে এসেছে।  ঘটনার পর থেকে সাংবাদিক সেলিম পলাতক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, এ বিষয়ে কথা বলার জন্য সাংবাদিক সেলিমের মোবাইলে বেশ কয়েকবার ফোন দিলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

পূর্বকোণ/মিনার-রাশেদ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 295 People

সম্পর্কিত পোস্ট