চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

২৩ জুলাই, ২০১৯ | ১:৫২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিডিএ মোড়ে ফুটওভার ব্রিজ স্থাপনের দাবি

ওয়ার্ড ১০ উত্তর কাট্টলি

নগরীর সিটি গেটের পূর্বে পাঁচটি এলাকা ও আশপাশে বসবাস প্রায় লক্ষাধিক মানুষের। এখানকার লোকজন সিটি গেটের অদূরের কর্নেলহাট সিডিএ’র এক নম্বর সড়ক দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গিয়ে ওঠেন। এরপর সেখান থেকে নানা গন্তব্যে যান তারা। কিন্তু ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিডিএ মোড়টি এখন প্রায় বিপজ্জনক হয়ে ওঠেছে। প্রতিদিনই হাজার হাজার মানুষ এ বিপজ্জনক অংশ দিয়ে রাস্তা পারাপার করছেন। ঝুঁকিপূর্ণভাবে রাস্তা পারাপার হলেও এই স্থানে নেই কোন জেব্রা ক্রসিং কিংবা ফুটওভার ব্রিজ। যার কারণে রাস্তা পারাপার হতে গিয়ে মাঝেমধ্যে দ্রুত গতির গাড়ির সাথে দুর্ঘটনার শিকারও হতে হচ্ছে তাদের। চলাচল নিশ্চিতে ঝুঁকিপূর্ণ এ স্থানে এখন ফুটওভার ব্রিজ স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন জনবহুল আবাসিক এই অঞ্চলের লোকজন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিডিএ আবাসিক এলাকার পূর্ব পাশেই রয়েছে বিশ্বব্যাংক আবাসিক এলাকা, নন্দন হাউজিং, শাপলা আবাসিক ও সিটি কর্পোরেশনের লেকসিটি আবাসিক এলাকা। এর পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আবাসিক এলাকা রয়েছে। জনবহুল এসব এলাকার লোকজনের যাতায়াতের প্রধানতম রাস্তা হচ্ছে সিডিএ আবাসিকের এক নম্বর সড়ক হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ওঠা। সেখান থেকে তারা শহরের বিভিন্ন এলাকায় যান। এই আবাসিক অঞ্চলটি দিন দিন এতো জনবহুল হয়ে পড়েছে যে সিডিএ’র এক নম্বর রোডের মুখটি এখন রীতিমতো অঘোষিত যানবাহন স্ট্যান্ড হয়ে গেছে। একদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দ্রুততম গাড়ি চলাচল আর অন্যদিকে শহর এলাকার বাস, মিনিবাস ও ছোট ছোট গণপরিবহণের জটলায় সিডিএ এক নম্বর সড়ক মোড়টি এখন জনদুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দ্রুততম গাড়ি চলাচলের মধ্যে মোড়টি দিয়ে যানবাহন ইউটার্ন নেয়ায় প্রায় দিনই দুর্ঘটনা ঘটছে। এরমধ্য দিয়ে লোকজনকে রাস্তা পার হতে হচ্ছে ঝুঁকি নিয়ে। এই এলাকার বহু ক্ষুদে শিক্ষার্থী রয়েছে যাদেরকে রাস্তা পারাপার করে থাকেন। কিন্তু মোড়টিতে নেই কোন জেব্রাক্রসিং। তাই একরকম জীবন হাতে নিয়েই ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের রাস্তা পার হতে হয়।
স্থানীয় বাসিন্দা সায়দুর রহমান পূর্বকোণকে বলেন, ‘এই মোড়ে হাজার হাজার মানুষ মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হতে হয়। গাড়িতে ওঠা-নামা করতে হয়। কিন্তু নেই কোন ফুটওভার ব্রিজ বা জেব্রা ক্রসিং। এখানে প্রায় সময় দুর্ঘটনাও ঘটে থাকে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আহবান জানাই’। ১০ নম্বর উত্তর কাট্টলি ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু পূর্বকোণকে বলেন, ‘ওই স্থানের একটু অদূরেই কর্নেলহাটে একটি ফুটওভার ব্রিজ রয়েছে। তা ঠিকমতো ব্যবহার হয় না। এখানে জেব্রা ক্রসিং আর ট্রাফিক ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে হবে। আমরা এ বিষয়ে ট্রাফিক বিভাগকে আগেও বলেছি। যেন মানুষের চলাচলে কোন সমস্যা না হয়, সে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে। ইতোমধ্যে এখানে একটি পুলিশ বক্স ও নিয়মিত পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। তবে সাধারণ মানুষকে সচেতন হওয়া দরকার। দেখা যায় তাড়াহুড়ো করে রাস্তা পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়। এ বিষয়টিও খেয়াল রাখা উচিত। এখানে জেব্রা ক্রসিং করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাথে কথা বলবো’।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 269 People

সম্পর্কিত পোস্ট