চট্টগ্রাম শনিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২১

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ | ৮:২৮ অপরাহ্ণ

বোয়ালখালী সংবাদদাতা

শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিলেন ভোটাররা

সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে দ্বিতীয়বারের মতো বোয়ালখালী পৌরসভার নির্বাচন। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ চলে একটানা ৪টা পর্যন্ত। এসময় অপ্রীতিকর কোনো ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে প্রায় সবক্ষেত্রে ভোট অবাধ শান্তিপূর্ণ করতে প্রশাসনের তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে কয়েক কেন্দ্রে পূর্ব থেকে ভোটারদের মাঝে নানা আতংক ছড়ানোয় ভোটার উপস্থিতি ছিল কম। সকাল ৮টার আগেই প্রতিটি কেন্দ্রে নারী পুরুষের দীর্ঘ লাইন ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথে এ সংখ্যা বাড়তে থাকে। তবে ভোটারের একেবারে ভাটা পড়ে দুপুর ১টার পর থেকে। এসময় প্রায় প্রতিটি কেন্দ্র ফাঁকা হয়ে যায়।

ভোটার ও নির্বাচন পরিচালনা কর্মকর্তাদের অভিযোগ, ইভিএমে কিভাবে ভোট দিতে হবে তা অনেকে না জানার কারণে ভোট প্রদানে সময় ব্যয় হয়েছে বেশি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে উল্টাপাল্টা বোতাম টিপতে গিয়ে ইভিএম মেশিনটি হ্যাঙ্গ হয়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কেন্দ্রের ১শ গজের মধ্যে স্থানীয় ভোটাদের উৎসবের আমেজ। ছিল না কোনো হানাহানি তবে উদ্বেগ ছিল। নিজ সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে কর্মী সমর্থকেরা নির্বিগ্নে কাজ করছেন। সকাল ১০টায় দিকে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম গোমদন্ডী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (মহিলা) কেন্দ্রে নারী ভোটারের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। এ কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১৭৭৫। এসময় ভোট পড়ে ২৫৪টি বলে জানান কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার পরিচয় বড়–য়া।

আমির আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে (রোকেয়া ভবন) সকাল ১১টায় ভোটারের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। এ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার গৌতম রায় জানান, ইভিএম মেশিন ব্যবহার না জানার কারণে দুইটি মেশিন হ্যাঙ্গ হলে ভোটগ্রহণ ধীরস্থীর হয়ে যায়। পরে টেকনিশিয়ানরা পুনঃরায় তা চালু করে।

তিনি বলেন, মোট ভোটার ১৭৬৩ জনের মধ্যে ১১টা পর্যন্ত ১৮ভাগ ভোট কাস্ট হয়। ১ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম কধুরখীল স্কুল এন্ড কলেজের (মহিলা) প্রিসাইডং অফিসার আবদুল বাসেত জানান, ১২টা পর্যন্ত ১৮৭১ ভোটের মধ্যে পড়েছে ৩৯৮টি। তবে ওইসময় ওই কেন্দ্রে ভোটারের উপস্থিতি সংখ্যা ছিল শূণ্য পর্যায়ে।

দুপুর ১টার দিকে কধুরখীল সিকদারিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ভোটারশূন্য পরিবেশ। ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার ডা. আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, ২৭৩৯ ভোটের মধ্যে ভোট পড়েছে শতকরা ৩১।

৩ নম্বর ওয়ার্ডের সেবাখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিকেল ৩টায় ১৩৮২ ভোটের মধ্যে ৪৯ শতাংশ ভোট পেেড়ছে বলে নিশ্চিত করেন কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার বাবুল কান্তি দাশ।

৯ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম গোমদন্ডী চান্দারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের (রোকেয়া ভবন) প্রিসাইডিং অফিসার তাপস চক্রবর্তী জানান, এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৭৪৬জন। বিকেল ৩টা ৪৭টা পর্যন্ত ভোট পেেড়ছে ৭৩১টি। যা শতকরা ৪২ শতাংশ।

জানতে চাইলে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার সাইফুর রহমান (৫০) জানান, এরকম শান্তিপূর্ণ, উৎসবমুখর নির্বাচন কমই দেখেছি। প্রত্যেকে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পেরেছে।

এদিকে, ১ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কেন্দ্রগুলোতে ছিল প্রশাসনের বিশেষ মনিটরিং ব্যবস্থা। ফলে ঘটেনি কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা।

৮ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার রিজিয়া খাতুন (৪৫) জানান, সকালে দীর্ঘ লাইন দেখে কেন্দ্র থেকে চলে গেছি। আড়াইটায় এসে ভোট দিয়েছি। এসময় কেন্দ্র ফাঁকা ছিল।

এ প্রসঙ্গে রিটানিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, নির্বাচন অত্যন্ত সুন্দর, অবাধ, উৎসবমুখর হয়েছে। পুরোদিনে একটিও অভিযোগ আসেনি-এটাই আমাদের সফলতা। এককথায় অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হয়েছে।

উল্লেখ্য, পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ পদে ৫১জন, সংরক্ষিত পদে ৮জন প্রতিদ্বন্ধী প্রতিদ্বন্ধীতা করেছেন। পৌর এলাকায় পুরুষ ২৯,২৯২, মহিলা ২৬,৯০৯ মিলে সর্বমোট ভোটার রয়েছে ৫৬,২৮২জন।

পূর্বকোণ/বাবর/মামুন/পারভেজ

শেয়ার করুন
  • 137
    Shares
The Post Viewed By: 372 People

সম্পর্কিত পোস্ট