চট্টগ্রাম রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১

১৪ অক্টোবর, ২০২১ | ১:১২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ দুর্গোৎসবের শেষ রাত

আজ নবমী। উৎসবের শেষ রাত। আগামীকাল বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে শেষ হবে পাঁচ দিনব্যাপী দুর্গোৎসব। গতকাল রাতে সন্ধিপূজার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে মহাঅষ্টমী। গভীর রাতেও নগরীর মÐপগুলোতে ছিল ভক্তের ঢল। গতবারের মত এবারও পাথরঘাটায় রাধাগোবিন্দ ও শান্তনেশ্বরী মাতৃমন্দিরে অনুষ্ঠিত হয়েছে কুমারী পূজা। নবমীর রাতে ভক্তদের মন কাঁদে। কারণ পরের দিন বিদায় নেবেন মা দুর্গা। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পূজার পাঁচটা দিনের অপেক্ষায় থাকেন গোটা বছর। নবমী মানেই পূজা শেষ। পরের দিন দেবীর বিসর্জন। মন ভার করে আবার সেই একঘেয়ে জীবনে ফিরে যাওয়া। নবমী রাতে তাই মণ্ডপে মণ্ডপে বিদায়ের ঘণ্টা বাজে। পুরাণ অনুযায়ী, দেবী দুর্গা এবং মহিষাসুরের দীর্ঘ লড়াইয়ের চূড়ান্ত দিনটিকে চিহ্নিত করা হয় নবমীতে। তারপরে দশমীর দিনই পরাজিত হয়েছিল মহিষাসুর। একই সঙ্গে জয় হয় নারী শক্তির। সেই দিন থেকেই শুরু হয়, দেবীর উপাসনার। আজ সকাল ৯টা ৫৭মিনিটে বিহিত পূজার মাধ্যমে শুরু হবে মহানবমী। নবমীর বিশেষত্ব হলো হোমযজ্ঞ অনুষ্ঠান। আঠাশ বা একশো আটটি নিখুঁত বেলপাতা দিয়ে হয় এ যজ্ঞ। হোমযজ্ঞের মাধ্যমে অশুভ শক্তির বিনাশ হয়। করোনা মহামারির কারণে সংক্রমণ এড়াতে এবছরও বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে। তারপরও গতকাল সকালে অষ্টমী পূজার অঞ্জলি শেষে নগরীর মণ্ডপে মণ্ডপে নেমেছিল ভক্তের ঢল। স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি মণ্ডপে ভক্তদের আসার কথা বলা হলেও বাস্তবে ছিল না এর ছিঁটেফোঁটাও। পূজার্থী ও দর্শনার্থীদের ভিড় সামলাতেই ব্যস্ত ছিলেন বিভিন্ন পূজা মণ্ডপের আয়োজকরা। এদিকে ঐতিহ্য মেনে এবারও চট্টগ্রামের কয়েকটি মন্দিরে হয়েছে কুমারী পূজা। নগরীর পাথরঘাটা রাধাগোবিন্দ ও শান্তনেশ্বরী মাতৃমন্দিরে কুমারী পূজার জন্য মাতৃভাবের পবিত্রতার প্রতীক হিসেবে এ বছর কুমারী মায়ের আসনে বসানো হয়েছে ৬ বছর বয়সী প্রীত ধরকে। উমা নামে পুজিত হন তিনি। প্রীত সেন্ট স্কলাস্টিকাস স্কুলের কেজি শ্রেণিতে অধ্যয়ন করছেন। তার বাবার মিন্টু ধর ও মা পলি ধর। চট্টগ্রামের দক্ষিণ রামপুর সাতকানিয়ার বাসিন্দা মিন্টু ধর বর্তমানে পরিবার নিয়ে পাথরঘাটা আশরাফ আলী সড়কে বসবাস করেন। সকাল সাড়ে ১০টায় মাতৃরূপে ফুল, চন্দন, বেলপাতা ও তুলশী পাতা দিয়ে শুরু হয় পূজা-অর্চনা। পূজা কার্যক্রম পরিচালনা করেন শান্তন্বেশ্বরী মাতৃমন্দিরের মোহন্ত মহারাজ শ্যামল সাধু। তিনি বলেন, কুমারী আদ্যাশক্তি মহামায়ার প্রতীক। দুর্গার আরেক নাম কুমারী। কুমারীরা শুদ্ধতার প্রতীক হওয়ায় মাতৃরূপে ঈশ^রের আরাধনার জন্য কুমারী কন্যাকে নির্বাচিত করা হয়। এদিকে নগরের মনোহরখালী সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরেও আয়োজন করা হয় কুমারী পূজার। এতে ১০ বছরের কুমারী রাধিকা দাশকে দেবী রূপে পূজা করা হয়।

 

পূর্বকোণ/এসি

শেয়ার করুন
  • 24
    Shares
The Post Viewed By: 264 People

সম্পর্কিত পোস্ট