চট্টগ্রাম সোমবার, ২১ জুন, ২০২১

১৮ মে, ২০২১ | ১২:৩৯ অপরাহ্ণ

মিজানুর রহমান 

পাহাড়ে পিডিবির প্রকল্প: ৫৬ হাজার ঘরে বিদ্যুতের আলো

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) একটি প্রকল্প পাল্টে দিচ্ছে তিন পার্বত্য জেলার মানুষের জীবনধারা। ৫৬৫ কোটি টাকার এই প্রকল্পটির মাধ্যমে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানের ৫৬ হাজার ঘরে প্রথমবারের মতো বিদ্যুৎ যাচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রকল্পের ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ৮৭ দশমিক ৮৭ শতাংশ। চলতি বছরেই শেষ হবে বাকি কাজ।

পিডিবির সংশ্লিষ্ট কর্তকর্তারা জানিয়েছেন- রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবান জেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যে নতুন করে ৫৬ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। ‘তিনটি পার্বত্য জেলায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন’ শীর্ষক এই প্রকল্পটির কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালের প্রথম দিকে।

প্রকল্পের আওতায় ১২টি ৩৩/১১ কেভির নতুন উপকেন্দ্র নির্মাণ ও ৪টি উপকেন্দ্রের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা, ৩৩ কেভির ৩৬৩ কিলোমিটার লাইন, ১১ কেভির ৫৫৪ কিলোমিটার লাইন, ১১/০.৪ কেভির ৩১৮ কিলোমিটার লাইন, পয়েন্ট ৪ কেভির ৬৬৬ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন এবং ৫৮৪টি ট্রান্সফরমার স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়।

কোথায় কত অগ্রগতি

চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত সময়ে ১২টি ৩৩/১১ কেভির নতুন উপকেন্দ্র নির্মাণ ও ৪টি উপকেন্দ্রের ক্ষমতা বৃদ্ধিসহ মোট ১৬টি উপকেন্দ্রের মধ্যে ১৩টি উপকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ পুরোপুরি শেষ হয়েছে। বাকি ৩টি উপকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ পুরোদমে চলছে বলে প্রকল্প পরিচালক ও পিডিবির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী উজ্জ্বল বড়–য়া পূর্বকোণকে জানিয়েছেন।

৩৩ কেভির ৩৬৩ কিলোমিটার লাইনের মধ্যে পুরো কাজ শেষ হয়েছে। এরমধ্যে রাঙামাটিতে ১৭৪ কিলোমিটার, খাগড়াছড়িতে ১০৪ কিলোমিটার এবং বান্দরবানে ৮৫ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন করা হয়েছে। এছাড়া ১১ কেভির ৫৫৪ কিলোমিটার লাইনের মধ্যে ৪৯৯ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন করা হয়েছে। এরমধ্যে রাঙামাটিতে ১৮৫ কিলোমিটার, খাগড়াছড়িতে ১৯৭ কিলোমিটার এবং বান্দরবানে ১১৭ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন করা হয়েছে।

অন্যদিকে ১১/৪ কেভির ৩১৮ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন কাজ পুরো শেষ হয়েছে। এর মধ্যে রাঙামাটিতে ৯৮ কিলোমিটার, খাগড়াছড়িতে ১৫৭ কিলোমিটার এবং বান্দরবানে ৬৩ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন করা হয়েছে। এছাড়া পয়েন্ট ৪ কেভির ৬৬৬ কিলোমিটার লাইন  নির্মাণ ও পুনর্বাসন কাজও পুরোপুরি শেষ হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানে ৫৮৪টি ট্রান্সফারমার স্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে থ্রি ফেইজের ৩৩৭টি এবং সিংগেল ফেইজের ২৪৭টি। সব ট্রান্সফরমার স্থাপনের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে বলে ‘তিনটি পার্বত্য জেলায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পূর্বকোণকে জানিয়েছেন।

কাজ শেষ হবে চলতি বছর

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) বিতরণ দক্ষিণাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান সামিনা বানু পূর্বকোণকে বলেন- তিন পার্বত্য জেলায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালে। চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত এই প্রকল্পের ভৌত অগ্রগতি ৮৭ দশমিক ৮৭ শতাংশ। আর আর্থিক অগ্রগতি ৮১ দশমিক ৭১ শতাংশ। চলতি বছরেই বাকি কাজ শেষ হবে।

তিনি বলেন- ৫৬৫ কোটি টাকার এই প্রকল্পটির মাধ্যমে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানের ৫৬ হাজার ঘরে প্রথমবারের মতো বিদ্যুৎ যাচ্ছে। প্রকল্প শুরুর আগে এই তিন পার্বত্য জেলায় আমাদের গ্রাহক সংখ্যা ছিলো ৯৯ হাজার ৭৫১ জন। চলতি বছরের মার্চে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৩৫৬ জন। প্রকল্পের কাজ যত দ্রুত এগিয়ে যাবে বাকিরাও তত দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ পাবেন।

এক প্রশ্নের উত্তরে দেওয়ান সামিনা বানু বলেন, ২০১৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের শতভাগ এলাকা বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যে এই প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। সে হিসাবে প্রকল্পের কাজ শেষ হলে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানের শতভাগ গ্রাহক বিদ্যুৎ পাওয়ার কথা। তবে গত চার বছরে গ্রাহক সংখ্যা কিছুটা বাড়তে পারে। যারা বিদ্যুৎ সংযোগ পাবেন না, তাদেরও পর্যায়ক্রমে বিদুৎ সংযোগ দেওয়া হবে।

 

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 155 People

সম্পর্কিত পোস্ট