চট্টগ্রাম সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

২৫ জুলাই, ২০১৯ | ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আনন্দের মাঝে লুকিয়ে আছে দুঃখ

১৬ নং চকবাজার ওয়ার্ড

কয়েকজন মিলে করছে গল্প, কেউবা করছে ছুটাছুটি আর কেউ হৈ-হুল্লোড়। সকাল দশটার আগেই ভরপুর বিদ্যালয় অঙ্গন। নগরীর কাপাসগোলা সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দৃশ্য এটি। এখানে শুধু উচ্চ বিদ্যালয়ই নয় আছে একটি মহিলা কলেজ ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ছষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণিতে প্রায় ২৮০০ জন ছাত্রী, কলেজে ৩৫০০ জন ছাত্রী ও প্রাইমারিতে প্রায় হাজারের উপরে শিক্ষার্থী রয়েছে। বিদ্যালয়ের পরিবেশ বেশ আনন্দঘন। কিন্তু এই আনন্দের মাঝে লুকিয়ে আছে দুঃখও। যা শিক্ষার্থীদের শিক্ষার উপর ফেলছে বিরূপ প্রভাব। সামান্য জোয়ার আর বৃষ্টি হলেই বিদ্যালয় ভবনের নিচতলা পানিতে ডুবে যায়। এমন অবস্থায় শিক্ষার্থীদের ক্লাসও করতে হয়। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারজানা, সিনথিয়া, আদিবা, তাবাচ্ছুম ও সুমি বলেন, আমাদের বিদ্যালয়টি পড়াশোনায় খুব ভালো। আমাদের শিক্ষক শিক্ষিকারা আমাদের ভালোভাবেই পড়াশোনা করান। এখান থেকে যারা পাশ করে বের হয়েছেন তারা ভালো ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন। তবে আমাদের বিদ্যালয়ের নিচতলায় প্রতিদিন জোয়ার আসলেই পানি উঠে। আর বর্ষাকালে প্রায় সময়ই পানি জমে থাকে। তাই আমাদের ক্লাস করতে কষ্ট হয়। নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী নাবিলার মা আয়শা সিদ্দিকা বলেন, এখানে মেয়েকে পড়ানোর জন্য আমার প্রথম থেকেই ইচ্ছা ছিল। কারণ স্কুলটি এলাকায় খুব নামী। আমার মেয়ে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে এখানে ভর্তি হয়। শিক্ষকরা খুব যত্ন করেই পড়াশোনা করায় শিক্ষার্থীদের। শিক্ষার্থীরাও ভালো ফলাফল করে। কিন্তু বৃষ্টি হলে বিদ্যালয় পানি উঠার কারণে বিদ্যালয়টি বন্ধ থাকে। আর এখানের নিচতলার পরিবেশ খুব খারাপ যা সিটি কর্পোরেশনের খেয়াল করা দরকার। কাপাসগোলা সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলাউদ্দিন বলেন, এখানে ভবনের নিচতলায় পানি উঠে। আমি প্রতিদিনই টাকা দিয়ে পানি পরিষ্কার করাই। এলাকার সড়কগুলো উঁচু করায় বিদ্যালয়ে নিচু অংশে পানি জমে যায়।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 205 People

সম্পর্কিত পোস্ট