চট্টগ্রাম বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১

সর্বশেষ:

১৫ জুন, ২০২১ | ১০:৫২ অপরাহ্ণ

হাটহাজারী সংবাদদাতা

‘সম্পত্তির লোভে ছোটভাইকে গলা কেটে হত্যা’

হাটহাজারীর ফরহাদাবাদের মন্দাকিনীতে অর্থ ও সম্পত্তির লোভে মুদি দোকানি সরওয়ার আজমকে নিজ হাতে গলা কেটে হত্যা করে তারই বড় ভাই সরোয়ার।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) চট্টগ্রাম চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার ইকবালের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় সরোয়ার। তাতে সে এমন তথ্য জানিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন হাটহাজারী মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব শর্মা।

পূর্বকোণকে তিনি বলেন, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সরোয়ার স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দিতে গিয়ে বলেন, ‘ঘটনার দিন রাত সাড়ে আটটায় বাড়ি থেকে আজমের জন্য দোকানে খাবার নিয়ে যায় সরোয়ার। সুযোগ বুঝে খাবারে সেরিটন ট্যাবলেট, তেলাপোকা ও পিঁপড়া মারার কীটনাশক মেশায় সরোয়ার। কাজ শেষে বাড়ি ফিরে ফোন করে ভাত খেয়েছেন কি না সে খোঁজও নেন তিনি। এর কিছুক্ষণ পরই পুনরায় দোকানে এসে আজমকে ডাকতে থাকেন বড় ভাই সরোয়ার।’

‘আজম দোকান খোলার সঙ্গে সঙ্গে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। বিষয়টি আরও নিশ্চিত হতে তাকে গালমন্দ করে পরীক্ষা করে সরোয়ার। যখন বুঝলেন কীটনাশকে কাজ হয়েছে তখনই ছুরি দিয়ে ছোটভাইকে ঠান্ডা মাথায় জবাই করেন বড় ভাই সরোয়ার। তারপর সে দোকানের ভিতর থেকে চাটারের দুইটা নাট খুলে রাখে এবং রাত ৩ টায় বের হয়ে তালা ও নাট লাগিয়ে দিয়ে বাড়িতে চলে আসেন। এরমধ্যে সকাল গড়িয়ে দুপুর হলেও আজম দোকান না খোলায় প্রতিবেশি দোকানি বাড়িতে খবর দেন। সে খবরে সরোয়ার, চাচাতো-ফুফাতো ভাইসহ স্থানীয়রা দোকানের ওপরের টিন খুলে ভেতরে প্রবেশ করেন। এসময় সকলেই তাকে গলাকাটা অবস্থায় দেখতে পান।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব শর্মা আরও বলেন, জায়গা সম্পত্তি আর টাকা পয়সার লোভে ছোট ভাইকে হত্যা করে সরোয়ার। টাকা পয়সা ও ব্যবসা বাণিজ্য সবকিছুর হিসাব আজমের কাছেই ছিল। সে জন্যই তাকে হত্যা করা হতে পারে। বড় ভাই সরোয়ারকে আদালত জবানবন্দিশেষে কারাগারে প্রেরণ করে।

উল্লেখ্য, গেল ২ জুন সকালে ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের মন্দাকিনী গ্রামের জিন্নাত আলী চৌধুরী বাড়ির মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলমের পুত্র সরওয়ার আজমের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে হাটহাজারী মডেল থানা পুলিশ।

পূর্বকোণ/মামুন/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 604 People

সম্পর্কিত পোস্ট