চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

২৭ জুলাই, ২০১৯ | ২:১১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা হ পটিয়া

বাল্য বিয়ে বন্ধ পটিয়ায় প্রবাসী বরকে কবুল বলতে দিল না ইউএনও

পটিয়া উপজেলার বড়লিয়া ইউনিয়নের প্রবাসী আফসার উদ্দিন অপুকে কবুল বলতে দিল না উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুল হাসান। বাল্য বিয়ের কারণে কনের পিতাকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। কনে উপজেলার মনসা স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্রী। কনের ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুল হাসান অভিযান চালিয়ে বাল্য বিয়েটি বন্ধ করে দিয়েছেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কুসুমপুরা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ইব্রাহিম বাচ্চু। গতকাল শুক্রবার কনের বাড়ি উপজেলার মনসা এলাকায় আকদ্ অনুষ্ঠান চলাকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেন। বাল্য বিয়ের কবুল বলার আগেই পটিয়ার ইউএনও হাজির হওয়াতে বিয়ে বন্ধ হয়ে যায়।
জানা গেছে, উপজেলার কুসুমপুরা ইউনিয়নের মনসা গ্রামের মো. মহসিনের স্কুল পড়–য়া কন্যা সুমাইয়া সঙ্গে বড়লিয়া ইউনিয়নের হাজী সালেহ আহমদ সওদাগরের প্রবাসী পুত্র আফসার উদ্দিন অপুর সঙ্গে বিয়ে ঠিক করা হয়। গতকাল শুক্রবার কর্ণফুলী উপজেলার রিভার ভিউ কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বর ও কনের পক্ষের জন্য ভোজনের ব্যবস্থা করা হয়। কুসুমপুরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইব্রাহিম বাচ্চু জানিয়েছেন, বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে বর ও কনের পক্ষের জন্য যে খাবারের আয়োজন করা হয়েছে তা স্থানীয়দের খাবানো হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান জানিয়েছেন, ভুল তথ্য দিয়ে কুসুমপুরা ইউনিয়ন থেকে সুমাইয়া জন্মসনদ নিয়েছে। এতে ১৮ বছর পূর্ণ দেখানো হয়েছে। কিন্তু জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেটে জন্ম তারিখ ভিন্ন রয়েছে। এতে সন্দেহ হয়েছে। যার কারণে চেয়ারম্যানের দেওয়া জন্মসনদ বাতিল করতে তিনি (ইউএনও) নিয়ে নিয়েছেন। বাল্য বিয়ের কারণে তার পিতাকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে এবং ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার পর বিয়ে দেওয়ার অঙ্গীকার নেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 310 People

সম্পর্কিত পোস্ট