চট্টগ্রাম বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১

সর্বশেষ:

২১ জুন, ২০২১ | ১২:৫৯ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই প্রকল্পের মেয়াদ বেড়েছে এক বছর

চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের মেয়াদ এক বছর বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন (আইএমই) বিভাগের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন আইএমই বিভাগের সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী।
নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) প্রায় সাত হাজার ৯২৬ কোটি টাকায় দু’টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এরমধ্যে ৫ হাজার ৬১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে খাল পুনঃখনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন’ প্রকল্প। অন্যদিকে, দুই হাজার ৩১০ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ন করছে ‘কর্ণফুলী নদীর তীর বরাবর কালুরঘাট সেতু হতে চাক্তাই খাল পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ’ প্রকল্প। সভায় সিডিএ’র পক্ষ থেকে দু’বছর মেয়াদ বাড়ানোর কথা বললেও আইএমই বিভাগ এক বছর মেয়াদ বৃদ্ধি করে।
জলাবদ্ধতা নিরসরে নগরীর কর্ণফুলী নদীর তীর বরাবর কালুরঘাট সেতু হতে চাক্তাই খাল পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করে সিডিএ। ২০১৭ সালে জুলাই মাসে নেয়া এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০২১ সালের ৩০ জুনে শেষ হচ্ছে। গতকালের সভায় এই প্রকল্পের মেয়াদ আরো একবছর বাড়ানো হয়েছে। অন্যদিকে, ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য ২০১৭ সালের আগস্টে একটি প্রকল্প গ্রহণ করে সিডিএ। তিন বছর মেয়াদি এই প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষ সময় ২০২০ সালের জুন মাস। পরবর্তীতে তা বৃদ্ধি করে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। গতকালের সভায় তা বৃদ্ধি করে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়েছে।
জানতে চাইলে সিডিএ’র প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস জানান, জলাবদ্ধতার সম্পূর্ণ কাজ শেষ করতে আরো দুই বছরের মত সময় লাগবে। বৈঠকে আমরা দু’বছর সময় বাড়ানোর জন্য বলেছি। কিন্তু এক বছরের জন্য সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। আগামী সংশোধিত ডিপিপিতে আমরা সরকারের কাছে দু’বছর সময় চাইবো। তিনি আরো বলেন, আমরা মিটিং এ বলেছি, বাজেট একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যথাসময়ে কাজ করতে গেলে বরাদ্দ তো পেতে হবে। অন্যদিকে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য আমরা প্রস্তাবনা প্রস্তুত করছি। এগুলো আমরা জেলা প্রশাসককে পাঠাবো। ভূমি অধিগ্রহণের জন্য থোক বরাদ্দ দিতে হবে। ভূমি অধিগ্রহণ ছাড়া তো অন্যের ভূমিতে কাজ করা যাবে না। ফলে আমরা জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের কাজে পিছয়ে যাবো।
প্রকল্প ব্যয় বেড়ে কত হবে, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রধান প্রকৌশলী বলেন, যেহেতু ভূমি অধিগ্রহণ ব্যয় বেড়ে দেড়গুণ থেক তিনগুণ হয়েছে, সেহেতু প্রকল্প ব্যয় বাড়বে। তবে কি পরিমাণ বাড়বে তা এখনো বলা যাচ্ছে না।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে ৫ হাজার ৬১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে সিডিএ’র ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে খাল পুনঃখনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন’ শীর্ষক একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয় একনেক। তিন বছর মেয়াদি এই প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষ সময় ছিল ২০২০ সালের জুন মাস। পরবর্তীতে তা বৃদ্ধি করে ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত করা হয়েছিল। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ২০১৮ বছরের ৯ এপ্রিল সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষর করে সিডিএ। এরপর ২৮ এপ্রিল প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এছাড়া, চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে ১০ হাজার ৯২১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪টি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) দুটি, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন একটি এবং পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

 

পূর্বকোণ/এসি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 513 People

সম্পর্কিত পোস্ট