চট্টগ্রাম শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

সর্বশেষ:

১৪ জানুয়ারি, ২০২২ | ১:০০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক 

জরুরি, তবু মাস্কে গরজ নাই

আট ফুট প্রস্থের সরু গলিটিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। গলির দুই পাশে তৈরি পোশাকের দোকান। সেখানে চলছে শীত কাপড়ের জমজমাট বিকিকিনি। তবে গলি দিয়ে যাতায়াতকারী, দোকানের ক্রেতা-বিক্রেতা- অধিকাংশের মুখেই মাস্ক নেই। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে নগরীর জহুর হকার্স মার্কেটে গিয়েই দেখা মিললো এমন দৃশ্যের।

শুধু জহুর হকার্স মার্কেট নয়- পাশের রিয়াজ উদ্দিন বাজার, নিউ মার্কেট এলাকা ঘুরেও মাস্ক না পরা মানুষের আধিক্য দেখা গেছে। একই চিত্র ছিলো- টেরিবাজার, চকবাজারসহ নগরীর অন্য মার্কেটগুলোতেও। অভিজাত মার্কেটগুলোতে মাস্ক ছাড়া ঢুকতে কড়াকড়া আরোপ করা হলেও অনেকে থুতনিতে, গলায় মাস্ক নিয়ে ভেতরে কেনাকাটা করেন।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ ঠেকাতে নতুন করে ১১টি বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার। অফিস, আদালত, দোকান, শপিং মল, বাজার, হোটেল, গণপরিবহনসহ সবখানে সার্বক্ষণিক মাস্ক পরাকে গুরুত্ব দিয়ে এসব বিধিনিষেধ দেওয়া হয়। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার এসব বিধিনিষেধ প্রতিপালনের প্রথম দিনই মাস্ক ছাড়াই ঘরের বাইরে আসেন অনেককে।

প্রায় দুই বছর আগে দেশে করোনার সংক্রমণ শুরুর পর সংক্রমণ ঠেকাতে নানা সময়ে বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার।  এসব বিধিনিষেধ প্রতিপালনে জেলা প্রশাসন এবং নগর পুলিশের পক্ষ থেকে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসন এবং নগর পুলিশের বিশেষ কোনো অভিযান চোখে পড়েনি।

বন্দরনগরী চট্টগ্রামে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের হার ফের উদ্বেগজনক হারে বাড়ার পেছনে মার্কেট, রিকশায়, গণপরিবহনে, ফুটপাতে চলাচলের সময় মাস্ক না পরাকে দায়ী করছেন জনস্বাস্থ্য বিষেশজ্ঞরা। ওমিক্রণের সংক্রমণ হার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারের দেওয়া নতুন বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে প্রশাসনকে মাঠে নামার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পিযুষ কুমার চৌধুরী পূর্বকোণকে জানান, বৃহস্পতিবার নগরীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়নি। তবে সরকারি বিধিনিষেধ প্রতিপালনে উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান হয়েছে। ডিসি স্যারের নির্দেশনা অনুযায়ী নগরীতেও ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হবে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 232 People

সম্পর্কিত পোস্ট