চট্টগ্রাম রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

সর্বশেষ:

২৩ জুলাই, ২০১৯ | ২:০৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

শ্রমিকদের হামলা-মারধরের অভিযোগ

রাঙামাটি-খাগড়াছড়িসহ উত্তর চট্টগ্রামে আজ থেকে গণপরিবহন ধর্মঘট

নগরীর অক্সিজেন মোড়ে বাস মালিক-শ্রমিকদের মারধর ও বাস ভাঙচুরের অভিযোগে রাঙামাটি-খাগড়াছড়িসহ উত্তর চট্টগ্রামের বিভিন্ন রুটে আজ মঙ্গলবার থেকে যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন শ্রমিকরা। তাদের দাবি, অবৈধ ট্যাক্সি বন্ধ ও হামলাকারীদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।
বাস মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের দাবি, গতকাল সোমবার বিকেল ও রাতে দুই দফায় বাস মালিক ও শ্রমিকদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে ১৭ জন শ্রমিক আহত হন। সিএনজিচালিত অটো ট্যাক্সিচালক ও টোকেনদাতা স্থানীয় সন্ত্রাসীরা মিলে তাদের উপর হামলা চালিয়েছে।
চট্টগ্রাম-নাজিরহাট ও খাগড়াছড়ি বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম জানান, ধর্মঘট বা অবরোধ নয়, বাস মালিক ও শ্রমিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে নিরাপত্তার স্বার্থে শ্রমিকেরা বাস না চালানোর ঘোষণা দিয়েছে। তিনি আরও বলেন, টোকেন নিয়ে রাস্তায় অবৈধভাবে চলাচলরত সিএনজিচালিত ট্যাক্সি চলাচল বন্ধ করা এবং হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে শাস্তির আওতায় না আনা পর্যন্ত বাস চলাচল থেকে বিরত থাকার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।
জানা যায়, বিকেল ৪টার দিকে অক্সিজেন এলাকায় বাস ও সিএনজি ট্যাক্সি চালকদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ৭ বাস চালক-হেলপার আহত হয়। স্থানীয়ভাবে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। হামলায় আহত বাস শ্রমিকরা এই বিষয়ে ডিসি ট্রাফিকের কাছে অভিযোগ করে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ডিসি ট্রাফিকের কার্যালয় থেকে ফিরে অক্সিজেন মোড় এলাকায় গেলে দ্বিতীয় দফায় হামলা চালানো হয়। এতে একটি বাস ভাঙচুর করা হয়েছে বলে দাবি বাস মালিক সমিতির। এসময় ১০ জন শ্রমিক আহত হয়েছে বলেও দাবি তাদের। আহতদের মধ্যে সুমন ও আজম নামে দুই বাস চালককে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুই মালিক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অন্যদের নাম পাওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে বায়েজিদ-বোস্তামী থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
বাস শ্রমিকেরা জানায়, বিকেল ৪টার দিকে হামলার পর আধা ঘণ্টা বাস চলাচল বন্ধ ছিল। ট্রাফিক পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশ্বাসে ফের বাস চলাচল শুরু হয়। কিন্তু দ্বিতীয় দফায় হামলার পর নিরাপত্তার স্বার্থে পরিবহন চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
বাস মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের অভিযোগ, পুলিশের যোগসাজশে শ্রমিক সংগঠনের নামে টোকেন নিয়ে গ্রাম ট্যাক্সি নির্বিঘেœ শহরে চলাচল করছে। অক্সিজেন মোড় ও মুরাদপুর এলাকায় রাস্তা দখল করে এসব সিএনজি রাখা হয়। যার জন্য যানবাহন চলাচল বিঘিœত হয় এবং সড়কে যানজট লেগে রয়েছে।
বায়েজিদ থানার এসআই (উপ পরিদর্শক) মো. আজাদ হোসেন বলেন, বিকেল নাগাদ একটি সিএনজির সাথে বাসের ধাক্কা লাগার ঘটনা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে দুই পক্ষের শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে উভয়পক্ষকে শান্ত করে। তবে রাতে উভয়ের মধ্যে আবার ঝামেলা হয়েছিল। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 425 People

সম্পর্কিত পোস্ট