চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ মে, ২০২১

সর্বশেষ:

২০ এপ্রিল, ২০২১ | ১২:৩৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদ বাজার এবারও অনলাইনে

একদিকে করোনার ধাক্কায় টালমাটাল পুরো দেশ। লকডাউনের কারণে বন্ধ সব ধরনের মার্কেট ও দোকান। অন্যদিকে, দুয়ারে কড়া নাড়ছে খুশির ঈদ। সবার মধ্যে ঈদের কেনাকাটার তোড়জোড়।

এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণ থেকে বাঁচতে অনেকটা ঘরবন্দি হয়ে থাকা নগরবাসীর ঈদ বাজারে এবারও ভরসা অনলাইন শপিং। স্থানীয় উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি অনলাইনে ক্রেতা ধরতে এ বছর নামি দামি ব্রান্ডগুলোও নানান উদ্যোগ নিয়েছে।

ঈদ উৎসব উদযাপনের প্রধান অনুষঙ্গ- নতুন জামা, জুয়েলারি, কসমেটিক থেকে শুরু করে নানা পণ্য অনলাইনে অর্ডার নিয়ে ডেলিভারি ম্যানের মাধ্যমে ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন তারা। ঈদের কেনাকাটায় অভিজাত এবং রুচিশীল মানুষের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে থাকে জনপ্রিয় ব্রান্ড আড়ং এর পণ্য।

লকডাউনে নগরীর দুই নম্বর গেট এবং হালিশহরের দুইটি শাখা বন্ধ থাকলেও অনলাইনে আড়ং এর নিজস্ব ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কেনার সুযোগ পাচ্ছেন ক্রেতারা। ক্রেডিট কার্ড, ভিসা ডেবিট কার্ড, বিকাশসহ ই-পেমেন্টের মাধ্যমে পণ্যের দাম পরিশোধের পর আড়ং এর আছে হোম ডেলিভারি সুবিধাও। ঈদ উপলক্ষে আড়ং এর ওয়েবসাইটে শোভা পাচ্ছে নতুন নতুন ডিজাইনের পাঞ্জাবি, শাড়ি, ঘর সাজানোর নানা উপকরণ এবং কসমেটিক পণ্য। আড়ং ছাড়াও নগরীর পোশাকের জনপ্রিয় ব্রান্ড জেন্টাল ম্যান, দেশী দশ, জেন্টাল পার্ক, শৈল্পিক, কেটস আই অনলাইনে ঈদের পোশাক বিক্রি করছে। এসব প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ওয়েবসাইট ছাড়াও দারাজ, অথবা অ্যাপ এবং ফেসবুক পেইজে অর্ডার দিয়ে পছন্দের পণ্য ঘরে বসেই কিনতে পারছেন যে কেউ।

ঈদের অনলাইন মার্কেটে ক্রেতা ধরতে পিছিয়ে নেই স্থানীয় উদ্যোক্তারাও। বিভিন্ন ই-কমার্স সাইট, ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক পেইজে নিজেদের শিপিং কিংবা তৈরি করা নতুন জামা, জুয়েলারি, কসমেটিক থেকে শুরু করে নানা পণ্যে ঈদ উপলক্ষে ছাড়ও দিচ্ছেন তারা।

জুয়েলারি সামগ্রীর জনপ্রিয় ফেসবুক পেইজ পরিপাটির প্রতিষ্ঠাতা আশরাফুল ইসলাম শামীম দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ঈদ ম্যাট স্পেশাল, কুন্দন আউটফিট স্পেশাল, ঈদ স্পেশাল দুবাই গোল্ড, ঈদ স্পেশাল আনকাট সেমি লং নেকপিসসহ সব ধরনের জুয়েলারি অনলাইনে অর্ডার নিচ্ছি আমরা। হোম ডেলিভারি সার্ভিসের পাশাপাশি পণ্য হাতে পাওয়ার পর দাম পরিশোধের সুযোগও রেখেছি আমরা। তবে করোনার কারণে অর্ডার কিছুটা কম পাচ্ছি।

ঘরে বসে ঝক্কি-ঝামেলা ছাড়া ঈদের কেনাকাটা করতে পেরে খুশি ক্রেতারাও। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী উম্মে সাদিয়া দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, লকডাউনের আগেই ঈদের জামা কেনা শেষ। কিন্তু কসমেটিক এবং জুয়েলারি আইটেম কেনা হয়নি। করোনার কারণে সব মার্কেট বন্ধ থাকায় ঈদের কেনাকাটায় ঘাটতি ছিলো। এখন অনলাইনে অর্ডার দিয়ে কিনেছি। বাসায় এসে পণ্য পৌঁছে দিয়েছে তারা।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 164 People

সম্পর্কিত পোস্ট