চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২১

সর্বশেষ:

১৬ অক্টোবর, ২০২১ | ১২:১৩ অপরাহ্ণ

মিজানুর রহমান 

গ্যাস ‘বাঁচাতে’ নতুন উদ্যোগ

গ্যাস বাঁচাতে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রি-পেইড মিটারের জন্য এখন আর গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলোর দিকে চেয়ে থাকতে হবে না। খোলা বাজার থেকেই আবাসিক পর্যায়ের গ্রাহকরা প্রি-পেইড মিটার কিনতে পারবেন। এ জন্য সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি এ খাতে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সহায়ক পরিবেশ তৈরি করতে নীতিমালা সংশোধন করেছে জ্বালানি মন্ত্রণালয়।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর সংশোধিত নীতিমালা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করে জ্বালানি মন্ত্রণালয়। এর ফলে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি পর্যায়েও মিটার আমদানি ও উৎপাদন করা যাবে। দ্রুত গ্যাসের প্রি-পেইড বা স্মার্ট মিটারের টেকসই সংযোগ নিশ্চিত হবে। গ্যাসের অপচয় এবং সিস্টেম লস হ্রাস পাবে। গ্যাস সাশ্রয়ে গ্রাহক সচেতনতা বাড়বে। প্রকৃত ব্যবহারের ভিত্তিতে বিলিং ব্যবস্থার মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহ সেবা আরও জনবান্ধব হবে।

এখন পর্যন্ত দেশে প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করা হয়েছে মাত্র সাড়ে তিন লাখ। বিপুল চাহিদা থাকলেও নানা সীমাবদ্ধতায় দ্রুত গতিতে প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করতে পারছে না সরকার। এই কারণে শুধু সরকারি উদ্যোগে আবাসিক পর্যায়ে সকল গ্রাহকের জন্য প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করা অত্যন্ত সময়সাপেক্ষ। এ জন্য সরকারের পাশাপাশি এই খাতে বেসরকারি উদ্যোক্তাদেরও স্বাগত জানাতে নীতিমালা সংশোধন করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, সংশোধিত নীতিমালা অনুযায়ী প্রথমে খোলা বাজার থেকে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার কিনবেন আবাসিক পর্যায়ের গ্রাহকরা। এরপর প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের আবেদনের সঙ্গে কেনা মিটারটি সংশ্লিষ্ট বিতরণ কোম্পানিতে জমা দিতে হবে। কোম্পানি যাচাই বাছাই করে মিটারের মান নির্ণয়ের পর সবকিছু ঠিক থাকলে সেটি স্থাপন করতে পারবেন গ্রাহক। নিজে কিনলে গ্রাহককে মাসিক মিটার ভাড়া দিতে হবে না।

মিটারের মান যাচাই হবে যেভাবে : মিটারের স্ট্যান্ডার্ড এবং স্পেসিফিকেশন নির্ধারণের জন্য একটি এবং খোলা বাজার থেকে কেনা মিটার যাচাইয়ের জন্য একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি করবে পেট্রোবাংলা। বিশেষজ্ঞ কমিটির ঠিক করা স্ট্যান্ডার্ড এবং স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী খোলা বাজার থেকে প্রি-পেইড মিটার কিনতে হবে গ্রাহককে। গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলোর বর্তমানে ব্যবহৃত প্রি-পেইড মিটারিং এবং বিলিং সফটওয়্যারের সঙ্গে এটির মিল থাকতে হবে।
বেসরকারি পর্যায়ে প্রি-পেইড মিটার আমদানি এবং উৎপাদন করতে চাইলে দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো পেট্রোবাংলার শর্ত মেনে করতে পারবে। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান প্রতিটি লট বন্দরে খালাসের সময় পেট্রোবাংলার প্রতিনিধি দল মিটারের স্ট্যান্ডার্ড এবং স্পেসিফিকেশন যাচাই করবে। উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মিটার বাজারজাত করার আগেও পেট্রোবাংলার প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতে প্রতিটি মিটার পরীক্ষা করা হবে।

মিটার ভাড়া দিতে হবে না : বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিছুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অনেকেই বলছেন, মিটার কেনার বিষয়টি কেন আমরা উন্মুক্ত করে দিচ্ছি না। এখন নীতিমালা সংশোধন করে বিষয়টি উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। সংশোধিত নীতিমালা অনুসরণ করে এখন যে কেউ গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার কিনে নিজের বাসায় স্থাপন করতে পারবেন।

সচিব বলেন, গ্রাহক যদি নিজে মিটার কিনেন তাহলে বিলের সঙ্গে তাকে আর মিটার ভাড়া দিতে হবে না। তবে সরকারিভাবে মিটার দেওয়া হলে গ্রাহককে মিটার ভাড়া দিতে হবে। বেসরকারি উদ্যোক্তাদের এই খাতে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি সরকারিভাবেও প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ দ্রুততার সঙ্গে করতে চাই আমরা। আগামী দুই বছরের মধ্যে অন্তত ৩৫ লাখ গ্রাহকের ঘরে প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করতে চাই।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 1132 People

সম্পর্কিত পোস্ট