চট্টগ্রাম রবিবার, ২২ মে, ২০২২

সর্বশেষ:

২৫ জানুয়ারি, ২০২২ | ১২:৩৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

গোপনে স্ত্রীর লাশ দাফন করতে গিয়ে ধরা খেলেন চট্টগ্রামের রেলওয়ে কর্মকর্তা

গোপালগঞ্জে গোপনে স্ত্রীর মরদেহ দাফন করতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা খেয়েছেন চট্টগ্রাম রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. শাহ আলম। এ সময় তার সহযোগী লিওন সাহাকেও আটক করা হয়েছে।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) গোপালগঞ্জ পৌর কবরস্থান থেকে তাদের আটক করে পুলিশ।

চট্টগ্রাম রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. শাহ-আলমের বাড়ি কুমিল্লার বুড়িচং থানার শাহদৌলতপুর গ্রামে এবং তার সহযোগী লিওন সাহার বাড়ি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার পাটগাতি গ্রামে। তবে ওই নারীর বাড়ি বাগেরহাটের ফকিরহাটের বেতাগা গ্রামে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম। নিহত ওই নারীর নাম উম্মে সাইয়েদা (২৩)। তিনি চট্টগ্রাম রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. শাহ-আলমের স্ত্রী। চলতি বছর ১৩ জানুয়ারি তাদের বিয়ে হয়েছে এমনটি দাবি করেছেন ওই প্রকৌশলী।

মো. মনিরুল ইসলাম জানান, সোমবার ভোরে দাফন করার জন্য গাজীপুর থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে গোপালগঞ্জ পৌর কবরস্থানে আনা হয় ওই নারীর লাশ। এর আগে রাতেই কবর খুঁড়ে রাখা হয়। পরে কবর দিতে গেলে কবর স্থানের রেজিস্ট্রার মিজানুর রহমান ওই মৃত নারীর আইডি কার্ড অনুযায়ী পরিচয় জানতে চায়। এ সময় পরিচয় দিতে অস্বীকৃতি জানায় রেলওয়ে অফিসার শাহ-আলম ও তার সহযোগী লিওন সাহা। তারা কবর থেকে দ্রুত লাশ উত্তোলন করে অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই দুই জনকে থানায় নিয়ে যায় এবং মরদেহের ময়নাতদন্ত করতে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

ওসি আরও জানান, ওই দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. শাহ-আলম বলেন, লিওন সাহার মাধ্যমে তিনি উম্মে সাইয়েদা (২৩) নামের ওই নারীকে ১১ দিন আগে বিয়ে করেন। দুই দিন আগে হঠাৎ করে তার মৃত্যু হয়। প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও সন্তানদের কাছে এ বিষয়টি লুকানোর জন্য তিনি তার সহযোগী লিওনের মাধ্যমে লাশ দাফনের জন্য গোপালগঞ্জ নিয়ে আসেন।

পূর্বকোণ/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট