চট্টগ্রাম রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

২০ জুন, ২০২১ | ৮:৩৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এমডি প্রাইমারি পাস, প্রতারণার দায়ে গ্রেপ্তার

৫ম শ্রেণি পাস করেই তিনি বনে গেছেন একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক! নিজের মুদির দোকানের জন্য কোন ব্যাংক ম্যানেজারের কাছ থেকে ঋণ নিতে না পারলেও একাধিক মানুষকে আশা দিয়েছেন কোটি টাকা ঋণ দানের! আর এই কোটি টাকার ঋণের জন্য জামানত নিয়েছেন লাখ টাকা করে! নিয়েই হাওয়া!

এ পর্যন্ত চট্টগ্রাম ও সিলেটে একই কায়দায় হাতিয়ে নিয়েছেন প্রায় অর্ধ কোটি টাকা! তার প্রতারণায় নিঃস্ব হয়েছেন শতাধিক মানুষ। মহা এই প্রতারকের নাম মো. মনজিল (৩৮)। শনিবার (১৯ জুন) গভীর রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে তার আরও চার সহযোগীকে গ্রেপ্তার করে সিএমপির ডবলমুরিং থানা পুলিশ।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, মনজিল এক মহা প্রতারক। মানুষকে কোটি ঋণ প্রদানের লোভ দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এই প্রতারক। এছাড়া অনলাইনে চাকরি দেওয়ার বিজ্ঞাপন দিয়েও জামানতের নাম করে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে সে। বিভিন্ন জেলায় ঘুরে ঘুরে এ প্রতারণা করে মনজিল। চট্টগ্রামের পর সিলেটেও একই কায়দায় প্রতারণা করেছে। তার চক্রের সবাই গ্রেপ্তার হলেও তিনি ছিলেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। গতকাল রাতে তাকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরো জানান, মনজিল মূলত মুদি ব্যবসায়ী। লেখাপড়া করে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত। মুদির দোকানের ব্যবসায় মন্দা গেলে চাকুরি নেন ঢাকায়। সেখানে একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে চাকুরি নেন। সেই চাকুরির সুবাদেই পরিচয় হয় এক আদম ব্যবসায়ীর সাথে। সেই আদম ব্যবসায়ীর বুদ্ধিতেই খুলেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান। নাম দেন বি.এস.এম. বিজনেস এন্ড ইন্টারন্যাশনাল লজিস্টিকস কোম্পানী লিমিটেড। তিনিই হন এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বা এমডি। চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শেখ মুজিব রোডের আগ্রাবাদ সেন্টার ৪র্থ তলায় করেন আলিশান অফিস।

কারও যেন কোন সন্দেহ না হয় সেজন্য বোর্ড মেম্বার ও অর্গানোগ্রামও নির্ধারণ করেন। সেই অর্গানোগ্রাম অনুযায়ী সাইফুল ইসলামকে চেয়ারম্যান (৩৬), মো. মামুনুর রশিদ চৌধুরীকে জিএম (২৮), নাহিদুল ইসলামকে এজিএম (৩০), মোছা. সাগরিকাকে অডিট অফিসার (২৮) হিসেবে দেখানো হয়। মাঠ পর্যায়ে সদস্য সংগ্রহ ও ঋণ বিতরণের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয় এরিয়া ম্যানেজার। তারাই মূলত বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে ঋণের নামে জামানত সংগ্রহ করে।

তিনি আরও বলেন, পাঁচ লাখের জন্য ১০ হাজার টাকা, দশ লাখের জন্য ১৫ হাজার টাকা, এগারো লাখ থেকে ত্রিশ লাখের জন্য ২৩ হাজার টাকা, একত্রিশ লাখ থেকে পঞ্চাশ লাখের জন্য ৪৩ হাজার টাকা এবং একান্ন লাখ থেকে এক কোটির জন্য ৮২ হাজার টাকা করে সার্ভিস চার্জ নেওয়া হয়। সাথে আছে প্রোফাইল খরচ। এভাবে তারা শতাধিক মানুষের কাছ থেকে মোট ৩২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ঋণ দেওয়ার কথা বলে ২০ লাখ ৫১ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। চট্টগ্রামে তারা এই কর্মকান্ড চালায় একমাস। এরপর পালিয়ে সিলেট চলে যায়। সেখানেও এই কায়দায় প্রতারণা চলতে থাকে। তবে কিছুদিনের মধ্যেই তাদের প্রতারণা ধরা পড়ে যায়। মামলাও হয় সবার বিরুদ্ধে। এই মামলায় চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার হলেও অধরা থেকে যান মনজিল। অবশেষে গতকাল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ তাকে আদালতে প্রেরণের মাধ্যমে ৩ দিনের রিমান্ডে আনা হয়েছে।

পূর্বকোণ/আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 318 People

সম্পর্কিত পোস্ট